তাওয়াং জেলা

অরুণাচল প্রদেশের জেলা

তাওয়াং জেলা (Pron: / tɑ: wæŋ বা təwæŋ /) হল ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের অরুণাচল প্রদেশ এর ১৬টি জেলার মধ্যে ক্ষুদ্রতম[২]। এটি ভারতের ৬৪০টি জেলার মধ্যে অষ্টম সর্বনিম্ন জনবহুল জেলা যার জনস্ংখ্যা ৪৯,৯৫৭জন[১]। ১৯৫১ সালে ভারতের চীনের তিব্বত দখল-এর পরে তিব্বত স্থাপনের পর গণপ্রজাতন্ত্রী চীন এবং তাইওয়ান উভয় রাষ্ট্র দ্বারা ভারত এর তাওয়াং অঞ্চল দাবি করা হয়েছে [৩][৪][৫]

তাওয়াং জেলা
অরুণাচল প্রদেশের জেলা
অরুণাচল প্রদেশে তাওয়াংয়ের অবস্থান
অরুণাচল প্রদেশে তাওয়াংয়ের অবস্থান
দেশভারত
রাজ্যঅরুণাচল প্রদেশ
সদরদপ্তরতাওয়াং
আয়তন
 • মোট২,০৮৫ বর্গকিমি (৮০৫ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট৪৯,৯৫৭[১]
জনতাত্ত্বিক
 • সাক্ষরতা৬০.৬%[১]
 • লিঙ্গানুপাত৭০১[১]
ওয়েবসাইট[tawang.nic.in দাপ্তরিক ওয়েবসাইট]

ইতিহাসসম্পাদনা

তাওয়াং অঞ্চলে মূলত মনপা উপজাতীয় মানুষদের বসবাস রয়েছে । ৫০০ খ্রিষ্টপূর্বাব্দ থেকে ৬০০ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত লোহমন বা মনিউল নামে পরিচিত রাজবংশ এই এলাকা শাসন করেছে বলে মনে করা হয়[৬]। পরে মনিউল রাজত্বটি প্রতিবেশী ভুটান এবং তিব্বতের নিয়ন্ত্রণে আসে।

তাওয়াং মঠটি ১৬৮১ সালে মেরাক লামা লোড্রে গ্যাতসো দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, পঞ্চম দালাই লামা, নুওয়াং লবসাঙ্গ গ্যাস্টো এর ইচ্ছা অনুযায়ী এবং এর একটি আকর্ষণীয় কিংবদন্তি রয়েছে যার নাম "চোসেন বাই হরস"। ষষ্ঠ দালাই লামা, সাংগাইং গ্যটসো, তাওয়াং-এ জন্মগ্রহণ করেন।

ভৌগোলিক অবস্থানসম্পাদনা

তাওয়াং জেলার আয়তন ২,১৭২ বর্গকিলোমিটার (৮৩৯ মা),.[৭]। দক্ষিণে তিব্বতের উত্তর-পশ্চিম সীমান্তে ২৭°৪৫' উত্তর অক্ষাংশ এবং ৯০°১৫' পূর্ব দ্রাঘিমাংশের কাছাকাছি অবস্থিত তাওয়াং। উচ্চতা ৬০০০ থেকে ২২,০০০ ফুট (৬,৭০০ মি) এর মধ্যে থাকে, এবং নিম্ন উচ্চতায় অবস্থিত অঞ্চলেই অধিবাসীদের পাওয়া যায়। পশ্চিম কামেং জেলার অংশবিশেষ নিয়ে তাওয়াং জেলা নির্মিত হয়েছিল, যা জেলাকে দক্ষিণ ও পূর্ব দিকে সীমাবদ্ধ করেছে। জেলার পশ্চিম সীমান্তে ভুটান এবং উত্তর সীমান্তে তিব্বত অবস্থিত। শীতকালে, তাওয়াং-এ ঘন ঘন ভারী তুষারপাত দেখা দেয় [৮]

 
Tawang Town with monastery in background.

প্রশাসনিক বিভাগসম্পাদনা

জেলাটি ৩টি সাবডিভিশনে বিভক্ত: তাওয়াং, লুমলা এবং জং। তাওয়াং উপ-বিভাগটি ২টি প্রশাসনিক বৃত্তে ভাগ করা হয়েছে: তাওয়াং এবং কিটপি। লুমলা সাব-ডিভিশন ৪টি প্রশাসনিক বৃত্তে বিভক্ত: বংখার, দুদুনঘার, লুমলা ও জিমিতং। জং সাব-ডিভিশন ৪টিপ্রশাসনিক বৃত্তে বিভক্ত: জং, মুকতা, থিংবু ও লোহ।

লোকসভা ও বিধানসভা কেন্দ্রসম্পাদনা

এই জেলায় অবস্থিত ৩টি অরুণাচল প্রদেশের বিধানসভা কেন্দ্র রয়েছে: লুমলা, তাওয়াং এবং মুক্তা। এই তিনটি বিধানসভাঈ অরুণাচল পশ্চিম লোকসভা কেন্দ্রের অংশ [৯]

 
তাওয়াং গেট প্রার্থনার পতাকা দ্বারা সজ্জিত

জনসংখ্যার উপাত্তসম্পাদনা

২০১১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী তাওয়াং জেলায় জনসংখ্যা ৪৯,৯৫৭ জন [১] যা কিনা প্রায় সেন্ট কিটস অ্যান্ড নেভিস-এর জনসংখ্যার সমান [১০]। জনসংখ্যার অনুযায়ী ভারতের ৬৪০ টি জেলার মধ্যে তাওয়াং-এর অবস্থান ৬৩৩ তম [১] স্থানে। জেলার জনঘনত্ব ২৩ জন প্রতি বর্গকিলোমিটার (৬০ জন/বর্গমাইল)[১]। ২০০১-১১ এর দশকে জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ছিল ২৮.৩৩%[১]। জেলার লিঙ্গানুপাত প্রতি ১০০০ জন পুরুষের জন্য ৭০১ জন নারী এবং স্বাক্ষরতার হার ৬০.৬১% .[১]। তাওয়াং শহরে ২0 হাজারেরও বেশি লোক বসবাস করে। প্রভাবশালী জাতিগত দলটি হচ্ছে মনপা, যারা জেলার সর্বমোট ১৬৩টি গ্রামের মধ্যেি বাস করে। এছাড়াও বিক্ষিপ্তভাবে বিভিন্ন অঞ্চলে তিব্বতি অধিবাসীও পাওয়া যায়। জেলার পশ্চিম এবং উত্তরদিকে বিক্ষিপ্ত সংখ্যায় টাকপা জনজাতি ভুক্ত অধিবাসীদের পাওয়া যায়[১১][১২][১৩]। জেলার বেশিরভাগ অধিবাসী, যার মধ্যে রয়েছে মনপা, তাকপা এবং তিব্বতীয়রা, মূলত বৌদ্ধ ধর্মের অনুসারী। প্রাক-বৌদ্ধ যুগের বোন এবং শামমানিজম-এর প্রভাবও স্পষ্ট। প্রতি বছর লাসার, চসকর, এবং টরগায অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। ডাঙ্গুয়ুর টর্জি এর প্রতি তিন বছরেও পালিত হয়। ডাঙ্গুয়ুর এবং টরগা উভয়ই তাওয়াং মঠে উদযাপিত হয় স্থানীয় মানুষের বিপুল উদ্দীপনার সাথে ।

অর্থনীতিসম্পাদনা

অধিকাংশ উপজাতি একটি জীবিকার জন্য কৃষি নির্ভর করে। তৌঙ্গের ঠান্ডা জলবায়ুর কারণে চাষীরা ইয়াক ও মেষের জন্ম দেয়, যদিও নিম্ন উচ্চতায় ফসল লাগানো হয়।

পর্যটনসম্পাদনা

তাওয়াং মঠের উপস্থিতির নিমিত্ত তাওয়াং বর্তমানে একটি জনপ্রিয় পর্যটন গন্তব্য।এছাড়াও সেলা পাস ও জং জলপ্রপাত এখানকার অন্যতম পর্যটন আকর্ষণ-ের কেন্দ্র। সেলা পাস বছরের বেশিরভাগ সময় ধরে তুষার দিয়ে আচ্ছাদিত একটি অত্যন্ত খাড়াই পাস। জং জলপ্রপাত একটি বড় পর্যটক আকর্ষণ। তাওয়াং শহরে একটি হস্তশিল্প কেন্দ্র রয়েছে যা স্থানীয় হস্তশিল্পের ছোট-ছোট নিদর্শন গুলি প্রদর্শন ও বিক্রয় করে।

সংস্কৃতিসম্পাদনা

পরিবহণসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "District Census 2011"। Census2011.co.in। ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৯-৩০ 
  2. "Overview of Tawang" 
  3. "Behind Tawang row, two nations enslaved by history" 
  4. Maxwell, Neville (১৯৭০)। India's China War। New York: Pantheon। পৃষ্ঠা 65। আইএসবিএন 9780224618878 
  5. J Michael Cole (নভেম্বর ২৭, ২০১২)। "China's New Passport Sparks Controversy"। The Diplomat। সংগ্রহের তারিখ মে ২৫, ২০১৩ 
  6. Andrea Matles Savada (১৯৯৩)। Nepal and Bhutan: Country Studies। Federal Research Division, Library of Congress। পৃষ্ঠা 21আইএসবিএন 0-8444-0777-1 
  7. Srivastava, Dayawanti et al. (ed.) (২০১০)। "States and Union Territories: Arunachal Pradesh: Government"। India 2010: A Reference Annual (54th সংস্করণ)। New Delhi, India: Additional Director General, Publications Division, Ministry of Information and Broadcasting (India), Government of India। পৃষ্ঠা 1113আইএসবিএন 978-81-230-1617-7 
  8. Snowfall forces Advani to call off visit to Tawang
  9. "Assembly Constituencies allocation w.r.t District and Parliamentary Constituencies"। Chief Electoral Officer, Arunachal Pradesh website। ১৩ আগস্ট ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১১ 
  10. US Directorate of Intelligence। "Country Comparison:Population"। সংগ্রহের তারিখ ১ অক্টোবর ২০১১Qatar 2,374,860 may 2015 est. 
  11. "About Tawang"। ২ মার্চ ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ জুন ২০১৮ 
  12. Injustice in India's east
  13. PHED Map