জয়ন্তী গাছ

উদ্ভিদের প্রজাতি

জয়ন্তী গাছ সাধারণত দেখা যায় না। জয়ন্তী গাছের বৈজ্ঞানিক নাম হলো Sesbania sesban. এটি Fabaceac গোত্রের ফুল।

জয়ন্তী গাছ
Sesbania sesban
Sesbania sesban Blanco2.405.jpg
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ: Plantae
(শ্রেণীবিহীন): Angiosperms
(শ্রেণীবিহীন): Eudicots
(শ্রেণীবিহীন): Rosids
বর্গ: Fabales
পরিবার: Fabaceae
গণ: Sesbania
প্রজাতি: S. sesban
দ্বিপদী নাম
Sesbania sesban
(L.) Merr.

বিবরণসম্পাদনা

সংস্কৃত ভাষায় এর নাম জয়ন্তিকা। গাছ সাধারণত ৩-৪ বছর বাঁচে। মাঝারি আকৃতির গাছটি লম্বায় ১০- ২০ফুট উচ্চতার হয়ে থাকে। এর কাণ্ড বাদামি রঙের হয়। পাতা পক্ষল যৌগিক। প্রায় ২০ জোড়া পত্রক থাকে। সাধারণত হলুদ, গোলাপি ও বাদামী এই ৩ ধরনের ফুল গাছভেদে দেখা যায়। ফুল ২ - ৩ সেন্টিমিটার দৈর্ঘ্যের হয়ে থাকে। ৪ টি পাপড়ির মধ্যে ২ টি উল্টানো বিস্তৃত ও ২ টি একত্রীভূত। পৌষমাসে ফুল ফোটে। ফল চিকন লম্বাটে, কাঁচা অবস্থায় সবুজ। শুকিয়ে গেলে বাদামি বর্ণ। প্রতিটি ফলে ২০-২৫টি বীজ থাকে। এই গাছ প্রাকৃতিক ঔষধ হিসেবে  ব্যবহৃত হয়।

ব্যবহারসম্পাদনা

সনাতন ধর্মাবলম্বীরা দুর্গাপূজায় এই গাছ অবশ্যই ব্যবহার করে থাকেন। এই গাছের ডাল ছাড়া দুর্গাপূজা করা সম্ভবই না। সনাতন ধর্মাবলম্বীরা দুর্গাপূজায় এই গাছের ডাল ব্যবহার করেন। দুর্গাপূজায় ষষ্ঠী পূজার সময় নবপত্রিকার একটি অংশ হিসেবে এটি ব্যবহার করা হয়।

ঔষধি গুণাগুণসম্পাদনা

মেয়েদের যৌনি পথ ছোট করতে এ গাছের কচি পাতা বেটে যৌনিতে লেপলে যৌন পথ ছোট হয়।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা