জামিয়া ইসলামিয়া ওবাইদিয়া নানুপুর

বাংলাদেশের বৃহত্তম ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়

জামিয়া ইসলামিয়া ওবাইদিয়া নানুপুর (এই শব্দ সম্পর্কেশুনুন  ইংরেজি: Jamia Islamia Obaidia Nanupur আরবি: الجامعة الاسلامية العبيدية النانوفور) সংক্ষেপে নানুপুর মাদ্রাসা চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলার নানুপুরে অবস্থিত একটি কওমি মাদ্রাসা বা বেসরকারি ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়। এই প্রতিষ্ঠানটি দারুল উলূম দেওবন্দের মূলনীতিকে ভিত্তি করে পরিচালিত হয় এবং বাংলাদেশের কওমী মাদ্রাসাসমূহের মধ্যে এটিই সর্বপ্রথম অনলাইনে ভর্তি কার্যক্রম চালু করেছিল[২]সুলতান আহমদ নানুপুরী কর্তৃক ১৯৫৭ খ্রিষ্টাব্দে (৬৩ বছর পূর্বে) এই প্রতিষ্ঠানটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। [৩]

জামিয়া ইসলামিয়া ওবাইদিয়া নানুপুর (আরবি বিশ্ববিদ্যালয়)
الجامعة الاسلامية العبيدية النانوفور
Al-Jamiah Al-Islamiah Obaidia Nanupur.jpg
উত্তর দিক হতে নানুপুর মাদ্রাসা
প্রাক্তন নাম
ওবাইদিয়া হাফেজুল উলুম
নীতিবাক্যاقْرَأْ بِاسْمِ رَبِّكَ
পড় তোমার প্রভুর নামে
ধরনকওমি মাদ্রাসা
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়
স্থাপিত১৯৫৭ ইং
১৩৭৭ হিজরি
অধিভুক্তিআল-হাইআতুল উলয়া লিল-জামি‘আতিল কওমিয়া বাংলাদেশ
ধর্মীয় অধিভুক্তি
দেওবন্দি
বাজেট২০,০০,০০,০০০ (১৯-২০)
আচার্যশাহ সালাহউদ্দীন নানুপুরী [১]
শিক্ষায়তনিক ব্যক্তিবর্গ
১৩৫ (২০২০)
প্রশাসনিক ব্যক্তিবর্গ
২০
শিক্ষার্থী৮০০০ (২০২০)
স্নাতকউলা (ফাজিল)
স্নাতকোত্তরদাওরায়ে হাদীস (কামিল)
ইফতা, আরবি সাহিত্য,ইংরেজি সাহিত্য (পিএইচডি)
অবস্থান
শিক্ষাঙ্গনপল্লী অঞ্চল
ওয়েবসাইটjamiaislamiaobaidia.com

অবস্থানসম্পাদনা

চট্টগ্রাম শহর থেকে প্রায় ৪৫ কিলোমিটার এবং নানুপুর বাজার হতে ১ কিলোমিটার দূরে এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি অবস্থিত। প্রতিষ্ঠানটির উত্তর-পশ্চিমে ২ কিলোমিটার দূরত্বে র‍য়েছে মাইজভান্ডার মাজার এবং পূর্ব দিকে রয়েছে চট্টগ্রামের, নানুপুর লায়লা কবির ডিগ্রি কলেজ

স্বেচ্ছাসেবাসম্পাদনা

আল মানাহিল ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনসম্পাদনা

বাংলাদেশ সরকার নিবন্ধিত এই বেসরকারি সেবা সংস্থাটির বর্তমান চেয়ারম্যান হলেন হেলালুদ্দিন বিন জমিরুদ্দিন। ১৯৯৮ সালে মাদ্রাসাটির প্রতিষ্ঠাতা শাহ জমিরুদ্দিন'ই এই স্বেচ্ছাসেবা সংস্থাটি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।[৪]

রোহিঙ্গা আশ্রয়প্রার্থীদের মধ্যে সেবা ও শিক্ষামূলক কার্যক্রম পরিচালনা, গভীর নলকূপ স্থাপন, দুর্যোগকালে ত্রাণ বিতরণ সহ বহু সেচ্ছাসেবী কর্ম প্রতিষ্ঠানটি করেছে। চট্টগ্রামের হালিশহরে কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্তদের জন্য একটি স্বতন্ত্র হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করেছে এই সেচ্ছাসেবী সংস্থাটি[৫]। এছাড়াও সেচ্ছাসেবী হিসেবে কোভিড-১৯ রোগে মৃত ব্যক্তিদের দাফনকর্মও সম্পাদনা করেছে এই সংস্থাটি।[৪]

আল মানাহিল নার্চার হাসপাতালসম্পাদনা

চট্টগ্রাম মহানগরীর হালিশহরের ফইল্যাতলী বাজারে এই 'ফিল্ড হাসপাতাল ও আইসোলেশন সেন্টার' টি অবস্থিত। এটিতে কোভিড-১৯ রোগীদের জন্য কেন্দ্রীয় অক্সিজেন সরবরাহের ব্যবস্থা রয়েছে।[৬]

ইতিহাসসম্পাদনা

শাহ সুলতান আহমদ নানুপুরী ছিলেন এই প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক। [৭]

অবকাঠামোসম্পাদনা

প্রবেশপথসম্পাদনা

মসজিদসম্পাদনা


শিক্ষাব্যবস্থাসম্পাদনা

ইবতেদায়ী থেকে নির্দিষ্ট বিষয়ে উচ্চতর গবেষণা, সবগুলো বিভাগই রয়েছে এই প্রতিষ্ঠানটিতে।

  • ইবতেদায়ী বিভাগ
  • হিফজুল কুরআন
  • আলিম বিভাগ (স্নাতক)
  • দাওরা বিভাগ (স্নাতকোত্তর)
  • উচ্চতর গবেষণা বিভাগ

আচার্যবৃন্দসম্পাদনা

ক্রম আচার্য সময়কাল
শাহ সুলতান আহমদ নানুপুরী ১৯৫৭-১৯৮৫
শাহ জমির উদ্দিন নানুপুরী ১৯৮৫-২০১১
শাহ সালাহউদ্দীন নানুপুরী ২০১১-বর্তমান

আরো দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "নানুপুরের পীর সালাহউদ্দীন নানুপুরী অসুস্থ"খুতবাহ টিভি 
  2. "কওমীতে সর্বপ্রথম অনলাইনে ভর্তি কার্যক্রম চালু করতে যাচ্ছে চট্টগ্রামের নানুপুর মাদ্রাসা"একুশে জার্নাল। ২০১৯-০৩-১৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৭-১৩ 
  3. "জামিয়া ইসলামিয়া ওবাইদিয়া নানুপুর : একটি বিশ্বজনীন কওমি মাদরাসা"কমাশিসা। ১৯ সেপ্টেম্বর ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুন ২০২০ 
  4. "চট্টগ্রামে করোনাসেবায় আল মানাহিল"কালের কন্ঠ। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৭-১৩ 
  5. "করোনা রোগীর চিকিৎসায় হাসপাতাল প্রস্তুত করছে আল-মানাহিল"The Daily Star Bangla। ২০২০-০৬-১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৭-১৩ 
  6. "চট্টগ্রামে করোনা ডেডিকেটেড আল-মানাহিল হাসপাতালের যাত্রা শুরু"https://wwww.jagonews24.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৭-১৩  |ওয়েবসাইট= এ বহিঃসংযোগ দেয়া (সাহায্য)
  7. "এক দুনিয়া বিমুখ আধ্যাত্মিক রাহবার আল্লামা শাহ ছোলতান আহমদ নানুপুরী"দৈনিক ইনকিলাব। ২৫ আগস্ট ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুন ২০২০  line feed character in |শিরোনাম= at position 35 (সাহায্য)

বহিঃসংযোগসম্পাদনা