জাট সম্প্রদায় হলো উত্তর ভারত এবং পাকিস্তানের ঐতিহ্যগতভাবে একটি কৃষি সম্প্রদায়। [১][২][৩] মূলত সিন্ধুর নিম্নাঞ্চল সিন্ধু নদীর উপত্যকার যাজক জাটরা মধ্যযুগের শেষের দিকে উত্তরে পাঞ্জাব অঞ্চলে চলে আসে এবং পরবর্তীতে ১৭ ও ১৮ শতকে দিল্লি অঞ্চল, উত্তর-পূর্ব রাজপুতানা এবং পশ্চিম গাঙ্গেয় সমভূমিতে স্থানান্তরিত হয়। [৪] জাটদের হিন্দু, মুসলিম এবং শিখ ধর্মাবলম্বীদের মাঝে পাওয়া যায়। এখন বেশিরভাগ জাট ভারতীয় রাজ্য পাঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তর প্রদেশরাজস্থান এবং পাকিস্তানের সিন্ধুপাঞ্জাব প্রদেশে পাওয়া যায়।[৪]

জাট সম্প্রদায়
উল্লেখযোগ্য জনসংখ্যার অঞ্চল
দক্ষিণ এশিয়া~৩০–৪৩ মিলিয়ন (আনু. 2009/10)
ভাষা
হিন্দি-উর্দুহরিয়ানাপাঞ্জাবিরাজস্থানীসিন্ধিব্রজ
ধর্ম
হিন্দুধর্ম • ইসলাম • শিখধর্ম

জাটরা ১৭ শতকের শেষের দিকে এবং ১৮ শতকের প্রথম দিকে মুঘল সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে অস্ত্র তুলেছিল। [৫] গোকুল নামে একজন হিন্দু জাট জমিদার ছিলেন, যিনি সম্রাট আলমগীরের যুগে মুঘল শাসনের বিরুদ্ধে প্রথম দিকের বিদ্রোহী নেতাদের একজন।[৬] হিন্দু জাট সাম্রাজ্য মহারাজা সুরাজ মলের (১৭০৭-১৭৬৩) সময় শীর্ষে পৌঁছেছিল। [৭] শিখ ধর্মের মার্শাল খালসা পন্থের বিকাশে জাটরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল। [৮] বিংশ শতাব্দীর মধ্যে পাঞ্জাব, [৯] পশ্চিম উত্তর প্রদেশ, [১০] রাজস্থান, [১১] হরিয়ানাদিল্লিসহ উত্তর ভারতের বেশ কিছু অংশে জমিদার জাটরা একটি প্রভাবশালী গোষ্ঠীতে পরিণত হয়। [১২] বছরের পর বছর ধরে বেশ কিছু জাট লোক শহুরে চাকরির জন্যে কৃষি পরিত্যাগ করেছিল এবং উচ্চ সামাজিকমর্যাদা দাবি করার জন্য নিজেদের প্রভাবশালী অর্থনৈতিক এবং রাজনৈতিক অবস্থান ব্যবহার করেছিল। [১৩]

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. Khanna, Sunil K. (২০০৪)। "Jat"। Encyclopedia of Medical Anthropology: Health and Illness in the World's CulturesKluwer Academic/Plenum Publishers। পৃষ্ঠা 777। আইএসবিএন 978-0-306-47754-6 
  2. Nesbitt, Eleanor (২০১৬)। Sikhism: A Very Short Introduction (2nd সংস্করণ)। Oxford University Press। পৃষ্ঠা 143। আইএসবিএন 978-0-19-874557-0 
  3. Gould, Harold A. (২০০৬)। "Glossary"। Sikhs, Swamis, Students and Spies: The India Lobby in the United States, 1900–1946SAGE Publications। পৃষ্ঠা 439আইএসবিএন 978-0-7619-3480-6 
  4. Asher, Catherine Ella Blanshard; Talbot, Cynthia (২০০৬)। India before Europe। Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 269। আইএসবিএন 978-0-521-80904-7। সংগ্রহের তারিখ ২৯ অক্টোবর ২০১১ 
  5. Catherine Ella Blanshard Asher; Cynthia Talbot (২০০৬)। India before Europe। Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 265আইএসবিএন 978-0-521-80904-7 
  6. R. C. Majumdar, H.C. Raychaudhari, Kalikinkar Datta: An Advanced History of India, 2006, p.490
  7. The Gazetteer of India: History and culture। Publications Division, Ministry of Information and Broadcasting, India। ১৯৭৩। পৃষ্ঠা 348। ওসিএলসি 186583361 
  8. The Sants: studies in a devotional tradition of India। Motilal Banarsidass Publ.। ১৯৮৭। পৃষ্ঠা 242আইএসবিএন 978-81-208-0277-3 
  9. Mysore Narasimhachar Srinivas (১৯৬২)। Caste in modern India: and other essays। Asia Pub. House। পৃষ্ঠা 90ওসিএলসি 185987598 
  10. Sheel Chand Nuna (১ জানুয়ারি ১৯৮৯)। Spatial fragmentation of political behaviour in India: a geographical perspective on parliamentary elections। Concept Publishing Company। পৃষ্ঠা 61–। আইএসবিএন 978-81-7022-285-9। সংগ্রহের তারিখ ২০ জানুয়ারি ২০১২ 
  11. Lloyd I. Rudolph; Susanne Hoeber Rudolph (১৯৮৪)। The Modernity of Tradition: Political Development in India। University of Chicago Press। পৃষ্ঠা 86–। আইএসবিএন 978-0-226-73137-7। সংগ্রহের তারিখ ২০ জানুয়ারি ২০১২ 
  12. Encyclopedia of medical anthropology। Springer। ২০০৪। পৃষ্ঠা 778। আইএসবিএন 978-0-306-47754-6 
  13. Sunil K. Khanna (২০০৯)। Fetal/fatal knowledge: new reproductive technologies and family-building strategies in India। Cengage Learning। পৃষ্ঠা 18। আইএসবিএন 978-0-495-09525-5