ঘাঘর বুড়ি

পশ্চিম বর্ধমান জেলার প্রাচীন মন্দির

ঘাঘর বুড়ি হলেন বাংলার লৌকিক দেবতা। আসানসোল শহরের উত্তরে ক্লেদবাহী শীর্ণকায় নুনীয়া নদীর তীরে অধিষ্টিতা রাঢ় বাংলার জাগ্রত দেবী মা শ্রীশ্রী ঘাঘর বুড়ি। ঘাঘর শব্দের অর্থ হল – ঝাঁজ বাদ্য ও ঘুঙুর। অনেকে তাকে ষষ্ঠ‌ীর আরেক রুপ ও বলেন।

ঘাঘর বুড়ি চন্ডী মন্দির

মা ঘাগরবুড়ির আদেশে মন্দির প্রতিষ্ঠা হয় ১৬২০ সালে। ৬২০ সালের ১লা মাঘকে স্মরণ করে প্রতি বছর মন্দিরের সামনের মাঠে বসে ঘাগরবুড়ি চণ্ডীমাতার মেলা।

মূর্তি ও পূজা

সম্পাদনা

প্রমাণ্য তথ্য থেকে জানা যায় বহু প্রাচীন কাল থেকে অনাচ্ছাদিত মন্দিরে, গাছ তলায় পূজা হয়ে আসছে মা ঘাঘর বুড়ির। ইনি দেবী শ্রীশ্রী চন্ডী। কোন মূর্তি নেই। শুধু তিনটি শীলা রয়েছে। পুরানে দেব-দেবীর বিভিন্ন পূজা পদ্ধতির উল্লেখ আছে- তার মধ্যে নৃত্য গীত-বাদ্য সহকারে বহু দেবীর পূজার প্রচলন ছিল। রাস পূর্ণিমায় এখানে হোম যজ্ঞ করা হয়।[১]

মন্দির সংলগ্ন এলাকাটি আদিবাসী অধ্যুষিত।

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. "রাস পূর্ণিমা উপলক্ষে হোম যজ্ঞ মা ঘাঘর বুড়ি মন্দিরে"Spasta Barta (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-১১-২৩। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৩-১৪ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]