জাবির ইবনে আফলাহ

আবু মুহাম্মাদ জাবির ইবনে আফলাহ ( আরবি: أبو محمد جابر بن أفلح‎‎, লাতিন: Geber/Gebir; ১১০০-১১৫০) ছিলেন একজন আরব[১][২] সেভিলের মুসলিম জ্যোতির্বিদ এবং গণিতবিদ, যিনি ১২ শতকের আন্দালুসে সক্রিয় ছিলেন। তার কাজ ইসলাহুল মাজিসতি (আলমাজেস্টে সংশোধন) মুসলিম, ইহুদি এবং খ্রিস্টান জ্যোতির্বিদদের প্রভাবিত করেছিল।[৩]

জাবির ইবনে আফলাহ
Jabir ibn Aflah (MUNCYT, Eulogia Merle).jpg
ইউলোগিয়া মেরলে কর্তৃক ইবনে আফলাহের কাল্পনিক প্রতিকৃতি (ফাউন্ডেশন এস্পানোলা পারা লা সিয়েন্সিয়া ইয়ে লা টেকনোলজির জন্য, ২০১১)
জন্ম১১০০ দশক
মৃত্যু১১৫০ দশক
একাডেমিক কর্ম
যুগমুসলিম স্বর্ণযুগ
প্রধান আগ্রহজ্যোতির্বিজ্ঞান, গণিত
উল্লেখযোগ্য কাজইসলাহুল মাজিসতি (আলমাজেস্টের সংশোধন)
উল্লেখযোগ্য ধারণা
যাদের প্রভাবিত করেনইবনে রুশদ, নুরুদ্দিন আল-বিতরুজি

ইসলাহুল মাজিসতি (আলমাজেস্টে সংশোধন)সম্পাদনা

এই কাজটি টলেমির আলমাগেস্টের একটি ভাষ্য এবং পুনর্গঠন এবং মুসলিম পশ্চিমে এটির প্রথম সমালোচনা। তিনি বিশেষভাবে কাজের গাণিতিক ভিত্তির সমালোচনা করেছিলেন। উদাহরণস্বরূপ, তিনি গোলাকার ত্রিকোণমিতির উপর ভিত্তি করে মেনেলাউসের উপপাদ্যের ব্যবহার প্রতিস্থাপন করেন, যা কাজের গাণিতিক নির্ভুলতা বাড়ানোর প্রচেষ্টা বলে মনে হয়। এই উপপাদ্যগুলো ১০ শতকের ইসলামী গণিতবিদদের একটি দল দ্বারা তৈরি করা হয়েছিল যাদের মধ্যে আবুল ওয়াফা বুজানি এবং তারপর আবু আবদুল্লাহ মুহাম্মাদ ইবনে মুয়াদ জায়ানিও ছিলেন যিনি ১১ শতকে আন্দালুসিয়ায় কাজ করেছিলেন। জাবির এই লেখকদের কাউকেই কৃতিত্ব দেননি এবং এই রচনায় একজন একক ইসলামী লেখককে উল্লেখ করেননি।[৩]

টলেমির বর্ণনায় জাবির একটি উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন করেছেন যে, তিনি শুক্র এবং বুধের কক্ষপথগুলোকে সূর্যের বাইরে রেখেছিলেন, চন্দ্রসূর্যের মাঝখানের পরিবর্তে মূল রচনায় যেমনটি করা হয়েছিল।[৩]

উদ্ভাবনসম্পাদনা

 
টর্কেটাম আবিষ্কার করেন জাবির ইবনে আফলাহ।

ইবনে আফলাহ একটি পর্যবেক্ষণ যন্ত্র আবিষ্কার করেন যা টর্কেটাম নামে পরিচিত, একটি যান্ত্রিক যন্ত্র যা গোলাকার সমন্বয় ব্যবস্থার মধ্যে রূপান্তরিত হয়।[৪]

প্রভাবসম্পাদনা

পরবর্তীতে বেশ কিছু মুসলিম লেখক জাবির দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিলেন, যার মধ্যে ইবনে রুশদ এবং নুরুদ্দিন আল-বিতরুজি উল্লেখযোগ্যভাবে ছিলেন; যারা উভয়েই আন্দালুসিয়াতে কাজ করেছিলেন। কাজটি ১২ শতকে মুসা বিন মৈমুন দ্বারা মিশরে এবং ১৩ শতকের শেষের দিকে আরও পূর্বে প্রেরণ করা হয়েছিল।[৩]

কাজটি আরবি থেকে হিব্রু এবং লাতিন উভয় ভাষায় অনুবাদ করা হয়েছিল। লাতিন অনুবাদ ক্রেমোনার জেরার্ড করেছিলেন, যিনি লাতিন ভাষায় জাবিরের নাম "গেবার" করেছিলেন। এই ধারার মাধ্যমে এটি পরবর্তী ইউরোপীয় গণিতবিদ এবং জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের উপর ব্যাপক প্রভাব বিস্তার করেছিল এবং ইউরোপে ত্রিকোণমিতি প্রচারে সাহায্য করেছিল।[৩]

রেজিওমন্টানাস ' অন ট্রায়াঙ্গেলস ' (আনু.১১৪৬৩)-এর গোলাকার ত্রিকোণমিতির বেশিরভাগ উপাদান জাবিরের কাজ থেকে সরাসরি এবং কৃতিত্ব দেওয়া ছাড়াই নেওয়া হয়েছিল, যেমনটি ১৬ শতকে জিরোলামো কার্দানো উল্লেখ করেছিলেন।[৫]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Schlager, Neil; Lauer, Josh (২০০১)। Science and Its Times: 700-1449 (ইংরেজি ভাষায়)। Gale Group। আইএসবিএন 9780787639341 
  2. Publishing, Britannica Educational (২০১৩)। Portugal and Spain (ইংরেজি ভাষায়)। Britanncia Educational Publishing। আইএসবিএন 9781615309931 
  3. Calvo 2007
  4. Lorch, R. P. (১৯৭৬)। "The Astronomical Instruments of Jabir ibn Aflah and the Torquetum": 11–34। ডিওআই:10.1111/j.1600-0498.1976.tb00214.x 
  5. The Mathematics of Egypt, Mesopotamia, China, India, and Islam: A SourcebookPrinceton University Press। ২০০৭। আইএসবিএন 978-0-691-11485-9। ১ অক্টোবর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ এপ্রিল ২০২২ , p.4

গ্রন্থপঞ্জিসম্পাদনা

  • The Biographical Encyclopedia of Astronomers  (PDF version)