ছুমাল আল কাহরামান

মুসলিম নারী বিচারক

ছুমাল আল কাহরামান (আরবি: ثمل القهرمانة‎‎; মৃত্যু ৯২৯) খলিফা আল-মুকতাদিরের শাসনামলে ৯১৮ সালে নিযুক্ত ধর্মনিরপেক্ষ প্রশাসনিক আদালতের একজন মুসলিম মহিলা বিচারক ছিলেন। তিনি কাজী (ইসলামিক আইনে বিচারকারী বিচারক) ছিলেন না, কারণ তিনি কেবল ধর্মনিরপেক্ষ আইন নিয়ে কাজ করতেন। অভিযোগকারীরা আদালতে যে অভিযোগ করতো সেগুলো পুর্ণলিখনের দায়িত্বে তাকে রাখা হয়েছিল।[১]

ছুমাল আল কাহরামান
ثمل القهرمانة
ধর্মনিরপেক্ষ প্রশাসনিক আদালতের বিচারক
কাজের মেয়াদ
৯১৮ – ৯২৮/৯২৯
সার্বভৌম শাসকআল-মুকতাদির
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্মআনু. ৮৯০ বা ৯০০-এর দশক
বাগদাদ, আব্বাসীয় খিলাফত (বর্তমানে ইরাক)
মৃত্যু৯২৯
বাগদাদ, আব্বাসীয় খিলাফত
বাসস্থানবাগদাদ

তার অবস্থান তার লিঙ্গ সাপেক্ষে অনন্য ছিল। তিনি অষ্টাদশ আব্বাসীয় খলিফা জাফর আল-মুকতাদির-বিল্লাহ এর মা উম্মে জাফর মুকতাদির কর্তৃক নিযুক্ত হন।

জীবনীসম্পাদনা

ছুমাল মূলত খলিফা আল-মুকতাদিরের মা শাঘাবের সহকারী ছিলেন। শাঘাব যখন তার ছেলের সিংহাসনের উত্তরাধিকার নিশ্চিত করেন, তখন তিনি কার্যত ক্ষমতা দখল করেন এবং রাষ্ট্রীয় বিষয়াদি পরিচালনার জন্য একটি সমান্তরাল আমলাতান্ত্রিক ব্যবস্থা নিয়োগ করেন। শাঘাব বলেছিলেন যে উম্মাহর বিষয়গুলি, বিশেষ করে ন্যায়বিচার, দায়িত্বে থাকা একজন মহিলার মাধ্যমে আরও ভালভাবে পরিচালিত হয়েছিল: ৯১৮ সালে তিনি মাজালিনের (ধর্মনিরপেক্ষ প্রশাসনিক আদালত) দায়িত্বে ছুমালকে নিযুক্ত করেন, যিনি প্রকৃতপক্ষে বিচারমন্ত্রী বা বিচার বিভাগের প্রধান প্রশাসক, এবং কাজীদের তত্ত্বাবধায়ক।[২] ইতিহাসবিদ তাবারির মতে, থুমাল তার অফিসে জনগণের মধ্যে জনপ্রিয়তা অর্জনের জন্য যথেষ্ট দায়িত্ব পালন করেছেন, বিশেষ করে নতুন সংস্কারের কারণে যা একজন বাদীর মামলা শুরু করার ব্যয় হ্রাস করে। তবে, আবু মুহাম্মদ আলী ইবনে আহমদ ইবনে সাইদ ইবনে হাযম-এর মতে তার নিয়োগকে মুসলিম ইতিহাসে বর্ণনা করা হয়েছে, "কেলেঙ্কারীর একটি উদাহরণ হিসাবে যা আজ পর্যন্ত দেখা যায়নি"।[২]

বিচারক হিসাবে কাজসম্পাদনা

৩১৮ সালে, ছুমাল সমসাময়িক বিচারকের সমতুল্য পদে নিযুক্ত হন, এবং তিনি সেই অভিযোগগুলি দেখেন যেগুলো লোকেরা প্রতি শুক্রবার লিখতো। তিনি ওম্বুডসম্যান হাউসে বসতেন। বিচারক আব্বা আল-হাসান ইবনে আল-আশানি তাকে জনগণের কাছে পৌঁছাতে এবং তার পেশার সমস্যা কাটিয়ে উঠতে সহায়তা করেছিলেন।[৩]

মৃত্যুসম্পাদনা

ছুমাল কাহরামান ৯২৯ সালে মৃত্যুবরণ করেন।

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. See Karen Bauer, 'Debates on Women's Status as Judges and Witnesses in Post-Formative Islamic Law,' Journal of the American Oriental Society, 130.1 (2010), 1-21.
  2. Mernissi, Fatima; Mary Jo Lakeland (2003). The forgotten queens of Islam. Oxford University Press. আইএসবিএন ৯৭৮-০-১৯-৫৭৯৮৬৮-৫.
  3. تاريخ الإسلام الذهبي  » الطبقة الحادية والثلاثون  » سنة ستٍّ وثلاث مائة  »[১] ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০১৬-০৩-০৫ তারিখে