দিল্লি বিমানবন্দর মেট্রো এক্সপ্রেস

দিল্লি মেট্রো ব্যবস্থার রেলপথ

এয়ারপোর্ট এক্সপ্রেস লাইন বা দিল্লি বিমানবন্দর মেট্রো এক্সপ্রেস হল দিল্লি মেট্রোর একটি রেলপথ, যেটি নতুন দিল্লি স্টেশন থেকে দ্বারকা সেক্টর ২১ পর্যন্ত বিস্তৃত এবং এটি ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরকে সংযুক্ত করে। চারটি পূর্বনির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে কাজ শেষ করতে ব্যর্থ হওয়ার পরে ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১১ সালে[৩] অরেঞ্জ লাইন নামে পরিচিত এই লাইনটি খোলা হয়।[৪] এটি ₹৫৭ বিলিয়ন খরচে নির্মিত হয়,[৫] যার মধ্যে রিলায়েন্স ইনফ্রা ₹২৮.৮৫ বিলিয়ন (ইউ$৫৮০ মিলিয়ন) প্রদান করে,[৬] রাজস্ব অংশ মডেলে।[৫][৭]

     অরেঞ্জ লাইন এয়ারপোর্ট এক্সপ্রেস
DelhiMetro AirportExpress 20111214.jpg
সংক্ষিপ্ত বিবরণ
ধরনবিমানবন্দর এক্সপ্রেস ট্রেন
সিস্টেমদ্রুতগামী গণপরিবহন ব্যবস্থা / মেট্রো
অবস্থাপরিচালনাগত
অঞ্চলনতুন দিল্লি ভারত
বিরতিস্থলনতুন দিল্লি স্টেশন
দ্বারকা সেক্টর ২১
স্টেশনসমূহ[১]
দৈনিক যাত্রীসংখ্যা৫০,০০০ [২]
ক্রিয়াকলাপ
উদ্বোধন২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১১
বন্ধ৭ জুলাই ২০১২ (পুনরায় খোলা: ২২ জানুয়ারী ২০১৩)
মালিকরিলায়েন্স ইনফ্রাস্ট্রাকচার এবং সিএএফ
পরিচালকদিল্লি বিমানবন্দর মেট্রো এক্সপ্রেস প্রাঃ লিমিটেড
বৈশিষ্ট্যভূমি, ভূগর্ভস্থ, এবং উত্তলিত
রোলিং স্টকের ধরনসিএএফ
প্রযুক্তিগত
রেলপথের দৈর্ঘ্য২২.৭ কিমি (১৪.১ মা)[১]
ট্র্যাক গেজ১,৪৩৫ মিমি (৪ ফুট ৮ ১/২ ইঞ্চি) স্ট্যান্ডার্ড গেজ
চালন গতি১৩২ কিলোমিটার/ঘণ্টা (সর্বোচ্চ গতি)
বিদ্যুতায়ন২৫ কেভি, ৫০ হার্জ এসি ওভারহেড লাইন মাধ্যমে

লাইনের মোট দৈর্ঘ্য ২২.৭ কিলোমিটার,[৮] যার মধ্যে ১৫.৭ কিলোমিটার ভূগর্ভস্থ[৯] এবং বৌদ্ধ জয়ন্তী পার্ক থেকে মহিপালপুর পর্যন্ত ৭ কিমি পথ উত্তোলিত।[১০] ট্রেনগুলি দিল্লি মেট্রোর বাকি অংশে ৮০ কিলোমিটার/ঘণ্টা পর্যন্ত গতিতে চলাচল করলেও, এই লাইনের মেট্রো ট্রেন ১৩৫ কিলোমিটার/ঘণ্টার গতিতে ভ্রমণ করতে সক্ষম। এই রেলপথে নয়াদিল্লি থেকে বিমানবন্দরের টার্মিনাল ২, টি২ এবং টার্মিনাল ৩, টি৩ পর্যন্ত ভ্রমণের সময় ১৯ মিনিট।[৫]

প্রযুক্তিগত সমস্যাগুলির কারণে ৭ জুলাই ২০১২ সাল থেকে ২২ জানুয়ারী ২০১৩ সাল পর্যন্ত পরিষেবা স্থগিত করা হয়।[১১] পুনরায় চালু হওয়ার পর, ট্রেনের গতি কেবল ৫০ কিলোমিটার/ঘণ্টায় করা হয়, ফলে বিমানবন্দর থেকে নতুন দিল্লি স্টেশন পর্যন্ত যাত্রার সময়টি ৪০ মিনিট পর্যন্ত বৃদ্ধি পায়।[১১] ২৭ জুন ২০১৩ তারিখে রিলায়েন্স ইনফ্রাস্ট্রাকচার লিমিটেড ডিএমআরসি-কে জানায় যে তারা ৩০ জুন ২০১৩ সালের পর থেকে লাইন পরিচালনা করতে পারবে না। এর পর, ১ জুলাই ২০১৩ সাল থেকে দিল্লি বিমানবন্দর মেট্রো লাইন পরিচালনা করার জন্য ১০০ জন কর্মকর্তা ও রক্ষণাবেক্ষণ দল নিয়োগ করে ডিএমআরসি।[১২] ২০১৪ সালের মাঝামাঝি সময়ে ট্রেন ৮০ কিলোমিটার/ঘণ্টা গতিতে ডিএমআরসি পুনরায় চালু করে। ২০১৫ সালের জানুয়ারিতে, ডিএমআরসি জানায় যে বিমানবন্দর মেট্রো গত জুলাই মাসে ৪০% পর্যন্ত ভাড়া কমানোর পরে তার যাত্রী ৩০% বৃদ্ধি পেয়েছে।[১৩]

ইতিহাসসম্পাদনা

লাইন নির্মাণের জন্য প্রথম দরপত্রগুলি ২০০৭ সালের সেপ্টেম্বরে প্রদান করা হয়।[১৪] ২৩ জানুয়ারী ২০০৮, ডিএমআরসি রিলায়েন্স এনার্জি-সিএএফ কনসোর্টিয়ামকে ৩০ বছরের নির্মাণ-পরিচালনা-স্থানান্তর (বিল্ড-অপারেট-ট্রান্সফার) পিপিপি চুক্তি প্রদান করে।[১৫] তবে, ডিএমআরসি নির্মাণ ব্যয়ের অর্ধেক অর্থ প্রদান করে এবং সুড়ঙ্গ নির্মাণ ও বাস্তু কাজ সম্পাদন করে।[১৫]

বিমানবন্দর এক্সপ্রেস লাইনের উচ্চতর বিভাগটি আটটি ব্যস্ত সড়কের উপরে নির্মিত হয়েছে, রিং রোড, জাতীয় সড়ক ৮, রিজ রোড এবং সরদার প্যাটেল মার্গ'সহ সেগুলি ভারী যানবাহন বহন করে।[১৬][১৭]

মূলত ২০১১ সালের কমনওয়েলথ গেমসের সময় ঠিক ৩০ আগস্ট ২০১০ সালে মধ্যে রেলপথটি খোলার কথা ছিল, অবশেষে রেলপথটি ফেব্রুয়ারি ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১১ সালে দুপুর ২ টায় খোলা হয়,[৩] আগের চারটি নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে রেলপথটি চালু কররা ক্ষেত্রে ব্যর্থ হওয়ার পরে।[১৮] ডিএমআরসি ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে রিলায়েন্স ইনফ্রাকে প্রতিদিন ₹৩৭.৫ লক্ষ এবং ৩১ অক্টোবর থেকে প্রতিদিন ₹৭৫ লক্ষ জরিমানা করেছে বারবার সময়সীমার মধ্যে রেলপথটি চালু না করার জন্য।[১৯] এরোসিটি এবং ধৌলা কুয়ান স্টেশন ১৫ আগস্ট ২০১১ সালে খোলা হয়।

গার্ডারগুলির ফাটল, ট্র্যাকগুলিকে সমর্থনকারী লোহা বিমের ত্রুটি; ট্রেন সমর্থনকারী বিয়ারিংগুলির স্থানচ্যুত হওয়া; সুড়ঙ্গে ত্রুটিযুক্ত ট্র্যাক এবং জলাবদ্ধতাসহ[২০] একাধিক প্রযুক্তিগত সমস্যার কারণে।[২১] নগর উন্নয়ন মন্ত্রক তৎক্ষণাৎ প্রকাশ করে, যে ভূগর্ভস্থ অংশের বেশ কয়েকটি ক্লিপ মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং সমস্যাটি সংশোধন করতে কমপক্ষে ৫ মাস সময় লাগবে।[২২] দিল্লি মেট্রো এবং রিলায়েন্স ইনফ্রাস্ট্রাকচার দলের যৌথ পরিদর্শন থেকে প্রমাণিত হয়েছে যে ৫৪০ টি বিয়ারিংয়ের সংশোধন প্রয়োজন এবং কিছু গার্ডার, যেগুলিতে ফাটল দেখা গেছে তাও পুনরায় সংশোধন করা দরকার।[২৩]

লাইনটি ২৩ জানুয়ারী ২০১৩ পুনরায় খোলা হয়, ৫০ কিলোমিটার/ঘণ্টা গতিবেগের চলমান ট্রেনের সঙ্গে। ডিএমআরসি এবং অন্যান্য বিশেষজ্ঞরা পরিদর্শন করার পরে ধীরে ধীরে গতি বাড়ানো হয়। গতি হ্রাসের কারণে নতুন দিল্লি মেট্রো স্টেশন থেকে বিমানবন্দরে পৌছাতে প্রায় ৪০-৫০ মিনিট সময় প্রয়োজন হত। ভবিষ্যতে যদি নিরাপদ পরিচালনা ব্যবস্থা নিশ্চিত করা যায় তবে ১০৫ কিমি/ঘণ্টা পূর্বের গতি পুনরুদ্ধার করা সম্ভব।

বর্তমানে লাইনটি ৮০ কিমি/ঘণ্টা গতির ট্রেনগুলি নতুন দিল্লি স্টেশন থেকে বিমানবন্দর স্টেশন পর্যন্ত ১৯ মিনিটের যাত্রা সম্পূর্ণ করে।

মানচিত্রসম্পাদনা

পরিচালনাসম্পাদনা

যদিও প্রাথমিকভাবে ১০ মিনিটের অন্তঃর দিনে ২৪ ঘণ্টা ট্রেন চালানোর পরিকল্পনা করা হয়, কিন্তু ট্রেন পরিষেবাগুলি বর্তমানে সকাল ৪:৪৫ টা থেকে রাত ১১:৩০ টা[২৪] পর্যন্ত ১৫ মিনিটের অন্তঃর চলাচল করে।

যদিও ২০১১ সালের মধ্যে দৈনিক ৪২,০০০ লোক বহন করবে বলে আশা করা হয় ডিএমআরসি দ্বারা প্রস্তুত প্রকল্পের প্রতিবেদন অনুসারে, তবে, প্রকৃত যাত্রী ছিল প্রায় ২০,০০০ জনের কাছাকাছি।[২৫] সাম্প্রতিক বছরগুলিতে ডিএমআরসি যাত্রী বৃদ্ধির জন্য বেশ কয়েকটি উদ্যোগ গ্রহণ এবং ভাড়া হ্রাসের কারণে প্রতিদিন যাত্রী সংখ্যা ৫০,০০০ ছাড়িয়েছে।[২]

ভাড়াসম্পাদনা

নতুন দিল্লি স্টেশন থেকে আইজিআই বিমানবন্দরে যাতায়াতের জন্য ₹৫০ (৭০¢ মার্কিন) এবং নতুন দিল্লি থেকে দ্বারকা সেক্টর ২১-এ যাওয়ার জন্য ₹৫০ (৭০¢ মার্কিন)[২৬] ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে।[৮] নতুন দিল্লি থেকে আইজিআই বিমানবন্দরে ভ্রমণের জন্য যথাক্রমে ₹১,৩০০ (১৮ মার্কিন ডলার) এবং ₹১,৬০০ (২২ মার্কিন ডলার) দামের ৩০ এবং ৪৫ টি ভ্রমণের জন্যও পাস রয়েছে। এটিতে প্রতি বার ভ্রমণের ব্যয় যথাক্রমে ₹৪৩.৩৩ (৬১¢ মার্কিন ডলার) এবং ৩৫.৫৫ ডলার (৫০¢ মার্কিন ডলার) এবং এটি এক ক্যালেন্ডার মাসের জন্য বৈধ। বিভিন্ন গন্তব্যে যাতায়াতের সমন্বয়ের জন্য এই জাতীয় অন্যান্য পাস রয়েছে। এছাড়াও সংরক্ষিত মান কার্ডগুলি প্রদান করা হয়, যা সকল যাতায়াতের ভাড়ায় ১০% ছাড় প্রদান করে। বর্তমান বিমানবন্দর এক্সপ্রেসের ভাড়া বিমানবন্দরে পৌঁছনোর জন্য যাতায়াতের অন্য কোনও ব্যবস্থার তুলনায় সস্তা।[২৭]

অবকাঠামোসম্পাদনা

সিমেন্স গতিশীলতা ব্যবস্থা সংকেত, পাওয়ার ট্রান্সমিশন এবং লাগেজ পরিচালনা ব্যবস্থা সরবরাহ করে, যাতে প্রতি ঘণ্টায় ১,২০০ জন যাত্রী'সহ নতুন দিল্লি রেলওয়ে স্টেশন এবং শিবাজি স্টেডিয়ামে যাত্রীদের ব্যাগ পরীক্ষা করা যায়।[২৮][২৯] কমনওয়েলথ গেমসের জন্য ২০১০ সালের মধ্যে €৩৪ মিলিয়ন অর্থ মূল্যের প্রকল্পটি শেষ হওয়ার কথা ছিল, তবে এটি নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে সম্পূর্ণ করা সম্ভব হয়নি। অ্যালকাটেল এই লাইনের জন্য যোগাযোগ ব্যবস্থা সরবরাহ করছে।[৬] টিকিট মেশিন সরবরাহ করছে ইন্দ্র সিস্টেমাস। ফ্যাভলি প্ল্যাটফর্ম স্ক্রিন দরজা সরবরাহ করেছে। ব্লুস্টার এবং হানিওয়েল স্টেশন পরিচালনা ব্যবস্থার (এসএমএস) জন্য নিয়ন্ত্রণ এবং স্বয়ংক্রিয়তা সরবরাহকারী। ব্লুস্টার মূল বিএমএস ব্যবস্থার সরবরাহকারী।

সুরক্ষা, রক্ষণাবেক্ষণ এবং ট্র্যাফিক নিয়ন্ত্রণ বাড়ানোর জন্য ভৌগোলিক তথ্য ব্যবস্থাতে মানচিত্র করা এই লাইনটি দেশের প্রথম লাইন এবং এই ব্যবস্থাটি দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে জরুরি পরিষেবাগুলি একত্রিত করতে সহায়তা করবে।[৩০]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Delhi Metro's airport route to get international look with sleek blue parapet"NetIndian। ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৩-০২ 
  2. "Metro's airport express line ridership crosses 50,000"। ১৩ আগস্ট ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৯-৩০ 
  3. "Airport to be 20 minutes from Connaught Place from Wednesday"The Hindu। Chennai, India। ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১১। 
  4. Lalchandani, Neha (২৬ অক্টোবর ২০১০)। "Metro's IGI line delayed, will open by mid-Nov"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ১ নভেম্বর ২০১০ 
  5. Delhi Airport Express rail link opens. Railway Gazette (24 February 2011). Retrieved on 2011-10-24.
  6. "Delhi Airport line contracts finalised" (PDF)। caf.net। ১৮ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ অক্টোবর ২০১৮ 
  7. "Rel Infra raises funds for Delhi Airport Express railway line"The Financial Express। ২৫ মার্চ ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুন ২০১০ 
  8. "Airport line handed over to Reliance Infra"Indian Express। ২০ মে ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুন ২০১০ 
  9. "Delhi Metro's airport route to get international look with sleek blue parapet"। netindian। ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুন ২০১০ 
  10. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; air2 নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  11. Delhi Airport Metro Express back on track ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৫ মে ২০১৩ তারিখে. Financialexpress.com. Retrieved on 2013-08-20.
  12. "Delhi Metro takes over operations of Airport Express Line"। Chennai, India: www.thehindu.com। ১ জুলাই ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুলাই ২০১৩ 
  13. "Airport Metro sees 30% rise in ridership after fare reduction"Business Standard। ১ জানু ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জানুয়ারি ২০১৫ 
  14. HCC-led JV bags Rs 774.64 cr Delhi Metro order – Economic Times. Economictimes.indiatimes.com (24 September 2007). Retrieved on 2011-10-24.
  15. "Delhi awards airport PPP" (PDF)। caf.es। ৭ এপ্রিল ২০১০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ জুন ২০১০ 
  16. "Delhi Metro to reach highest point in Dhaula Kuan"The Times Of India। ৮ জুন ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুন ২০১০ 
  17. "The passenger operation on the Airport Express line starts on the 23rd of February, 2011"Delhimetrorail.com। সংগ্রহের তারিখ ২৪ অক্টোবর ২০১১ 
  18. Airport line clears fire hurdle, now for safety nod. Indianexpress.com (30 November 2010). Retrieved on 2011-10-24.
  19. Airport line clears fire hurdle, now for safety nod - Indian Express
  20. Business Line : Industry & Economy / Logistics : Delhi Airport Metro Express to resume services in two months: Govt
  21. Down To Earth: High-speed derailment
  22. "Airport Metro: New problems found, will take 5 months to fix"। ১৭ জুলাই ২০১২। 
  23. Banerjee, Rumu (১৭ জুলাই ২০১২)। "Airport Metro Express line flaws worse than thought"The Times Of India 
  24. Schedule wef Feb 2012 ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০ জুন ২০১২ তারিখে. Retrieved on 2012-06-17.
  25. "Delhi Metro Airport Express Line, New Delhi Railway Station to IGI Airport Metro"। ১ ডিসেম্বর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ ডিসেম্বর ২০১১ 
  26. "Delhi Airport Metro fares hiked"। ৬ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ এপ্রিল ২০২০ 
  27. Reliance Metro ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৮ মার্চ ২০১৪ তারিখে. Delhiairportexpress.com. Retrieved on 2011-10-24.
  28. "Airport line on track for Sept opening"Indian Express। ১৭ মে ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুন ২০১০ 
  29. "Siemens to equip new metro link to New Delhi airport"। Transport weekly। ১৫ মে ২০০৯। 
  30. "Metro train to Delhi airport soon, tests to start"The Times of India। ২৭ এপ্রিল ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুন ২০১০ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা