দেবপ্রতিম পুরকায়স্থ

দেবপ্রতিম পুরকায়স্থ (জন্ম ১৯৭৬, আসাম) কৌশল বিভাগের একজন অধ্যাপক, একাডেমিক নেতা এবং কেস পদ্ধতি বিশেষজ্ঞ।[১][২] তিনি অনেক পুরস্কারপ্রাপ্ত[৩] এবং বেস্টসেলিং কেস স্টাডি লিখেছেন যা ম্যানেজমেন্ট বিষয়গুলি পড়ানোর ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়। তিনি যুক্তরাজ্য ভিত্তিক স্বতন্ত্র কেস পদ্ধতি সংস্থা দ্য কেস সেন্টারের ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৩ জুন ২০২০ তারিখে[৪] তালিকাটি প্রথম প্রকাশিত হওয়ার পরে ২০১৬ সাল থেকে প্রতিবছর ১ নম্বর সেরা বিক্রয়কারী লেখক।[৫][৬][৭]

দেবপ্রতিম পুরকায়স্থ
জন্ম১৯৭৬
আসাম
জাতীয়তাভারতীয়
শিক্ষাবিএসসি (অনার্স)

এমবিএ

পিএইচডি
মাতৃশিক্ষায়তনকটন কলেজ, গুয়াহাটি বিশ্ববিদ্যালয়

উত্কাল বিশ্ববিদ্যালয়, ভুবনেশ্বর

KIIT, ভুবনেশ্বর
পেশাঅধ্যাপক, একাডেমিক নেতা, লেখক
দাম্পত্য সঙ্গীসোমালি পুরকায়স্থ
সন্তানসুপ্রতিম পুরকায়স্থ
পিতা-মাতাদিলীপ কুমার পুরকায়স্থ, অনিমা পুরকায়স্থ
দেবপ্রতিম পুরকায়স্থ

পুরকায়স্থ কে কেস পদ্ধতির চেনাশোনাগুলিতে একটি পরিচিত মুখ হিসাবে বর্ণনা করা হয়েছে[৮], গ্রাফিক উপন্যাস (কমিক বই) ফর্ম্যাট সহ বিভিন্ন উদ্ভাবনী বিষয় এবং ফর্ম্যাটে কেস স্টাডির বিকাশের জন্য তিনি পরিচিত।[৯][১০] ডিসেম্বর ২০১৯-এ শেষ দশকের জন্য, পুরকায়স্থের কেস স্টাডি বিশ্বব্যাপী প্রায় পাঁচ লক্ষ শিক্ষার্থীদের পড়ানোর জন্য ৯০ টিরও বেশি দেশের ১০০০ টিরও বেশি ব্যবসায়িক বিদ্যালয়ে ব্যবহৃত হয়েছিল।[১১]

ভূমিকা এবং দায়িত্বসম্পাদনা

এএসিএসবি-অনুমোদিত আইসিএফএআই বিজনেস স্কুল হায়দরাবাদ [১২] (আইসিএফএআই ফাউন্ডেশন ফর উচ্চশিক্ষা, হায়দরাবাদ) -এ কৌশল শেখানোর পাশাপাশি, পুরকায়স্থ আইবিএস কেস রিসার্চ সেন্টারের নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য প্রথমে সহযোগী ডিন, তারপরে ডিন[১১], এবং তারপরেই পরিচালক হিসাবে গণ্য হন।[৯][১৩]

তিনি 'কেস ফোলিও - আইইউপি জার্নাল অফ ম্যানেজমেন্ট কেস স্টাডিজ' এর পরামর্শক সম্পাদকও[১৪], উত্তর আমেরিকার কেস রিসার্চ অ্যাসোসিয়েশন (NACRA) দ্বারা প্রকাশিত 'কেস রিসার্চ জার্নাল' এর সম্পাদকীয় বোর্ডের সদস্য।[২] তিনি ‘দি কেস জার্নাল’, দ্য কেস অ্যাসোসিয়েশনের দাপ্তরিক জার্নাল (Emerald গ্রুপ দ্বারা প্রকাশিত) এবং দ্য কেস সেন্টার দ্বারা প্রকাশিত ‘কেস ফোকাস’ এর সম্পাদকীয় উপদেষ্টা বোর্ডের সদস্য।[৫][১৫]

পুরস্কার এবং স্বীকৃতিসম্পাদনা

পুরকায়স্থ দ্য কেস সেন্টারের এক্সিকিউটিভ কমিটি থেকে ২০১৫ সালে ‘কেস পদ্ধতিতে অসামান্য অবদান’ পুরস্কার সহ বেশ কয়েকটি কেস পদ্ধতি পুরস্কার এবং প্রশংসা জিতেছেন।[১৬][১৭] তিনি সর্বকনিষ্ঠ এবং এই সময়ের মধ্যে মাত্র আটজন অধ্যাপকের মধ্যে একজন যিনি এই আজীবন কৃতিত্বের পুরস্কার জিতেছেন [১]। এটিই প্রথমবারের মতো ভারতের কোনও অনুষদের সদস্য এই সম্মানজনক পুরস্কার জিতেছিলেন[১৮] তিনি এই আমেরিকা ও ইউরোপের বাইরের প্রথম শিক্ষকও ছিলেন যিনি এই পুরস্কারটি পেয়েছিলেন এবং দ্য কেস সেন্টারের সর্বকালের শীর্ষ লেখকদের তালিকায় স্থান পেয়েছিলেন (২০১৪ সালে প্রকাশিত, গত ৪০ বছর ব্যাপিত)।[৩][১৯]

পুরকায়স্থের অন্যান্য পুরস্কারগুলি হল নিম্নলিখিত সংস্থা থেকে: একাডেমি অফ ম্যানেজমেন্ট[২০][২১][২২], এমবিএ'র সমিতি (Association of MBA, যুক্তরাজ্য)[১৪], ইএফএমডি (EFMD)[২৩][২৪][২৫][২৬], সিইএমএন (CEEMAN)[২৭], উত্তর আমেরিকা কেস রিসার্চ অ্যাসোসিয়েশন[২৮][২৯], ওকোস ইন্টারন্যাশনাল (সুইজর্লণ্ড)[৩০], দ্য কেস সেন্টার[৪][৮][৩১][৩২][৩৩], জন মলসন স্কুল অফ বিজনেস (কনকর্ডিয়া বিশ্ববিদ্যালয়)[১০][৩৪][৩৫], চীন ইউরোপ আন্তর্জাতিক ব্যবসা স্কুল (CEIBS)[৩৬][৩৭], এএসই বিজনেস স্কুল (পর্তুগাল)[৩৮], সিরাকিউজ বিশ্ববিদ্যালয়[৩৯], ইত্যাদি।[১][২][৫][৪০]

চিত্রশিল্পী সিদ্ধার্থ ঘোষের সাথে গ্রাফিক নভেল ফর্ম্যাটে তিনটি কেস তৈরি করেছেন পুরকায়স্থ[৪১]। সিদ্ধার্থ ঘোষের দ্বারা চিত্রিত 'টারবুলেন্স অন দ্য টারম্যাক' এর জন্য পুরকায়স্থ দ্য কেস সেন্টার থেকে ২০১৯ সালের 'আউটস্ট্যান্ডিং কমপ্যাক্ট কেস' পুরস্কার জিতেছিলেন[৪২]

মার্চ ২০১৮ সালে, পুরকায়স্থকে ক্যারিয়ার 360 এর "অনুষদ গবেষণা পুরস্কার" -র শৃঙ্খলা জুড়ে ভারতের শীর্ষশিক্ষকদের মধ্যে গণ্য করা হয়েছিল, যা ভারত সরকারের তৎকালীন মানবসম্পদ বিকাশ মন্ত্রী প্রকাশ জাভাদেকার উপস্থাপন করেছিলেন।[৪৩]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Chakravorty, Reshmi (২০১৬-১২-১৩)। "Professor Debapratim Purkayastha: The case study expert"Deccan Chronicle (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  2. Sauerbronn, Fernanda Filgueiras, Diochon, Pauline Fatien, Mills, Albert J. and Raufflet, Emmanuel (Eds) (২০১৭)। The Dark Side 3: Critical Cases on the Downside of Business। Routledge। পৃষ্ঠা XI। আইএসবিএন 9781783537570 
  3. Hindustan Times (২০১৫-০৪-০৯)। "Achieving New Milestones in Education"www.pressreader.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  4. BLoC, Team (২০২০-০২-২৬)। "ICFAI Business School bags two Case Centre awards"@bloncampus (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  5. "Dr. Debapratim Purkayastha: Best Selling Case Author"Open The Magazine (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৯-১১-০৮। ২০২০-০৬-০৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  6. "Top 40 Bestselling Case Authors 2018/19"thecasecentre.org (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৬-১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  7. "ICFAI Business School Professor Tops 2018-19 Bestselling Authors List"ANI News (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  8. Ethier, Marc (২০১৯-০২-২৫)। "Who Is Writing, & Who Is Teaching, The Best MBA Cases?"Poets&Quants (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  9. McCracken, Richard (২০১৯-১১-১৬)। "Teaching cases: Vision, realisation and impact"@businessline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  10. Dhoul, Tim (২০১৭-০৫-৩০)। "Cinematic Scenarios and Comics: The Case Method in Context"QS TopMBA Career Guide (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  11. Srrayvinya, Olm (ডিসেম্বর ২০১৯)। "Dr. Debapratim Purkayastha: A Relentless Highflyer & Leader Creating Future - Ready Leaders"education.siliconindia.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  12. Telangana Today (২০২০-০২-১৯)। "ICFAI Business School gets AACSB accreditation"Telangana Today (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  13. BLoC, Team (২০২০-০৪-২৭)। "ICFAI Business School among world's most successful case publishers"@businessline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  14. Diochon, Pauline Fatien, Raufflet, Emmanuel and Mills, Albert J. (Eds) (২০১৩)। The Dark Side 2: Critical Cases on the Downside of Business। Greenleaf Publishing। পৃষ্ঠা 126। আইএসবিএন 978-1-906093-92-1 
  15. "Case Focus - editorial board"thecasecentre.org (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  16. "Outstanding Contribution to the Case Method 2015 winner"thecasecentre.org (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৬-০৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  17. Kamath, Vinay (২০১৫-০৬-০৯)। "'Case studies help students apply theories and concepts in a real-world scenario'"@businessline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  18. Reporter, B. S. (২০১৫-০২-২৭)। "ICFAI B-school professor gets global recognition"Business Standard India। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  19. "40th anniversary bestselling authors"thecasecentre.org (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৪-২৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  20. Telangana Today (২০১৮-০৯-০৩)। "ICFAI Business School Wins Dark Side Case Award in the US"Telangana Today (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  21. BLoC, Team (২০১৮-০৮-২১)। "ICFAI Business School wins Dark Side Case Award"@businessline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  22. Telangana Today (২০১৭-০৮-২৮)। "ICFAI Business School case on sexual harassment wins award"Telangana Today (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  23. Bradshaw, Della (২০১২-০৪-১৯)। "Oxford and IBS in photo finish for case competition"www.ft.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  24. The Hans India (২০১৯-০৫-০১)। "IBS wins three EFMD Case awards"www.thehansindia.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  25. "ICFAI Business School, Hyderabad Wins EFMD Case Award"BW Education (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-০৬-২৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  26. BLoC, Team (২০১৬-০৬-১৭)। "Authors from IBS Hyderabad win big at European case study awards"@businessline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  27. "News"www.ceeman.org। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  28. "IBS Hyderabad wins CMA-Alberta Award for outstanding case in Corporate Governance"India CSR (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১১-১১-১৪। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  29. BLoC, Team (২০১৫-১০-১৭)। "Case from ICFAI Business School Wins Best Case Award at NACRA 2015"@businessline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  30. Vatyam, Nirupa (২০১৮-০৬-০৮)। "ICFAI Business School sweeps Oikos Case Writing Competition 2018 - Times of India"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  31. Telangana Today (২০১৮-০৩-০৬)। "IBS wins 'Outstanding Case Writer' Award"Telangana Today (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  32. Bradshaw, Della (২০১৫-০২-২২)। "Harvard scoops the trophies in the business school 'Oscars'"www.ft.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  33. BUREAU, OUR (২০১৪-০৯-২৩)। "ICFAI Business School faculty wins The Case Centre, UK Award"@businessline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  34. Editor, D2C (২০১৯-০২-১২)। "ICFAI B-school wins two prizes in an International Writing Contest -"Dare2Compete (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  35. "Past cases | John Molson MBA International Case Competition" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  36. Sridhar, G. Naga (২০১৬-০৫-২৬)। "ICFAI Business School authors win global case studies contest"@businessline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  37. Eds. (২০১৯)। China-Focused Cases Selected Winners of the CEIBS Global Case Contest। Springer। পৃষ্ঠা 57 and 137। আইএসবিএন 978-981-13-2706-3 
  38. Bureau, Our (২০১৪-০৩-০৫)। "ICFAI study wins Case Award"@businessline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  39. BLoC, Team (২০১৯-০৬-০৭)। "ICFAI B-school wins two prestigious awards"@businessline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  40. Bureau, Our (২০১৬-০৩-০২)। "Faculty from ICFAI Business School, Hyderabad, win Case Centre awards"@businessline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  41. "Featured case: Turbulence on the Tarmac"thecasecentre.org (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৬-১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-২৭ 
  42. BizEd Magazine (২০১৯-০৪-২২)। "Case Centre Announces 2019 Case Writing Winners"bized.aacsb.edu। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-২৭ 
  43. Telangana Today (২০১৮-০৩-২৬)। "IBS professor in top faculty"Telangana Today (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯