গোয়ালন্দ উপজেলা

রাজবাড়ী জেলার একটি উপজেলা

গোয়ালন্দ বাংলাদেশের রাজবাড়ী জেলার অন্তর্গত একটি ঐতিহাসিক উপজেলা

গোয়ালন্দ
উপজেলা
গোয়ালন্দ ঢাকা বিভাগ-এ অবস্থিত
গোয়ালন্দ
গোয়ালন্দ
গোয়ালন্দ বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
গোয়ালন্দ
গোয়ালন্দ
বাংলাদেশে গোয়ালন্দ উপজেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৩°৪৪′১৬″ উত্তর ৮৯°৪৫′৩৬″ পূর্ব / ২৩.৭৩৭৭৮° উত্তর ৮৯.৭৬০০০° পূর্ব / 23.73778; 89.76000স্থানাঙ্ক: ২৩°৪৪′১৬″ উত্তর ৮৯°৪৫′৩৬″ পূর্ব / ২৩.৭৩৭৭৮° উত্তর ৮৯.৭৬০০০° পূর্ব / 23.73778; 89.76000 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগঢাকা বিভাগ
জেলারাজবাড়ী জেলা
আয়তন
 • মোট১২২ বর্গকিমি (৪৭ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)[১]
 • মোট১,৩৮,২৫৭
 • জনঘনত্ব১,১০০/বর্গকিমি (২,৯০০/বর্গমাইল)
সাক্ষরতার হার
 • মোট98.৮%
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)
পোস্ট কোড৭৭১০ উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
প্রশাসনিক
বিভাগের কোড
৩০ ৮২ ২৯
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন

অবস্থানসম্পাদনা

এই উপজেলার অবস্থান ২৩°৪৪′০০″ উত্তর ৮৯°৪৫′৪০″ পূর্ব / ২৩.৭৩৩৩° উত্তর ৮৯.৭৬১১° পূর্ব / 23.7333; 89.7611। এই উপজেলার উত্তরে বেড়া উপজেলার আমিনপুর থানাশিবালয় উপজেলা, দক্ষিণে ফরিদপুর সদর উপজেলারাজবাড়ী সদর উপজেলা, পূর্বে শিবালয় উপজেলাহরিরামপুর উপজেলা, পশ্চিমে রাজবাড়ী সদর উপজেলা

প্রশাসনিক এলাকাসম্পাদনা

পৌরসভা ১টি-

গোয়ালন্দ পৌরসভা

ইউনিয়নসমূহঃ

  1. দৌলতদিয়া ইউনিয়ন
  2. দেবগ্রাম ইউনিয়ন
  3. ছোটভাকলা ইউনিয়ন
  4. উজানচর ইউনিয়ন, গোয়ালন্দ

ইতিহাসসম্পাদনা

১৮ শতাব্দীর শেষভাগে কুঁশাহাটা ঘাটে গোয়ালন্দের গোরাপত্তন হয়। দৌলতদিয়া ইউনিয়নের কুঁশাহাট মৌজার পার্শ্বেই ছোট গোয়ালন্দ নামের একটি ছোট মৌজার সন্ধান পাওয়া যায় যা পাবনা জেলার সীমান সংলগ্ন পদ্মা যমুনার সীমা রেখার কাছাকাছি । পদ্মা যমুনার যৌবন জৌলুসের দিনে এক জীঘাংসু প্রকৃতির জলদস্যুর বিচরণ ছিল এ অঞ্চলে। গঞ্জালিশ নামের এ জলদস্যু পদ্মা মেঘনা যমুনায় ডাকাতি করে বেড়াত, যতদূর জানা যায় তার নামানুসারেই গঞ্জালিশ থেকে কালক্রমে গোয়ালন্দ নামের উৎপত্তি । গোয়ালন্দ ঘাটে গ্যাঞ্জেল ঘাট নামক স্থানে অতীতে জাহাজ নোঙ্গর করা হতো। এ পর্যন্ত ১১ বার নদী ভাঙ্গন/চর পড়ার কারণে গোয়ালন্দ ঘাট স্থানান্তরিত করা হয়েছে।

জনসংখ্যার উপাত্তসম্পাদনা

জনসংখ্যাঃ ১,৩৮,২৫৭ জন। ঘনত্বঃ ৭৮৭ জন প্রতিবর্গ কিলোমিটার

শিক্ষাসম্পাদনা

98.8%

অর্থনীতিসম্পাদনা

গোয়ালন্দের মূল অর্থনীতি কৃষি নির্ভর। এছাড়াও এখানে পোল্ট্রি হ্যাচারী শিল্পের বিকাশ ঘটেছে ৯০ এর দশক থেকে যা অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে। অনেক মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে এই পোল্ট্রি হ্যাচারি শিল্পে। এখানে ফিড মিল, প্লাস্টিক ফ্যাক্টরি, স্প্রিড মিল সহ কিছু শিল্প গড়ে উঠেছে যা অর্থনীতির গতি বাড়িয়েছে।

উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিত্বসম্পাদনা

আবু তালেব মোল্লা

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন (জুন ২০১৪)। "এক নজরে গোয়ালন্দ"। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুলাই, ২০১৫  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]

বহিঃসংযোগসম্পাদনা