প্রধান মেনু খুলুন

তৃতীয় মুহাম্মদ শামসুদ্দিন

সুলতান তৃতীয় মুহাম্মদ শামসুদ্দিন ইস্কান্দার, সিএমজি, (ধিবেহী: ސުލްޠާން މުޙައްމަދު ޝަމްސުއްދީން; 20 ২০ অক্টোবর ১৮৭৯ - ১২ মার্চ ১৯৩৫), ইব্রাহিম নূরদ্দিন ও কাকাওজ ডন গোমারের সন্তান ছিলেন। তিনি মালদ্বীপের প্রথম সুলতান হিসেবে ৭ মে ১৮৯৩ থেকে এবং এরপর আবার ১৯০২ সাল থেকে দায়িত্ব পালন করেন।

তৃতীয় মুহাম্মদ শামসুদ্দিন ইস্কান্দর
ভূমি ও সমুদ্রের সুলতান, বারো-হাজার-দ্বীপের সুলতান, মালদ্বীপের সুলতান ।
চিত্র:তৃতীয় মুহাম্মদ শামসুদ্দিন.png
রাজত্বকালমালদ্বীপ: 1893
Maldives: 1902 – 2 October 1934
রাজ্যাভিষেক২৭ জুলাই ১৯০৫)
পূর্ণ নামসুলতান মুহাম্মদ শামস-উদ-দিন তৃতীয় ইস্কান্দর শ্রী Kula Sundara Kattiri বুওয়ানা মহা রাদুন ইবনে সুলতান ইব্রাহিম নূরউদ্দিনের ইস্কান্দর
জন্ম২০ অক্টোবর ১৮৭৯
মৃত্যু১২ মার্চ ১৯৪৫(বয়স ৭৬)
মৃত্যুস্থানমালি, মালদ্বীপের রাজধানী
সমাধিস্থলমালে শুক্রবার মসজিদ, ১২মার্চ ১৯৪৫
পূর্বসূরিMuhammad Imaaduddeen V (First reign)
Muhammad Imaaduddeen VI (Second reign)
উত্তরসূরিMuhammad Imaaduddeen VI (First reign)
Hassan Nooraddeen II (Second reign)
সন্তানাদিCrown Prince Hassan Izzuddine,

Princess Shaheema, Princess Shameema, Princess Thithi Goma Fulhu,

Princess Medhu Goma Fulhu
রাজবংশMuleege
রাজবংশহুরা
পিতাসুলতান ইব্রাহিম নূরউদ্দিন মালদ্বীপের
মাতাকাকাওজ ডন গোমার (সুলতান ইব্রাহীম নূরউদ্দিনের রানী)

যখন তার বয়স ১৪ বছর তখন তার বাবা সুলতান ইব্রাহিম নূরউদ্দিনের মৃত্যু হয়। তার পিতা সুলতান ইব্রাহিম নূরউদ্দিনের মৃত্যুর পর, মুহম্মাদ শামসুদ্দীন ইস্কান্দার সুলতান হিসেবে মনোনীত হন । তিনি তাঁর আট বছর বয়সী ।সিংহাসনে শামসুদ্দীনের উত্তরাধিকারের অংশ ছিল যে তিনি মহম্মদ দিদি রানা বদেরী কিলজিফানুকের মহান-ভাগ্নে ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর তিন জন সুলতান যারা কলম্বোতে সিওলন গভর্নরকে তাঁর বহিষ্কৃত মহান-ভ্রাতৃত্বের পক্ষে তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন।

শামসুদ্দীন ,মালদ্বীপের রাজধানী মালি থেকে তার বড় চাচাকে প্রধানমন্ত্রীর পদে ফিরে এসে পুনরায় কাজ শুরু করার জন্য চিঠি লিখেছিলেন। বর্তমানে হাজী ইমাদউদ্দিন, যিনি সুলতান নূরাদদ্দিনের ভাতিজা, তিনি ২ মাস পরে সিংহাসনে অধিষ্ঠিত হবেন এবং দেশ চালাবেন।

ইবরাহিম দিদি এবং মন্ত্রী সভার অন্য সদস্যরা (এক দশকে যেগুলা খারাপ তার থেকে বেরিয়ে আসার জন্য সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন) হাজী ইমাদউদ্দীনকে সুলতানের সিংহাসন দখল করার জন্য উৎসাহিত করেছিলেন যার কারণ হিসেবে তারা তার পিতৃপুরুষ সুলতান শামসুদ্দিনের ওপর মোহাম্মদ দিদির সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণকে তুচ্ছ করেন। এই আদেশ অনুযায়ী হাজী ইমাদউদ্দীনকে সিংহাসনে বসানো হয় এবং প্রধানমন্ত্রীর পদে ইব্রাহিম দিদি সহ সুলতান মুহম্মদ ইমাদউদ্দীন খানকে পদে অধিষ্ঠিত করেন।

সুলতান মুহম্মদ ইমাদউদ্দীন খানের সাম্প্রদায়িক সহিংসতার কারণে ১৯০২ সালে শান্তিপূর্ণ পুরুষ বিপ্লবের পর শামসুদ্দীন আবার ক্ষমতায় আসেন এবং পারস্যের রাষ্ট্রদূত আব্দুর রখমান খামি বের কন্যা মিশরীয় শরিফা হানিমকে বিয়ে করার উদ্দেশ্য রওনা হন।

তৃতীয় মুহম্মদ শামসুদ্দিন রাজবংশের রাজত্ব রাজ্য অভিষেক অনুষ্ঠান (মালদ্বীপে তলোয়ারের অনুষ্ঠান) অনুষ্ঠিত হয়। ২৭ শে জুলাই, ১৯০৫ সালের পূর্ব এমন জাকযমক পূর্ণ অনূষ্ঠান আর দেখা যায় নি।

১৯৩৪ খ্রিস্টাব্দের ২ অক্টোবর তাকে গ্রেফতার করা হয় এবং মুকুটের রাজকুমারী হেনভেই গান্ধুরু মানিপুলুকে ফুভামুল্লা সাথে বহিষ্কার করা হয়। মুকুট রাজকন্যা সেখানে মৃত্য বরন করেন কিন্তু পরে সুলতানকে রাজধানী মালের এটল ভিলিগলিতে আনা হয়। সুলতান মালে মুনেমা'এর বাসায় মারা যান।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা