দাউদ পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ

(দাউদ পাবলিক স্কুল থেকে পুনর্নির্দেশিত)

দাউদ পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ যশোর ক্যান্টনমেন্টে অবস্থিত বাংলাদেশ সরকারের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সামরিক ভূমি ও সেনানিবাস অধিদপ্তর এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনী কর্তৃক পরিচালিত বাংলাদেশের অন্যতম সুনামধন্য একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।[১] পাকিস্তান শাসনামলে প্রখ্যাত ব্যাবসায়ী দাউদ পরিবার এই বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করেন ১৯৫৯ সালের ৩ সেপ্টেম্বর। বর্তমানে এই বিদ্যালয়ে প্রথম শ্রেনী থেকে দ্ধাদশ শ্রেনী পর্যন্ত পাঠদান করা হয়। সম্প্রতি(১৫/৭/২০১৫) এখানে একাদশ ও দ্বাদশশ্রেনী পাঠদান শুরু করা হয়েছে। সামরিক কর্মকর্তাদের ছেলেমেয়েদের লেখাপড়ার  জন্য বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হলেও এখানে বেসামরিক ব্যক্তিবর্গের ছেলেমেয়েদের লেখাপড়ার জন্যও  সুযোগ রয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি পরিচালনার জন্য প্রতিষ্ঠানের প্রধান পৃষ্টপোষক বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মেজর.জেনারেল (এরিয়া কমান্ডার)পদবী এর হয়ে থাকেন এবং প্রতিষ্ঠানের সভাপতি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর বিগ্রেডিয়ার জেনারেল পদবী এর হয়ে থাকেন।অত্র শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটি প্রতিবারই বোর্ড ফলাফলে তাদের শীর্ষ একটি অবস্থান ধরে রাখতে সক্ষম হয়।

দাউদ পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ
দাউদ লোগো.PNG
অবস্থান

তথ্য
ধরনবেসরকারী
নীতিবাক্যউন্নত মম শির
প্রতিষ্ঠাকালসেপ্টেম্বর ৩, ১৯৫৯
অধ্যক্ষএস.এম নজরুল ইসলাম
শ্রেণী1-12
শিক্ষার্থী সংখ্যাপ্রায় 1000 জন
শিক্ষায়তন১৮.৭১ একর
ওয়েবসাইট

ক্যাম্পাস সম্পাদনা

দাউদ পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ যশোর ক্যান্টনমেন্টে অবস্থিত। ১৮.৭১ একর ভূমির উপর বিদ্যালয়টি অবস্থিত। এ বিদ্যালয়ে রয়েছে ৫০০ আসন বিশিষ্ট একটি অডিটোরিয়াম, আধুনিকমানের লাইব্রেরী, কম্পিউটার ল্যাব, বিভিন্ন বিষয়ের পরীক্ষাগার, ছয়টি খেলার মাঠ এবং ছাত্র-ছাত্রীদের পরিবহনের জন্য নিজস্ব ৪টি বাস সহ প্রথিষ্ঠানের মোট ১২ টি পরিবহন রয়েছে।প্রশাসনিককাজে ব্যবহারের জন্য ২টি মাইক্রোবাস রয়েছে।

 
দাউদ পাবলিক স্কুল ক্যাম্পাস

ইতিহাসসম্পাদনা

স্বাধীনতার পূর্বে এ প্রতিষ্ঠানটি ছিল একটি ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল এবং তৎকালীন পশ্চিম পাকিস্তানের বিভিন্ন পাবলিক স্কুলের সমমানের। তখন এখানে অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের সিলেবাস অনুসরণকরা হত।১৯৫৯ সালের প্রথম দিকে তৎকালীন ক্যান্টনমেন্ট একজিকিউটিভ অফিসার মহিউদ্দিন জিলানী উদ্যোগে মিস নাইটিংগেল, মিস র্যামবোল্ড, মিসেস ঊষা রবিনসন, মিঃ নেলসন ও প্রভা মজুমদারের সহযোগিতায় স্কুল তৈরীর প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়। স্কুলের জায়গা নির্ধারণ করা হয় দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে ব্যবহৃত এয়ার বেসের বিমান বন্দরে (বর্তমান পান্থপাড়া মানিক শাহ দরগার সামনে) ব্রিটিশের গুদামে। প্রথমে ১টি অফিসরুম ও ২টি ক্লাশরুম নিয়ে যাত্রা শুরু হয়। মেসার্স দাউদ গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজ কর্তৃক ১৯৫৯ সালের ৩ সেপ্টেম্বর সাড়ে ছয় লক্ষ টাকা ব্যয়ে বিদ্যালয়ের মূল ভবন নির্মিত হয় এবং  উক্ত প্রতিষ্ঠানের প্রধান দাতা দাউদ খানের নাম অনুসারে দাউদ পাবলিক স্কুল নামকরণ করা হয়। এর ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন তৎকালীন পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট জেনারেল মোহাম্মদ আয়ুব খান। ফাউন্ডার প্রিন্সিপাল হিসাবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন মিসকে এন র‌্যামবোল্ড।

ঐতিহাসিক ক্রমপঞ্জিঃ
  • ১৯৬১ সালের ১৭ জুন প্রথম ক্লাস শুরু হয়।
  • ১৯৬৪ সর্বপ্রথম ছাত্র ছাত্রীরা ম্যাট্রিক (এসএসসি) পরীক্ষায় অংশগ্রহম করে।
  • ১৯৬৯ ও ১৯৭০ সালে যশোর শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক যথাক্রমে একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণী অনুমোদন লাভ করে। তখন শুধুমাত্র মানবিক শাখা চালু ছিল।
  • ১৯৭৭ সালে বিজ্ঞানশাখা চালু হয়।
  • ১৯৬০ সাল থেকে রেড ও গ্রীণ নামে দুটি হাউস চালু করা হয়।
  • ১৯৭৩ সালে নজরুল ও মাইকেল এবং পরবর্তীতে স্থায়ীভাবে নজরুল, মাইকেল, শহীদুল্লাহ ও জসীমউদ্দিন এবং পরবর্তীতে স্থায়ীভাবে নজরুল, মাইকেল ও শহীদুল্লাহ নামে তিনটি হাউসে বিভক্ত করা হয়।বর্তমানে মাইকেল হাউসের নামকরণ করা হয়েছে মধুসূদন হাউস।
  • ১৯৮৩ সালে দাউদ পাবলিক স্কুল থেকে কলেজ সেকশন আলাদা হয়ে ক্যান্টনমেন্ট কলেজ নামে পৃথক একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসাবে আত্মপ্রকাশ করে।
  • ১৯৯৫ সালে অত্র স্কুলের নার্সারী ও কেজি শ্রেণী দুটি আলাদা হয়ে সেনানিবাসের অভ্যন্তরে পরশমনি কিন্ডার গার্ডেন (বর্তমানে যশোর ইন্টারন্যাশনাল স্কুল – JIS) নামে আলাদা একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়।

সহপাঠ্যক্রমসম্পাদনা

এই বিদ্যালয়টি প্রতিবছর বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা এবং বার্ষিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এর আয়োজন করে থাকে। এ ছাড়া প্রায়ই বিতর্ক প্রতিযোগিতা, রচনা প্রতিযোগিতা, হাতের লেখা প্রতিযোগিতা ইত্যাদি হয়ে থাকে।

তথ্য উৎসসম্পাদনা

  1. "Dawoodd Public School & College, Jessore"www.dpsc.edu.bd। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-০২