উখড়া, নদিয়া

পশ্চিমবঙ্গের নদীয়া জেলার হরিণঘাটা সমষ্টি উন্নয়ন ব্লকের একটি গ্রাম
(নগরউখড়া থেকে পুনর্নির্দেশিত)

উখড়া হল ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের নদীয়া জেলার অন্তর্গত কল্যাণী মহকুমার অধীনস্থ হরিণঘাটা সমষ্টি উন্নয়ন ব্লকের একটি গ্রাম।[১]

উখড়া
গ্রাম
উখড়া পশ্চিমবঙ্গ-এ অবস্থিত
উখড়া
উখড়া
পশ্চিমবঙ্গ, ভারতে অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২২°৫৬′৪২″ উত্তর ৮৮°৩৯′৩৭″ পূর্ব / ২২.৯৪৪৯৩৮° উত্তর ৮৮.৬৬০৩০৭° পূর্ব / 22.944938; 88.660307স্থানাঙ্ক: ২২°৫৬′৪২″ উত্তর ৮৮°৩৯′৩৭″ পূর্ব / ২২.৯৪৪৯৩৮° উত্তর ৮৮.৬৬০৩০৭° পূর্ব / 22.944938; 88.660307
দেশভারত
রাজ্যপশ্চিমবঙ্গ
জেলানদিয়া
আয়তন
 • মোট৪.৭৮ বর্গকিমি (১.৮৫ বর্গমাইল)
উচ্চতা১২ মিটার (৩৯ ফুট)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট১৩,৫৪৮
 • জনঘনত্ব২,৮০০/বর্গকিমি (৭,৩০০/বর্গমাইল)
ভাষা
 • অফিসিয়ালবাংলা, ইংরেজি
সময় অঞ্চলআইএসটি (ইউটিসি+৫:৩০)
টেলিফোন কোড০৩৪৭৩
লোকসভা কেন্দ্রবনগাঁ
বিধানসভা কেন্দ্রহরিণঘাটা
ওয়েবসাইটwww.nadia.nic.in

ঐতিহাসিক পটভূমিসম্পাদনা

ঐতিহাসিকদের মতে, মুঘল সম্রাট আকবরের বিখ্যাত সভাসদ আবুল ফজল কতৃক রচিত আইন-ই-আকবরী গ্রন্থে অনেক পরগণার উল্লেখ আছে। এর একটি উখড়া পরগণা। অষ্টাদশ শতকের গোড়ার দিকে মুর্শিদকুলি খাঁ উখড়া পরগণার জমিদারির দায়িত্ব ভবানন্দ মজুমদারের বংশধর রঘুরাম নামক এক ব্রাহ্মণ্-কে অর্পন করেন। হাণ্টারের বিবরণ থেকে জানা যায়, তখন উখড়া পরগনার আয়তন ছিল প্রায় ২৫,০০০ একর বা ৪০ বর্গমাইল। বর্তমানে এই পরগণার কিছু অংশ পরেছে উত্তর ২৪ পরগণা জেলায় এবং বাকি অংশ পরেছে নদিয়া জেলাতে, যা বর্তমানে উখড়া নামে পরিচিত। উখড়ার পাশ দিয়ে যমুনা নদী বয়ে যাওয়ায় ব্রিটিশ আমলে সেখানে গঞ্জ বা ছোট গ্রাম গড়ে উঠেছিল। তাছাড়া বাংলাদেশ ভাগের সময় বা মুক্তি যুদ্ধের সময় উখড়া ছিল ভারতীয় সেনাদের স্থলঘাটি ও প্রশিক্ষণ এলাকা। কিছু জায়গায় এখনও সেনা বাঙ্কার ও কলোনির দেখা পাওয়া যায়।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

ভৌগোলিক উপাত্তসম্পাদনা

উখড়ার অবস্থানের অক্ষাংশ ও দ্রাঘিমাংশ হল ২২°৫৬′ উত্তর ৮৮°৪০′ পূর্ব / ২২.৯৪° উত্তর ৮৮.৬৬° পূর্ব / 22.94; 88.66। সমূদ্র সমতল হতে এর গড় উচ্চতা হল ১২ মিটার (৩৯ ফুট)।[২]

জনসংখ্যার উপাত্তসম্পাদনা

ভারতের ২০১১ সালের আদমশুমারি অনুসারে উখড়ার জনসংখ্যা হল ১৩,৫৪৮ জন। এর মধ্যে ৬,৯৭৪ জন পুরুষ এবং ৬,৫৭৪ জন মহিলা। এর মধ্যে পুরুষ ৫১%, এবং নারী ৪৯%। এখানে সাক্ষরতার হার ৮৪% । পুরুষদের মধ্যে সাক্ষরতার হার ৮৯%, এবং নারীদের মধ্যে এই হার ৭৯%। সারা পশ্চিমবঙ্গের সাক্ষরতার হার ৫৯.৫%, তার চাইতে উখড়ার সাক্ষরতার হার বেশি। উখড়ার জনসংখ্যার ৯.৬৬% হল ৬ বছর বা তার কম বয়সী।[৩]

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসম্পাদনা

উখড়ায় দুটি সরকার পোষিত উচ্চমাধ্যমিক বিদ্যালয় আছে। এগুলি হল:

এই বিদ্যালয়গুলি পশ্চিমবঙ্গ উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ দ্বারা পরিচালিত হয়।[৪] এছাড়াও, একটি সরকারি ইংরেজি মাধ্যম এলিমেন্টারি প্রাইমারি স্কুল (মাইকেল মধুসূদন ইংলিশ মিডিয়াম প্রাইমারি স্কুল) ও কিছু বেসরকারি এবং আধা-সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় আছে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

যোগাযোগসম্পাদনা

কাঁচরাপাড়া-হরিণঘাটা-জলেশ্বর রোড উখড়ার মধ্যে দিয়ে গেছে। এই সড়কটি পূর্ব দিকে গাইঘাটায় ১১২ নং জাতীয় সড়ক ও পশ্চিম দিকে বড় জাগুলিয়ায় ১২ নং জাতীয় সড়ক এবং কাঁচড়াপাড়ায় কল্যাণী এক্সপ্রেসওয়েকে সরাসরি যুক্ত করেছে। ১৯৭১ এর যুদ্ধের সময় এই সড়কটি ছিল ভারতীয় সেনাবাহিনীর সবথেকে নিরাপদ ও কমসময়ে ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতে পৌছানোর পথ। এই সড়কপথে ভারতীয় সেনা ও বি.এস.এফ পেট্রাপোল বর্ডারে যাতায়াত করে। এই সড়কটির মোট দৈর্ঘ্য প্রায় ৩০ কিলোমিটার। সড়কটি উখড়াতে তিনটি প্রধান রাস্তার সাথে সরাসরি যুক্ত, যথাক্রমে: অশোকনগর রোড, নিমতলা রোড এবং হাবড়া রোড। বর্তমানে কল্যাণীতে এইমস্ হাসপাতাল গড়ে ওঠার ফলে, এই সড়কটি সম্প্রসারণের কাজ চলছে। হাবড়া, অশোকনগর, কাঁচরাপাড়া এবং কল্যাণী হল উখড়ার নিকটতম রেলওয়ে স্টেশন। এছাড়াও, উখড়া বিভিন্ন প্রতিবেশী গ্রামের সাথে প্রচুর অটো, টোটো ও ভ্যান দ্বারা ভালোভাবে সংযুক্ত।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Ukrah details (ইংরেজি ভাষায়) https://www.latlong.net/place/nagarukhra-west-bengal-india-14390.এইচটিএমএল  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)
  2. "উখড়া"Falling Rain Genomics, Inc (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ জুন ২০, ২০১৭ 
  3. "উখড়ার ২০১১ সালের আদমশুমারী - নদিয়া, পশ্চিমবঙ্গ" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৫ এপ্রিল ২০১৬ 
  4. "নদিয়া জেলার উচ্চমাধ্যমিক বিদ্যালয়, পশ্চিমবঙ্গ" (ইংরেজি ভাষায়)। [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]