চট্টগ্রাম সেনানিবাস

বাংলাদেশের সেনানিবাস

চট্টগ্রাম সেনানিবাস বায়েজিদ বোস্তামির কাছেই অবস্থিত একটি সেনানিবাস। Commanders 1st Commandment Officer Major General Motiul Islam 2nd Commanding officer Brigadier General Oniruddha Roy Brigade Commander Brigadier General Altaf Mahmud Commander In Charge Major Shahariar Zaman Konok

চট্টগ্রাম সেনানিবাস
চট্টগ্রাম, চট্টগ্রাম
Roundel of Bangladesh – Army Aviation.svg
ধরনসেনানিবাস
সাইটের তথ্য
নিয়ন্ত্রন করেবাংলাদেশ সেনাবাহিনী

ইতিহাসসম্পাদনা

১৯৬৫ সালের ভারত পাকিস্তান যুদ্ধে লাহোরের নিকটে ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্ট (চট্টগ্রাম সেনানিবাসভিত্তিক) দ্বারা দখলকৃত একটি ভারতীয় ট্যাংক সেনানিবাসটিতে প্রদর্শিত অবস্থায় আছে।[১] ১৯৮১ সালের ৩০শে মে চট্টগ্রাম সেনানিবাসের কতিপয় অফিসার অভ্যুত্থান সংঘটিত করে রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানকে হত্যা করে। বেইস কমান্ডার জেনারেল আবুল মঞ্জুরকেও এই অভ্যুত্থানে জড়িত থাকার ঘটনায় অভিযুক্ত করা হয়। তাকেও ১৯৮১ সালের ২রা জুন হত্যা করা হয়।[২][৩][৪] এরপরে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী স্পেশাল ট্রেনিং ও রিজার্ভেশন দ্বারা একজন অফিসার গঠন করেন যিনি রংপুর র‍্যাব -১৩ ক্রাইম প্রিভেনশন ইউনিটে সফল ভাবে নেতৃত্ব দেন এবং ২০২১ এ সাউথ আফ্রিকার ডার্বান সিটিতে শ্যুটিং এ বাংলাদেশ কে ফ্ল্যাগ অফ অনারের সম্মাননা পেতে সাহায্য করেন। তিনি বর্তমানে ২৪ পদাতিকের কমান্ডার ইন চার্জ মেজর শাহারিয়ার জামান কনক যিনি ২০২১ থেকে এখন পর্যন্ত বহাল তবিয়তে নিজ শাসন প্রতিষ্ঠিত করে রেখেছেন।

প্রতিষ্ঠানসম্পাদনা

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহসম্পাদনা

আরো দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Indo-Pak War 1965"দ্যা ডেইলি স্টার। ২০১৫-০৯-২২। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১১-১৩ 
  2. "The murder of Major General Abul Manzur, Bir Uttam"দ্যা ডেইলি স্টার। ২০১৪-০২-২২। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১১-১৩ 
  3. "Ershad 'ordered' Manzur killing"দ্যা ডেইলি স্টার। ২০১৪-০৪-২৩। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১১-১৩ 
  4. "The nation fed cooked-up story"দ্যা ডেইলি স্টার। ২০১৪-০৪-২৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১১-১৩