ট্রায়োজ হলো তিন কার্বন পরমাণুবিশিষ্ট একটি সরল শর্করা বা মনোস্যাকারাইডডাইহাইড্রোক্সিঅ্যাসিটোনসহ কেবলমাত্র তিনটি ট্রায়োজ শর্করা পাওয়া যায়: এল-গ্লিসার‍্যাল্ডিহাইড ও ডি-গ্লিসার‍্যাল্ডিহাইড এবং ডাইহাইড্রোক্সিঅ্যাসিটোন। এল ও ডি গ্লিসার‍্যাল্ডিহাইড দুইটি হলো অ্যাল্ডট্রায়োজ, অর্থাৎ কার্বোনিল মূলক শিকলের শেষপ্রান্তে অবস্থিত এবং এরা পরস্পরের অ্যানানসিওমারডাইহাইড্রোক্সিঅ্যাসিটোনের কার্বোনিল মূলক মাঝে হওয়ায় এটি একমাত্র কিটোট্রায়োজ; এটি প্রতিসম এবং এ কারণে এর কোনো এনানসিওমার নেই।[১]

ডি-গ্লিসার‍্যাল্ডিহাইড হলো একটি অ্যাল্ডোট্রায়োজ, কেননা এর কার্বোনিল মূলক কার্বন শিকলের শেষ প্রান্তে অবস্থিত।
ডাইহাইড্রোক্সিঅ্যাসিটোন হলো একটি কিটোট্রায়োজ, কেননা এর কার্বোনিল মূলক শিকলের মাঝে অবস্থিত।

কোষীয় শ্বসনে ট্রায়োজ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। গ্লাইকোলাইসিসের সময় ফ্রুক্টোজ-১,৬-বিসফসফেট ভেঙে গ্লিসার‍্যাল্ডিহাইড-৩-ফসফেট এবং ডাইহাইড্রোক্সিঅ্যাসিটোন ফসফেট উৎপন্ন করে। পরবর্তীতে এই অণুসমূহ থেকে ল্যাকটিক অ্যাসিডপাইরুভিক অ্যাসিড উৎপন্ন হয়।[২]

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. "Trioses - Three Carbon Sugars"। Oxford University Press। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৭-১০ 
  2. "Glycolysis in Detail"। Ohio State University at Mansfield। ২০১৪-০৪-১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৭-১০