দূরদৃষ্টি (ইংরেজি: hypermetropia/hyperopia) বা দীর্ঘদৃষ্টি হলো চোখের একটি অবস্থা যেখানে দূরের বস্তু পরিষ্কারভাবে দেখা যায় কিন্তু কাছের বস্তু ঝাপসা লাগে। অক্ষিকাচের উপযোজন ক্ষমতা কমে যাওয়ায় আগত আলোকরশ্মি অক্ষিপট বা রেটিনায় আপতিত না হয়ে এর পশ্চাতে হয়।[৬] তরুণদের ক্ষেত্রে হালকা দূরদৃষ্টির সমস্যা থাকলে অক্ষিকাচের উপযোজন ক্ষমতার কারণে তাদের দৃষ্টিশক্তিতে কোনো ত্রুটি প্রতীয়মান হয় না।[২] তবে দীর্ঘক্ষণ পড়লে চোখে টান অনুভব হতে পারে।[২] দূরের বস্তু স্পষ্ট দেখা গেলেও কাছের বস্তু ঝাপসা লাগে তাই এটি দূরদৃষ্টি নামে পরিচিত।[৭] তবে দূরদৃষ্টির সমস্যা প্রকট হলে দূর ও নিকট উভয় বস্তু দেখতেই সমস্যা হবে।[২] এছাড়া অভিযোজনজনিত ত্রুটি, দ্বিনেত্রজনিত ত্রুটি, অ্যামব্লিয়োপিয়া, তির্যক দৃষ্টি প্রভৃতি সমস্যাও হতে পারে।[৩] নবজাতকদের দূরদৃষ্টি থাকে, তবে বয়স বৃদ্ধির সাথে সাথে এটি কমে যায়।[৬]

দূরদৃষ্টি
প্রতিশব্দদীর্ঘদৃষ্টি, হাইপারমেট্রোপিয়া, হাইপার‌ওপিয়া[১]
Hypermetropia color.svg
দূরদৃষ্টি, লেন্সব্যতীত (শীর্ষে) ও লেন্সসহ (নিচে)।
বিশেষত্বচক্ষুবিজ্ঞান, দৃষ্টিমিতি
লক্ষণকাছের বস্তু ঝাপসা দেখা, দূরের ও কাছের বস্তু ঝাপসা, চোখে টান অনুভব[২]
জটিলতাঅভিযোজনজনিত সমস্যা, দ্বিনেত্র দৃষ্টিজনিত সমস্যা, অ্যামব্লিয়োপিয়া, তির্যক দৃষ্টি।[৩]
কারণঅক্ষিগোলকের অক্ষীয় দৈর্ঘ্য কমে হওয়া, অক্ষিকাচ অথবা অচ্ছোদপটল বা কর্নিয়া অপেক্ষাকৃত সমতল হওয়া, আফেকিয়া বা অক্ষিকাচের অনুপস্থিতি।[২]
ঝুঁকির কারণবয়োবৃদ্ধি হওয়া, বংশীয়[২]
রোগনির্ণয়ের পদ্ধতিচক্ষু পরীক্ষা
পার্থক্যমূলক রোগনির্ণয়অ্যামব্লিয়োপিয়া, রেট্রোবালবার অপটিক নিউরোপ্যাথি, রেটিনাইটিস পিগমেন্টোসা[৪]
চিকিৎসাচশমা, কন্ট্যাক্ট লেন্স, প্রতিসরণমূলক অস্ত্রোপচার, চক্ষু মধ্যস্থিত লেন্স স্থাপন[২]
সংঘটনের হার~৭.৫% (যুক্তরাষ্ট্র)[৫]

দীর্ঘদৃষ্টির অনেক কারণ রয়েছে। এটি হতে পারে যখন অক্ষিগোলকের অক্ষীয় দৈর্ঘ্য বা ব্যাসার্ধ কমে যায় অথবা লেন্সের অভিসারী ক্ষমতা কমে যায় বা ফোকাস দূরত্ব বেড়ে যায় বা লেন্স বা কর্নিয়া স্বাভাবিকের তুলনায় সমতল হয়।[২] অন্যান্য কারণের মধ্যে রয়েছে অক্ষিকাচের প্রতিসরণাঙ্ক, অক্ষিকাচের অবস্থানের পরিবর্তন অথবা অক্ষিকাচের অনুপস্থিতি।[২] ঝুঁকিপূর্ণ বিষয়গুলোর মধ্যে রয়েছে এই রোগের পারিবারিক ইতিহাস, বহুমূত্র, কিছু ওষুধ ও চোখের আশে পাশে অর্বুদ বা টিউমার হওয়া।[৪][৫] এটি চোখের একধরনের প্রতিসরণজনিত দৃষ্টিত্রুটি।[৫] চক্ষু পরীক্ষার মাধ্যমে রোগ নির্ণয় করা যায়।[৫]

চশমা, কন্ট্যাক্ট লেন্স অথবা কর্নিয়ার শল্যচিকিৎসার মাধ্যমে চিকিৎসা করা যায়।[২] চশমা ব্যবহার করা অপেক্ষাকৃত সহজ তবে কন্ট্যাক্ট লেন্স প্রশস্ততর দৃষ্টিক্ষেত্র প্রদান করে।[২] শল্যচিকিৎসার মাধ্যমে আকৃতির পরিবর্তন করা হয়।[৫] প্রাথমিকভাবে অল্পবয়সি শিশুদের ক্ষেত্রে এই সমস্যা থাকে, ৬ বছর বয়সে ৮% ও ১৫ বছর বয়সে ১%।[৮] তারপর ৪০ বছর বয়সের পরে এই সমস্যা আবারও দেখা দেয় যা চালশে নামে পরিচিত। প্রায় অর্ধেক ব্যক্তিই এই সমস্যায় আক্রান্ত থাকে।[৪] আফেকিয়া বা অক্ষিকাচ না থাকার কারণে হাইপারমেট্রোপিয়া হলে ইন্ট্রা‌অকুলার লেন্স স্থাপন করতে হয়।[২] অন্যান্য দৃষ্টিত্রুটিগুলো হলো নিকটদৃষ্টি, বিষমদৃষ্টিচালশে[৯]

লক্ষণসমূহসম্পাদনা

তরুণদের ক্ষেত্রে মৃদু দূরদৃষ্টি কোনো সমস্যা সৃষ্টি করে না।[২] দূরদৃষ্টির লক্ষণগুলো হলো ঝাপসা দেখা, মাথাব্যথা, চোখে চাপ অনুভব, চোখের ক্লান্তি।[২] সবচেয়ে বেশি যে সমস্যাটি হয় তা হলো চোখে চাপ বা টান অনুভব। দ্বিনেত্র দৃষ্টিও গভীরতা উপলব্ধিতেও সমস্যা হতে পারে।[১]

জটিলতাসম্পাদনা

দূরদৃষ্টির কিছু বিরল জটিলতা রয়েছে, যেমন, তির্যক দৃষ্টি ও অ্যামব্লিয়োপিয়া। অল্প বয়সে তীব্র দূরদৃষ্টির কারণে অতিরিক্ত ফোকাস করার ফলে শিশুদের দ্বিনেত্র দৃষ্টির সমস্যা দেখা দিতে পারে।[১০] অক্ষিগোলকের ব্যাসার্ধ কমে যাওয়ার কারণে সৃষ্ট দূরদৃষ্টির ফলে গ্লুকোমার ঝুঁকি বাড়ে, তাই, সকল দূরদৃষ্টিসম্পন্ন ব্যক্তিদের নিয়মিতভাবে চক্ষুপরীক্ষা করানো উচিত।[১১]

কারণসম্পাদনা

হাইপারমেট্রোপিয়া বা দূরদৃষ্টির সবচেয়ে বেশি প্রাপ্ত ধরনটি হলো সরল দূরদৃষ্টি, যা অক্ষিগোলকের গঠনের স্বাভাবিক জৈবিক বৈচিত্র‍্যতার কারণে হয়ে থাকে।[২] নিদানিকভাবে, দূরদৃষ্টির কারণগুলোকে নিম্নলিখিতভাবে ভাগ করা যেতে পারে:

  • অক্ষীয়: অক্ষিগোলকের অক্ষীয় দৈর্ঘ্য বা ব্যাসার্ধ অনেক ছোট হলে অক্ষীয় দূরদৃষ্টি হয়। ব্যাসার্ধ ১ মি.মি. কম হলে ৩ ডাই‌অপ্টার হাইপারমেট্রোপিয়া হয়।[২] অক্ষীয় দূরদৃষ্টি ঘটায় এমন একটি রোগ হলো ন্যানোফথালমস বা খর্বাকৃতির চোখ বা বামন চোখ।[১১]
  • বক্রতাজনিত: লেন্স বা কর্নিয়ার বক্রতা স্বাভাবিকের তুলনায় বেশি সমতল বা চ্যাপটা হলে দূরদৃষ্টি হয়। বক্রতার ব্যাসার্ধ ১ মি.মি. বৃদ্ধি পেলে ৬ ডাই‌অপ্টার হাইপারমেট্রোপিয়া হয়।[২] মাইক্রোকর্নিয়া ও কর্নিয়া প্ল্যানা রোগে কর্নিয়া চ্যাপটা হয়।[১১]
  • প্রতিসরণাঙ্ক: বয়োবৃদ্ধির ফলে প্রতিসরণাঙ্কের পরিবর্তনের কারণে দূরদৃষ্টি হয়। এর আরেকটি কারণ হলো ডায়াবেটিস।[২]
  • অবস্থানগত: লেন্সের পশ্চাৎ বিচ্যুতির কারণে অবস্থানগত দূরদৃষ্টি হয়।[২] আঘাতের ফলে এরকম হতে পারে।
  • ধারাবাহিক: শল্যচিকিৎসার মাধ্যমে ক্ষীণদৃষ্টির অতি সংশোধন বা চোখের ছানির কম সংশোধনের ফলে ধারাবাহিক দূরদৃষ্টি হয়।[২]
  • ফাংশনাল: উপযোজন ক্ষমতা নষ্ট হয়ে গেলে ফাংশনাল হাইপারমেট্রোপিয়া হয়।[২]
  • লেন্সের অনুপস্থিতি: জন্মগত বা অর্জিত আফেকিয়া অনেক উচ্চমাত্রার হাইপারমেট্রোপিয়া করতে পারে।[১২]

দূরদৃষ্টি প্রায়শই জন্ম থেকে থাকে, তবে শিশুদের চোখের লেন্স অনেক বেশি নমনীয় থাকায় সেটি পুষিয়ে নিতে পারে।[১৩] বিরল ক্ষেত্রে বহুমূত্ররেটিনার রক্তনালিতে সমস্যার কারণে দূরদৃষ্টি হতে পারে।[১]

রোগ নির্ণয়সম্পাদনা

 
বাম চোখে দূরদৃষ্টি, ডান চোখে স্বাভাবিক দৃষ্টি
 
মানব চোখের প্রস্থচ্ছেদ

দূরদৃষ্টি নির্ণয়ে রেটিনোস্কোপ বা স্বয়ংক্রিয় রিফ্র‍্যাক্টর-অবজেক্টিভ রিফ্র‍্যাকশন বা পরীক্ষা কাঠামোতে পরীক্ষা লেন্স অথবা ফরোপ্টার ব্যবহার করা হয়। অস্বাভাবিক গঠন ও শারীরবিদ্যা নির্ণয়ের জন্য স্লিট ল্যাম্প পরীক্ষা করা হয় যার মাধ্যমে অচ্ছোদপটল, নেত্রবর্ত্মকলা, সম্মুখ চেম্বার ও কনীনিকা বা আইরিস পরীক্ষা করা হয়।[১৪][১৫]

চিকিৎসাসম্পাদনা

দূরদৃষ্টির সবচেয়ে সহজ সমাধান হলো চশমা বা কন্ট্যাক্ট লেন্স ব্যবহার।[১৬][১৭] দূরদৃষ্টির জন্য উত্তল লেন্স ব্যবহার করা হয়।[১৮] এছাড়াও লেজারের সাহায্যে বিভিন্ন শল্যচিকিৎসা করেও দূরদৃষ্টির চিকিৎসা করা যায়।[১৮][১৯]

ব্যুৎপত্তিসম্পাদনা

hyperopia পারিভাষিক শব্দটি এসেছে গ্রিক শব্দ ὑπέρ (হাইপার) যার অর্থ অতিরিক্ত বা "বেশি" ও ὤψ (ওপ্‌স্) "দৃষ্টিশক্তি" (GEN ὠπός ōpos) থেকে।[২০]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Lowth, Mary। "Long Sight (Hypermetropia)"Patient। Patient Platform Limited। ২০১৬-০৩-০৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০২-২৬ 
  2. Khurana, AK (সেপ্টেম্বর ২০০৮)। "Errors of refraction and binocular optical defects"। Theory and practice of optics and refraction (2nd সংস্করণ)। Elsevier। পৃষ্ঠা 62–66। আইএসবিএন 978-81-312-1132-8 
  3. Moore, Bruce D.; Augsburger, Arol R.; Ciner, Elise B.; Cockrell, David A.; Fern, Karen D.; Harb, Elise (২০০৮)। "Optometric Clinical Practice Guideline: Care of the Patient with Hyperopia" (PDF)American Optometric Association। পৃষ্ঠা 2–3, 10–11। ২০০৬-০৭-১৭ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৬-০৬-১৮ 
  4. Kaiser, Peter K.; Friedman, Neil J.; II, Roberto Pineda (২০১৪)। The Massachusetts Eye and Ear Infirmary Illustrated Manual of Ophthalmology E-Book (ইংরেজি ভাষায়)। Elsevier Health Sciences। পৃষ্ঠা 541। আইএসবিএন 9780323225274। ২০১৭-০৯-০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  5. "Facts About Hyperopia"NEI (ইংরেজি ভাষায়)। জুলাই ২০১৬। ৮ জুলাই ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ জুলাই ২০১৭ 
  6. Ramjit, Sihota; Radhika, Tandon (১৫ জুলাই ২০১৫)। "Refractive errors of the eye"। Parsons' diseases of the eye (22nd সংস্করণ)। Elsevier। আইএসবিএন 978-81-312-3818-9 
  7. Pablo, Artal (২০১৭)। Handbook of visual optics-Fundamentals and eye optics and। CRC Press। আইএসবিএন 978-1-4822-3785-6 
  8. Castagno, VD; Fassa, AG; Carret, ML; Vilela, MA; Meucci, RD (২৩ ডিসেম্বর ২০১৪)। "Hyperopia: a meta-analysis of prevalence and a review of associated factors among school-aged children."BMC Ophthalmology14: 163। ডিওআই:10.1186/1471-2415-14-163পিএমআইডি 25539893পিএমসি 4391667  
  9. "Facts About Refractive Errors"National Eye Institute। অক্টোবর ২০১০। ২৮ জুলাই ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুলাই ২০১৬ 
  10. "Complications of long-sightedness"NHS Choices। National Health Service। ২০১৪-০৭-০৯। ২০১৬-০৩-০৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০২-২৬ 
  11. John F., Salmon (২০২০)। Kanski's clinical ophthalmology: a systematic approach (9th সংস্করণ)। Edinburgh: Elsevier। আইএসবিএন 978-0-7020-7713-5ওসিএলসি 1131846767 
  12. Khurana, AK (২০১৫)। "Errors of refraction and accommodation"। Comprehensive ophthalmology (6th সংস্করণ)। Jaypee, The Health Sciences Publisher। পৃষ্ঠা 37–38। আইএসবিএন 978-93-86056-59-7 
  13. "Normal, near-sightedness, and far-sightedness"MedlinePlus Medical Encyclopedia। ২০১৬-০৩-০৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০২-২৬ 
  14. "Farsightedness"MedlinePlus Medical Encyclopedia। ২০১৬-০২-২৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০২-২৬ 
  15. "Slit-lamp exam"MedlinePlus Medical Encyclopedia। ২০১৬-০৩-০৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০২-২৬ 
  16. Chou, Roger; Dana, Tracy; Bougatsos, Christina (২০১১-০২-০১)। "Introduction"Screening for Visual Impairment in Children Ages 1-5 Years: Systematic Review to Update the 2004 U.S. Preventive Services Task Force Recommendation (প্রতিবেদন)। Evidence Syntheses। 81। Rockville, MD: Agency for Healthcare Research and Quality। ২০১৭-০৯-০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা – PubMed Health-এর মাধ্যমে। 
  17. "Farsightedness (Hyperopia): Treatments"PubMed Health। U. S. National Library of Medicine। ২০১৭-০৯-০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০২-২৬ 
  18. "Treating long-sightedness"NHS Choices। National Health Service। ২০১৬-০৩-০৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০২-২৬ 
  19. Settas, George; Settas, Clare; Minos, Evangelos; Yeung, Ian Yl (২০১২-০১-০১)। "Photorefractive keratectomy (PRK) versus laser assisted in situ keratomileusis (LASIK) for hyperopia correction"Cochrane Database of Systematic Reviews6 (6): CD007112। আইএসএসএন 1469-493Xডিওআই:10.1002/14651858.CD007112.pub3পিএমআইডি 22696365পিএমসি 7388917  |pmc= এর মান পরীক্ষা করুন (সাহায্য)lay summaryPubMed Health (২০১২-০২-১৭)। 
  20. "hyperopia"Online Etymology Dictionary। Douglas Harper। ২০১৭-০৯-০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা

শ্রেণীবিন্যাস
বহিঃস্থ তথ্যসংস্থান