টেলেগনি (গ্রিক: Τηλεγόνεια, Tēlegoneia; লাতিন: Telegonia) হল একটি হারানো প্রাচীন গ্রিক মহাকাব্য। এই মহাকাব্যের নায়ক ওডিসিউসের ঔরসে সার্সির গর্ভজাত পুত্র টেলাগনাস। নায়কের নামটিই (যার অর্থ "বহু দূরে জাত") ইঙ্গিত করে যে টেলাগনাসের জন্ম হয়েছিল ইথাকায় ওডিসিউসের প্রাসাদ থেকে থেকে বহু দূরে ইয়িয়ায়। টেলেগনি গ্রিক মহাকাব্য চক্রের অন্তর্গত অন্যতম কাব্য। এই চক্রের কাব্যগুলিতে ট্রোজান যুদ্ধের প্রাক্কালে এবং যুদ্ধের ফলশ্রুতিতে ঘটা ঘটনাবলি-সংক্রান্ত অতিকথাগুলি বর্ণিত হয়েছে। টেলেগনির আখ্যানভাগ কালপঞ্জির দিক থেকে ওডিসির পরবর্তীকালের এবং এটিই মহাকাব্য চক্রের সর্বশেষ পর্ব। কোনও কোনও সূত্রে প্রাচীন কবি স্পার্টার সিনেথনকে (খ্রিস্টপূর্ব অষ্টম শতাব্দী) এই মহাকাব্যের রচয়িতা বলে উল্লেখ করা হয়েছে; আবার অন্য সূত্রে বলা হয়েছে যে, সাইরিনির ইউগ্যামন (খ্রিস্টপূর্ব ষষ্ঠ শতাব্দী) এটিকে মিউসেয়াসের থেকে চুরি করেন[১] (বৃত্তীয় কবি দেখুন)। কাব্যটি ড্যাকটিলিক হেক্সামিটার ছন্দে রচিত দু'টি সর্গে বিভক্ত ছিল।

শিরোনাম

সম্পাদনা

প্রাচীনকালে টেলেগনি বইটি সম্ভবত "থেসপ্রোটিস" (Greek: Θεσπρωτίς)নামেও পরিচিত ছিল। খ্রিস্টীয় দ্বিতীয় শতাব্দীতে পসানিয়াস একবার এই দ্বিতীয় নামটি উল্লেখ করেছেন।[২] আবার "থেসপ্রোটিস" নামটি টেলেগনি গ্রন্থের প্রথম সর্গের শিরোনামও হতে পারে, কারণ এই সর্গের প্রেক্ষাপট থেসপ্রোশিয়া। একটি বৃহত্তর মহাকাব্যের বিচ্ছিন্ন অধ্যায়ের এহেন নামকরণ হোমারীয় মহাকাব্যগুলির প্রাচীন পাঠকদের একটি সাধারণ রীতিতে পরিণত হয়েছিল।[৩]

একটি তৃতীয় সম্ভাবনা এই যে "থেসপ্রোটিস" নামে সম্ভবত সম্পূর্ণ পৃথক আরেকটি মহাকাব্যের অস্তিত্ব ছিল। আবার একটি চতুর্থ সম্ভাবনা হল, "টেলেগনি" ও "থেসপ্রোটিস" সম্ভবত সম্পূর্ণ স্বতন্ত্র দু'টি কবিতা, যা কোনও এক পর্যায়ে একটি একক "টেলেগনি"-র মধ্যে গ্রথিত হয়েছিল।

রচনাকাল

সম্পাদনা

টেলেগনির রচনাকাল নিশ্চিতভাবে নির্ধারণ করা যায় না। এই মহাকাব্য যাঁর রচনা বলে কথিত সেই ইউগ্যামনের বাসস্থানসাইরিনি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল খ্রিস্টপূর্ব ৬৩১ অব্দে। কিন্তু এই মহাকাব্যের আখ্যানবস্তুর অস্তিত্ব ইউগ্যামননের পাঠটির আগেও ছিল, সম্ভবত মৌখিক প্রথাতেও সেটি পাওয়া যেত। এমনও একটি দূর সম্ভাবনা রয়েছে যে ওডিসির রচয়িতা টেলেগনিতে বর্ণিত কাহিনির কোনও একটি পাঠের সঙ্গে পরিচিত ছিলেন (থেসপ্রোশিয়ান পর্ব এবং টেলেগনিতে টেলাগনাসের ব্যতিক্রমী বর্শাটির কল্পনার উৎস সম্ভবত ওডিসির ১১শ সর্গে টায়ারসিয়াসের ভবিষ্যদ্বাণী; আবার এমনও হতে পারে যে ওডিসির রচয়িতা টেলাগনাসের কাহিনিটিকেও টায়ারসিয়াসের ভবিষ্যদ্বাণীর ভিত্তি হিসেবে গ্রহণ করেছিলেন)। নিশ্চিতভাবেই বলা চলে যে, ইউগ্যামননের কাব্যটি সম্ভবত খ্রিস্টপূর্ব ষষ্ঠ শতাব্দীতে রচিত হয়েছিল।

বিষয়বস্তু

সম্পাদনা

টেলেগনি মহাকাব্যের মূল পাঠের মাত্র দু'টি চরণেরই বর্তমানে অস্তিত্ব রয়েছে। এটির আখ্যানবস্তুর জন্য জনৈক "প্রোক্লাস"-এর "ক্রেস্টোম্যাথি"-তে কথিত টেলাগনাস অতিকথার একটি সারসংক্ষেপের উপর নির্ভর করতে হয়।[৪]

টেলেগনি মহাকাব্যটি দু'টি স্বতন্ত্র পর্ব নিয়ে গঠিত: ওডিসিউসের থেসপ্রোশিয়া যাত্রা এবং টেলাগনাসের কাহিনি। সম্ভবত টেলেগনির দুই সর্গের প্রত্যেকটিই এই পর্ব দু'টির সঙ্গে সম্পর্কিত। আখ্যানবস্তুর সূত্রপাত ওডিসিতে বর্ণিত ঘটনাবলির পরে। প্রোক্লাসের সারসংক্ষেপ অনুযায়ী, টেলেগনির আরম্ভে রয়েছে পেনেলোপির পাণিপ্রার্থীদের সমাধিস্থকরণের ঘটনাটি।[৫] ওডিসিউস নিম্ফদের উদ্দেশ্যে বলি উৎসর্গ করেন।[৬] এরপর তিনি সমুদ্রপথে উপস্থিত হন এলিসে। সেখানে পলিজেনোস নামে এই ইতিপূর্বে অপরিচিত ব্যক্তির সঙ্গে তাঁর দেখা হয়। পলিজেনোস ওডিসিউসকে একটি পাত্র দেন। সেই পাত্রের গায়ে ট্রফোনিয়াসের কাহিনিটি বর্ণিত হয়েছিল। ওডিসিউস ইথাকায় ফিরে আসেন এবং তারপর থেসপ্রোশিয়ায় যাত্রা করেন। অনুমান করা হয়, ওডিসির ১১শ সর্গে টায়ারসিয়াস তাঁকে যে বলি উৎসর্গের নির্দেশ দিয়েছিলেন তা সম্পন্ন করতেই ওডিসিউস থেসপ্রোশিয়ায় গিয়েছিলেন। সেখানে থেসপ্রোশিয়ান রানি কালিডিকিকে তিনি বিবাহ করেন এবং ওডিসিউসের ঔরসে কালিডিকির গর্ভে পলিপোয়েটিস নামে এক পুত্রের জন্ম হয়।[৭] প্রতিবেশী রাজ্য ব্রাইগোইয়ের বিরুদ্ধে থেসপ্রোশিয়ানদের হয়ে একটি যুদ্ধেও অংশ নেন ওডিসিউস। দেবতারাও এই যুদ্ধে অংশ নেন। আরেস ওডিসিউস ও থেসপ্রোশিয়ানদের ছত্রভঙ্গ করে দেন। তখন ওডিসিউসের সর্বকালের রক্ষয়িত্রী আথিনা আরেসের বিরুদ্ধে অবতীর্ণ হন। শেষে অ্যাপোলো বিবদমান দেবতাদের মধ্যে মধ্যস্থতা করেন। যদিও যুদ্ধে কালিডিকি নিহত হয়েছিলেন এবং পলিপোয়েটিস রাজ্যে তাঁর স্থলাভিষিক্ত হয়েছিল।[৮] এরপর ওডিসিউসও ইথাকায় প্রত্যাবর্তন করেন।

এদিকে প্রকাশ পায় যে, সার্সি, যাঁর সঙ্গে ওডিসিতে এক বছর ওডিসিউসকে সম্পর্কে থাকতে দেখা যায় (১০ম-১২শ সর্গ), তিনি এক টেলাগনাস (Τηλέγονος, "বহু দূরে জাত") নামে এক পুত্রের জন্ম দিয়েছেন। সার্সির সঙ্গেই ইয়িয়া দ্বীপে টেলাগনাস বেড়ে ওঠে। দেবী আথিনার পরামর্শক্রমে, সার্সি পুত্রকে তার পিতার নাম জানায়। বিবলিওথিকি গ্রন্থের সার-সংক্ষেপে বর্ণিত একটি বিবরণ থেকে জানা যায় যে, সার্সি আত্মরক্ষার জন্য পুত্রকে হিফিস্টাস নামে এক দেবতার তৈরি করা একটি অলৌকিক বর্শা দিয়েছিলেন। এই বর্শাটির আগায় বিষাক্ত স্ট্রিংরে গাঁথা ছিল।[৯] একটি ঝড়ে ফলে টেলাগনাস ইথাকায় অবতরণ করতে বাধ্য হয়। সে বুঝতে পারেনি যে সে কোথায় এসেছে। হোমারীয় বীরদের ক্ষেত্রে সচরাচর যেমন দেখা যায়, সেই রকমই প্রতিকূল ভূমিতে অবতরণ করে টেলাগনাস জলদস্যুতায় লিপ্ত হয়ে পড়ে এবং নিজের অজ্ঞাতসারেই ওডিসিউসের গবাদি পশু চুরি করে। ওডিসিউস নিজের সম্পত্তি রক্ষণে এগিয়ে আসেন। দু'জনের মধ্যে যুদ্ধ শুরু হয়। এই যুদ্ধে টেলাগনাস নিজের অলৌকিক বর্শাটির দ্বারা ওডিসিউসকে হত্যা করে। এইভাবেই ওডিসির ১১শ সর্গে টায়ারসিয়াসের ভবিষ্যদ্বাণী (ওডিসিউসের মৃত্যু হবে "সমুদ্রের বাইরে" অর্থাৎ মাছের বিষে) পূর্ণ হয়।[১০] (আবার অন্য দিক থেকে দেখলে, ওডিসিউসের মৃত্যুটি টায়ারসিয়াসের ভবিষ্যদ্বাণীর বিপরীতেও গিয়েছিল। কারণ টায়ারসিয়াস বলেছিলেন (ওডিসি, ১১.১৩৫) যে, "পরিপক্ক বার্ধ্যক্যে" ওডিসিউসের কাছে নেমে আসবে "শান্ত মৃত্যু"।) মৃত্যুপথযাত্রী ওডিসিউস[১১] টেলাগনাসকে চিনতে পারেন, টেলাগনাসও চিনতে পারে নিজের পিতাকে। নিজের ভুলের জন্য বিলাপ করতে থাকে টেলাগনাস। সে তার পিতার মৃতদেহ, পেনেলোপি এবং ওডিসিউসের অপর পুত্র টেলামেকাসকে ফিরিয়ে নিয়ে যায় ইয়িয়ায়। সেখানে ওডিসিউসকে সমাধিস্থ করা হয় এবং সার্সি অন্যান্যদের অমরত্ব প্রদান করেন। টেলাগনাস পেনেলোপিকে বিবাহ করেন এবং টেলামেকাস বিবাহ করেন সার্সিকে।[১২]

লাতিন কবিদের কল্পনা

সম্পাদনা

খ্রিস্টীয় প্রথম শতাব্দীর রোমান উপকথা-রচয়িতা হাইজিনাস প্রোক্লাসের বিবরণের বিপরীতে গিয়ে কয়েকটি বর্ণনা জুড়ে দিয়েছেন। প্রথমত, তিনি দেখিয়েছেন যে ওডিসিউস ও টেলামেকাস দু'জনেই টেলাগনাসের সঙ্গে যুদ্ধে লিপ্ত হয়েছিলেন। এরপর হাইজিনাস বলেন যে, ওডিসিউস একটি ওর‍্যাকল শুনেছিলেন, যা তাঁকে তাঁর পুত্রের থেকে সাবধান করে দিয়েছিল।[১৩] শেষে হাইজিয়াস এও বলেন যে, টেলাগনাসের ইতালিয়াস নামে এক পুত্র ছিল। এই পুত্রই ইতালির প্রতিষ্ঠাতা। আবার লাতিনাস নামে টেলামেকাসেরও এক পুত্রের কথা তিনি উল্লেখ করেন। এই পুত্রের নামানুসারেই লাতিন ভাষার নামকরণ করা হয়েছে।

অসংখ্য লাতিন কবি[১৪] বলেছেন যে, প্রেনিস্টে বা টাসকালাম নামে গুরুত্বপূর্ণ লাতিন শহরের প্রতিষ্ঠাতা হলেন টেলাগনাস।

দান্তের কল্পনা

সম্পাদনা

দান্তে আলিগিয়েরির লা দিভিনা কোম্মেদিয়া গ্রন্থে ইনফেরনো-র অষ্টম বোলজিয়া-য়[১৫] দান্তে ও তাঁর পথপ্রদর্শকের সঙ্গে ইউলিসিস ও জাল পারিষদবর্গের দেখা হয়। দান্তে "সমুদ্র থেকে দূরে" ইউলিসিসের মৃত্যুর এক অন্য বিবরণ লাভ করেন। হারকিউলিসের স্তম্ভরাজি পেরিয়ে পাঁচ মাসের যাত্রার পর পার্গাটরি পর্বতের কাছে একটি ঘূর্ণিস্রোতে সকল নাবিকের সলিলসমাধি লাভের মাধ্যমে ইউলিসিসের যাত্রা শেষ হয়েছিল। দান্তের কাছে কোনও গ্রিক সূত্র ছিল না। তিনি কেবলমাত্র ডিকটিস ক্রিটেনিস গ্রন্থের ভিত্তিতে নিজের কাব্য রচনা করেছিলেন।

ওডিসিউসের উপাখ্যান-কেন্দ্রিক অতিকথাগুলির ভিত্তিতে রচিত অনেকগুলি অপেরার মধ্যে একটি মাত্র[১৬] মাত্র অপেরা টেলাগনাসকে নিয়ে গ্রথিত হয়। এটি হল কার্লো গ্রুয়ার টেলেগনো (ডাসেলডর্ফে প্রথম উপস্থাপিত, ১৬৯৭)।

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. "Some have seen in the 'burst of happy marriages' in which the Telegoneia ends an explanation for its being ascribed to Eugammon, a name which apparently means 'Happy-Marrier'", Edmund D. Cressman remarks (Cressman, "Beyond the Sunset" The Classical Journal 27.9 (June 1932:669-674], p. 671).
  2. Pausanias 8.12.5.
  3. For example, Book 10 of the Iliad is called the Doloneia, and book 5 and part of book 6 were known as "the Aristeia of Diomedes". The first four books of the Odyssey are called the Telemachy, as those books describe the journey of Odysseus' son Telemachus as he looks for news about his missing father; Odysseus' descent to the Underworld (Odyssey 11) is known as the Nekyia.
  4. Possibly to be identified with the second-century AD grammarian Eutychios Proklos). The Bibliotheca offers a much more abbreviated account.
  5. The beginning of Telegoneia suggested to G.L. Huxley (Greek Epic Poetry: From Eumelos to Pamyassis, Harvard University Press, 1969:171) that the Odyssey as it was known to Eumelos in the sixth century ended with the killing of the suitors, without the so-called "Continuation" in the version we read today. Joseph Russo, reviewing Huxley in The American Journal of Philology October 1972:623, expressed his own feeling "that Eugammon was free to begin his poem about Telegonus wherever he wanted, the main criterion being that it suit his artistic design, which we are in no position to judge adequately".
  6. Presumably the nymphs are intended in whose cave he had hidden the treasure he brought with him to Ithaca: see Odyssey 13.
  7. "In the non-Homeric poems of the Cycle, the character of Odysseus appears much less admirable than it does in Homer," Edmund D. Cressman remarks (Cressman 1932:670).
  8. The often-repeated theme in Greek mythology of the son of a queen's consort succeeding to her throne has raised much commentary.
  9. Epitome vii.36. See also the scholium ad Od. 11.134.
  10. As all prophecy in myth "comes true", most readers attribute the interpolation of this marine detail to an attempt to make Odysseus' death "come from the sea".
  11. Sophocles' lost Odysseus Acanthoplex also brought him inadvertent death at the hand of Telegonus.
  12. The plot summary by Eutyches Proclus, which is followed here, is translated by Hugh G. Evelyn-White, Hesiod, Homeric Hymns and Homerica (Loeb Classical Library), 1914,
  13. This detail makes Telemachus' presence in Ithaca unusual, but might provide an unstated reason for Telemachus' absence in the accounts of Proclus and Apollodorus; namely, Odysseus banished him from Ithaca for fear of the oracle.
  14. Cressman 1932:672 notes Horace, Ovid, Propertius and Statius.
  15. Inferno, Canto XXVI.
  16. According to Latin Notes Supplement, December 1926 (noted by Chessman 1932:673).

সংস্করণ

সম্পাদনা