প্রধান মেনু খুলুন
'ঢাকাপ্রকাশ' পত্রিকার প্রচ্ছদ পাতা

ঢাকাপ্রকাশ বাংলাদেশের ঢাকা শহরের প্রথম বাংলা সংবাদপত্র যা বাংলা তারিখ ২৫ ফাল্গুন, ১২৬৭ (মার্চ ৭, ১৮৬১) প্রথম প্রকাশিত হয়।[১]

ইতিহাসসম্পাদনা

ঢাকার বাবুবাজারে প্রতিষ্ঠিত 'বাঙ্গলাযন্ত্র' নামে বাংলা মুদ্রণযন্ত্র বা প্রেস থেকে ঢাকাপ্রকাশ প্রকাশিত হয়। বাঙ্গলাযন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছিলেন ঢাকার সাভারের তেঁতুলঝোড়া গ্রামের ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট ব্রজসুন্দর মিত্র। প্রেস স্থাপনে তাকে আরও যারা সাহায্য করেন তাদের মধ্যে ঢাকার ধামরাইয়ের ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট দীনবন্ধু মৌলিক, মুন্সিগঞ্জের রাঢ়িখালের ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট ভগবানচন্দ্র বসু (বিজ্ঞানী স্যার জগদীশচন্দ্র বসুর পিতা), ঢাকা কলেজিয়েট স্কুলের শিক্ষক ঈশ্বরচন্দ্র বসু (বিজ্ঞানী স্যার জগদীশচন্দ্র বসুর কাকা) ও মালাখানগরের ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট রামকুমার বসু অন্যতম। কারও মতে ঢাকাপ্রকাশ প্রথম আত্মপ্রকাশ করে ৭ই মার্চ বৃহস্পতিবার ১৮৬১ সালে, আবার কারও মতে তারিখটি ছিল, ৮ই মার্চ ১৮৬১।

 
'ঢাকাপ্রকাশ' পত্রিকার প্রথম পাতা

পত্রিকার গঠনসম্পাদনা

সাপ্তাহিক পত্রিকাটি প্রতি বৃহস্পতিবার প্রকাশিত হতো।[১] এর প্রথম পৃষ্ঠার উপরে বড় আকারে 'ঢাকাপ্রকাশ' এবং তার নিচে ছোট আকারে 'সপ্তাহিক' শব্দ লেখা থাকতো। এর নিচে থাকতো একটি ঋষি বাক্য 'সিদ্ধিঃ সাধ্যে সমামুস্ত।' পরে এর সাথে আরও যুক্ত হয় 'প্রসাদাদিহ ধূর্জ্জটেঃ'। প্রথম বছরে প্রত্রিকাটি রয়েল আকারে আট পৃষ্ঠায় প্রকাশিত হত এবং ডাকমাশুল সহ বার্ষিক মূল ছিল পাঁচ টাকা।

সম্পাদকসম্পাদনা

ঢাকাপ্রকাশ পত্রিকার প্রথম সম্পাদক ছিলেন স্বনামধন্য কবি কৃষ্ণচন্দ্র মজুমদার১৮৬৫ সালের এপ্রিল মাসে পত্রিকাটির সম্পাদক হিসেবে যোগ দেন স্কুল ইন্সপেক্টর দীননাথ সেন। পরে জগন্নাথ অগ্নিহোত্রী, গোবিন্দপ্রসাদ রায়, অনাথবন্ধু মৌলিক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

প্রকাশসম্পাদনা

পত্রিকাটি প্রথম প্রকাশিত হত বৃহস্পতিবার, পরে দীননাথ সেন এর সময় প্রকাশনার দিন পরিবর্তন করে শুক্রবার করা হয় এবং পরবর্তিতে প্রকাশনার পঞ্চম বর্ষে পত্রিকাটি রবিবার প্রকাশিত হত।

সর্বশেষ সংখ্যাসম্পাদনা

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগারে, 'ঢাকাপ্রকাশ' এর সর্বশেষ সংখ্যাটির তারিখ ১২-৪-১৯৫৯। সম্পাদক আবদুর রশীদ খান। প্রকাশিত হয় ৫৯/৩ কিতাব মঞ্জিল, ইসলাম পুর থেকে। বিশ শতকের ষাটের দশকে পত্রিকাটির প্রকাশ বন্ধ হয়ে যায়। ঢাকাপ্রকাশ তার পাঠকপ্রিয়তার কারণে পরবর্তি প্রায় ১০০ বছর ধরে প্রকাশিত হয়। পত্রিকাটি প্রকাশের পরে প্রচার সংখ্যা ছিল আড়াইশো। পরবর্তিতে উনিশ শতকের নব্বই দশকে সে সংখ্যা দাঁড়িয়ে ছিল পাঁচ হাজারে।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Gupta, Om (২০০৬)। "D"। Encyclopaedia of India, Pakistan and Bangladesh (English ভাষায়)। Volume 3। India: Isha Books। পৃষ্ঠা 623। আইএসবিএন 81-8205-392-7। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-১০-২৬ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা