সিন্ধু-গাঙ্গেয় সমভূমি

(গাঙ্গেয় সমভূমি অঞ্চল থেকে পুনর্নির্দেশিত)

ইন্দো-গাঙ্গেয় সমভূমি হলো একটি ৭০০-হাজার-বর্গকিলোমিটার (১৭২×১০^ একর) উর্বর সমভূমি অঞ্চল। এটি উত্তর ভারতীয় নদী সমভূমি নামেও পরিচিত। এটি ভারতীয় উপমহাদেশের উত্তরাঞ্চল, উত্তর ও পূর্ব ভারতের অধিকাংশ, পাকিস্তানের প্রায় অর্ধেক, কার্যত সমগ্র বাংলাদেশ এবং নেপালের দক্ষিণ সমভূমি জুড়ে অবস্থিত।[১] সিন্ধুগঙ্গা নদীর নামানুসারে এই অঞ্চলের নামকরণ করা হয়েছে। এটি বেশ কয়েকটি বৃহৎ শহুরে এলাকাকে ঘিরে রেখেছে। এই সমভূমিটি উত্তরে হিমালয় দ্বারা আবদ্ধ। হিমালয়ের হিমবাহ থেকে প্রাপ্ত পানিই এই অঞ্চলের নদীর মূল পানিপ্রবাহ সরবরাহ করে। সুতরাং হিমালয়ই দুটি নদী ব্যবস্থার দ্বারা এই অঞ্চল জুড়ে জমা হওয়া উর্বর পলিমাটির উৎস। সমভূমির দক্ষিণ প্রান্তটি দাক্ষিণাত্য মালভূমি দ্বারা চিহ্নিত। এর পশ্চিমে উঠেছে ইরানি মালভূমি। দিল্লি, ঢাকা, কলকাতা, লাহোর এবং করাচির মতো অনেক বৃহৎ, জনবহুল ও উন্নত শহর ইন্দো-গাঙ্গেয় সমভূমিতে অবস্থিত।

ইন্দো-গাঙ্গেয় সমভূমি
ইন্দো-গাঙ্গেয় সমভূমিতে হলুদ আলোর গুচ্ছ উত্তর পশ্চিম থেকে দেখা উত্তর ভারত এবং উত্তর পাকিস্তানের এই ছবিতে বড় এবং ছোট অসংখ্য শহর প্রকাশ করে। কমলা রেখা হল ভারত-পাকিস্তান সীমান্ত

ইতিহাসসম্পাদনা

এই অঞ্চলটি সিন্ধু উপত্যকা সভ্যতার জন্য পরিচিত, যা ভারতীয় উপমহাদেশের প্রাচীন সংস্কৃতির জন্মের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। এখানকার সমতল ও উর্বর ভূখণ্ড মৌর্য সাম্রাজ্য, কুশান সাম্রাজ্য, গুপ্ত সাম্রাজ্য, পাল সাম্রাজ্য, কনৌজ সাম্রাজ্য, ডোগরা রাজবংশ, দিল্লি সালতানাত, মুঘল সাম্রাজ্য এবং মারাঠা সাম্রাজ্য সহ বিভিন্ন সাম্রাজ্যের বারবার উত্থান ও বিস্তারকে সহজতর করেছে। ইন্দো-গাঙ্গেয় সমভূমিতেই এসব রাজশক্তির জনসংখ্যারাজনৈতিক কেন্দ্র অবস্থিত ছিল। ভারতীয় ইতিহাসের বৈদিক ও মহাকাব্য যুগে এই অঞ্চলটিকে "আর্যাবর্ত" (আর্যদের দেশ) হিসাবে উল্লেখ করা হয়েছিল। মনুস্মৃতি (২.২২) অনুসারে, 'আর্যাবর্ত' হল "পূর্ব সাগর (বঙ্গোপসাগর) থেকে পশ্চিম সাগর (আরব সাগর) পর্যন্ত হিমালয় এবং বিন্ধ্য পর্বতাঞ্চলের মধ্যবর্তী অঞ্চল"।[২][৩] ঐতিহাসিকভাবে এই অঞ্চলটিকে "হিন্দুস্তান" বা হিন্দুদের দেশ হিসেবেও উল্লেখ করা হয়।

'হিন্দুস্তান' (हिंदुस्तान) নামটি ফার্সি। এর আক্ষরিক অর্থ হল 'হিন্দু/ভারতীয়দের দেশ'। শব্দটির প্রথম অংশ হিন্দু (हिन्दु) শব্দটি সংস্কৃত শব্দ সিন্ধু (सिंधु) নদী থেকে ধার করা হয়েছিল। যখন স্তান হল সংস্কৃত শব্দ স্থান (स्थान) এর সমার্থক।

শব্দটি পরবর্তীতে সমগ্র ভারতীয় উপমহাদেশকে বোঝাতে ব্যবহৃত হয়। "হিন্দুস্তানি" শব্দটি এই অঞ্চলের মানুষ, সঙ্গীত এবং সংস্কৃতিকে বোঝাতেও ব্যবহৃত হয়।[৪][৫]

১২ শতকে ইন্দো-গাঙ্গেয় সমভূমির বেশিরভাগ অংশ রাজপুতদের দ্বারা শাসিত হয়েছিল। [৬] তাদের মধ্যে সর্বাধিক বিশিষ্ট ছিলেন আজমীরের চৌহান এবং বারাণসীর গহদাবাল বা রাঠোর এবং অনেক ক্ষুদ্র রাজপুত রাজ্য। [৬] ভারতের ঘুরি আক্রমণের আশেপাশে ভারতীয় সামাজিক কাঠামোতেও রাজপুত একটি পৃথক জাতি হিসেবে আবির্ভূত হয়। [৬]

১১৯১ সালে আজমির ও দিল্লির রাজপুত রাজা পৃথ্বীরাজ চৌহান, বেশ কয়েকটি রাজপুত রাজ্যকে একীভূত করেন এবং তরাইনের প্রথম যুদ্ধে তরোয়ারির কাছে শিহাবুদ্দিন মুহাম্মাদ ঘুরির আক্রমণকারী সেনাবাহিনীকে চূড়ান্তভাবে পরাজিত করেন। [৬]

কিন্তু পরের বছরেই শিহাবুদ্দিন মুহাম্মাদ ঘুরি ফিরে আসেন[৭] এবং সংখ্যায় বেশি হওয়া সত্ত্বেও তরাইনের দ্বিতীয় যুদ্ধে একই যুদ্ধক্ষেত্রে পৃথ্বীরাজের রাজপুত কনফেডারেসিকে চূড়ান্তভাবে পরাজিত করেন। পৃথ্বীরাজ যুদ্ধক্ষেত্র থেকে পালিয়ে যান। কিন্তু যুদ্ধক্ষেত্র থেকে শীঘ্রই তাকে বন্দী করা হয় এবং তাকে হত্যা করা হয়। জয়পুরের মালেসি একজন কাচওয়াহা রাজপুত পৃথ্বীরাজ পালিয়ে যাওয়ার পর ঘুরিদের বিরুদ্ধে রাজপুতদের পক্ষে শেষ অবস্থানে নেতৃত্ব দেন।[৬]

রাজপুতদের পরাজয় মধ্যযুগীয় ভারতের ইতিহাসে একটি জলাবদ্ধ মুহূর্ত চিহ্নিত করে। কারণ এটি শুধুমাত্র ইন্দো-গাঙ্গেয় সমভূমিতে রাজপুত শক্তিকে ছিন্নভিন্ন করেনি বরং মুসলিম উপস্থিতিও দৃঢ়ভাবে প্রতিষ্ঠিত করেছে। [৬]

যুদ্ধের পর, দিল্লি সালতানাত এই অঞ্চলে বিশিষ্ট হয়ে ওঠে এবং উত্তর ভারতে সংগঠিত রাজপুত প্রতিরোধের পতনের ফলে এক প্রজন্মের মধ্যে এই অঞ্চলের মুসলিম নিয়ন্ত্রণে চলে যায়।[৬]

ভূগোলসম্পাদনা

 
ইন্দো-গাঙ্গেয় সমভূমির একটি অংশ উত্তর, মধ্য এবং পূর্ব ভারতের পাশাপাশি তার প্রতিবেশী দেশগুলোর উপর

ইন্দো-গাঙ্গেয় সমভূমি দিল্লি রিজ দ্বারা দুটি নিষ্কাশন অববাহিকায় বিভক্ত। এখানকার পশ্চিম অংশ সিন্ধুতে প্রবাহিত হয় এবং পূর্ব অংশ গঙ্গা-ব্রহ্মপুত্র নিষ্কাশন ব্যবস্থা নিয়ে গঠিত। এই বিভাজনটি সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে মাত্র ৩৫০ মিটার উপরে। এর ফলে ধারণা করা হয়, ইন্দো-গাঙ্গেয় সমভূমি পশ্চিমে সিন্ধু থেকে পূর্বে বাংলা এবং আসাম পর্যন্ত অবিচ্ছিন্ন রয়েছে।

হিমালয়ের পাদদেশ এবং সমতলের মধ্যে একটি পাতলা ফালা, ভাবর হল একটি ছিদ্রযুক্ত ভূমির একটি অঞ্চল যা পাহাড় থেকে ভেসে আসা পাথর এবং নুড়ি দ্বারা গঠিত। এটি ফসলের জন্য উপযুক্ত নয় এবং বনভূমি। স্রোতস্বিনী এখানে ভূগর্ভে অদৃশ্য হয়ে যায়।[৮][ভাল উৎস প্রয়োজন]

ভাবরের নীচে তরাইদুয়ারের তৃণভূমি অবস্থিত।

সিন্ধু নদী এবং গঙ্গা নদীর অনেক উপনদী সমতলকে দোআব অঞ্চলের মতো করে বিভক্ত করেছে। এখানকার ভূমি উপনদীগুলোর মিলিত স্থান পর্যন্ত বিস্তৃত। নদীগুলোর কাছাকাছি নতুন পলিমাটির খদ্দর জমি রয়েছে। এসব অঞ্চল বন্যার শিকার হয়। বন্যার সীমার উজানে অবস্থিত বাঙ্গার জাতীয় জমি মধ্যবর্তী প্লাইস্টোসিনে জমা হওয়া পুরানো পলল।[৯] 

বার্ষিক বৃষ্টিপাত এই অঞ্চলের পশ্চিম থেকে পূর্ব দিকে ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পায়।[১০] নিম্ন গঙ্গা সমভূমি এবং আসাম উপত্যকা মধ্য গঙ্গা সমভূমির চেয়ে বেশি সবুজ। নিম্ন গঙ্গা পশ্চিমবঙ্গ থেকে শুরু করে এটি বাংলাদেশ পর্যন্ত প্রবাহিত হয়। ব্রহ্মপুত্রের একটি মূ; শাখা যমুনা নদীতে পরিণত হওয়ার পর উভয় নদীই গাঙ্গেয় ব-দ্বীপ গঠন করে। ব্রহ্মপুত্র তিব্বতে ইয়ারলুং জাংবো নদী হিসেবে প্রবাহিত হয় এবং বাংলাদেশে প্রবেশ করার আগে অরুণাচল প্রদেশআসামের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়।

কিছু ভূগোলবিদ ইন্দো-গাঙ্গেয় সমভূমিকে কয়েকটি ভাগে বিভক্ত করেছেন: গুজরাট, সিন্ধু, পাঞ্জাব, দোয়াব, রোহিলখণ্ড, অবধ, বিহার, বাংলা এবং আসাম অঞ্চল।

মোটামুটিভাবে, ইন্দো-গাঙ্গেয় সমভূমি জুড়ে বিস্তৃত:

উত্তরে জম্মু সমভূমি ;
পূর্ব পাকিস্তান এবং উত্তর-পশ্চিম ভারতের পাঞ্জাব সমভূমি ;
দক্ষিণ পাকিস্তানের সিন্ধু সমভূমি ;
দক্ষিণ পাকিস্তান এবং পশ্চিম ভারতে সিন্ধু ব-দ্বীপ ;
গঙ্গা-যমুনা দোয়াব ;
রোহিলখণ্ড (কাতেহর) সমভূমি ;
অবধ সমভূমি ;
পূর্বাঞ্চল সমভূমি ;
বিহার সমভূমি ;
উত্তরবঙ্গ সমভূমি ;
ভারত ও বাংলাদেশের গঙ্গা বদ্বীপ ;
এবং পূর্বে ব্রহ্মপুত্র উপত্যকা

উর্বর তরাই অঞ্চলটি হিমালয়ের পাদদেশে দক্ষিণ নেপাল এবং উত্তর ভারত জুড়ে বিস্তৃত। এই অঞ্চল জুড়ে বিস্তৃত নদীগুলো হল বিয়াস, চম্বল, চেনাব, গঙ্গা, গোমতী, সিন্ধু, রাভি, সুতলজ এবং যমুনা। এখানকার মাটি পলিতে সমৃদ্ধ।এই বৈশিষ্ট্য এই সমভূমিকে বিশ্বের সবচেয়ে নিবিড়ভাবে চাষ করা এলাকাগুলোর মধ্যে একটি করে তুলেছে। এমনকি গ্রামীণ এলাকাও এখানে ঘনবসতিপূর্ণ

"মহা সমভূমি" নামেও পরিচিত সিন্ধু-গঙ্গা সমভূমি হলো সিন্ধু, গঙ্গা এবং ব্রহ্মপুত্র নদী ব্যবস্থার বৃহৎ প্লাবনভূমি। এই নদীগুলো হিমালয় পর্বতমালার সমান্তরালে চলে যায়। পশ্চিমে জম্মু ও কাশ্মীর এবং খাইবার পাখতুনখাওয়া থেকে পূর্বে আসাম পর্যন্ত এবং উত্তরপূর্ব ভারতের বেশিরভাগ অংশ এই নদীগুলোকে খরস্রোতা করে তুলে। এসব নদী সমতলভূমির ৭০০,০০০ এলাকা জুড়ে রয়েছে এবং তাদের দৈর্ঘ্যের মাধ্যমে প্রস্থে কয়েকশ কিলোমিটারের মধ্যে পরিবর্তিত হয়। এই প্রণালীর প্রধান নদীগুলো হল গঙ্গা এবং সিন্ধু এবং তাদের উপনদী। সেগুলো হলো: বিয়াস, যমুনা, গোমতী, রাবি, চম্বল, সুতলজচেনাব

সিন্ধু-গঙ্গা বেল্ট হল বিশ্বের সবচেয়ে বিস্তৃত নিরবচ্ছিন্ন পলিমাটির বিস্তৃতি। এটি অসংখ্য নদীর পলি জমার ফলে গঠিত। এখানকার সমতল ভূমি সমতল এবং বেশিরভাগই বৃক্ষহীন। এই অঞ্চলকে খালের মাধ্যমে সেচের জন্য উপযোগী করে তোলা হয়। ভূগর্ভস্থ পানির উৎসেও এলাকাটি সমৃদ্ধ। এই সমভূমি বিশ্বের সবচেয়ে নিবিড়ভাবে চাষাবাদ করা এলাকা। এখানকার উৎপাদিত প্রধান ফসল হল ধান এবং গম যা আবর্তিত হয়ে জন্মায়। অন্যান্য ফসলের মধ্যে রয়েছে ভুট্টা, আখ ও তুলা। ইন্দো-গাঙ্গেয় সমতল ভূমি বিশ্বের সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ এলাকার মধ্যে স্থান পেয়েছে। এখানকার মোট জনসংখ্যা ৪০০ মিলিয়নের বেশি।

প্রাণীজগতসম্পাদনা

সাম্প্রতিক ইতিহাস অবধি, সিন্ধু-গঙ্গা সমভূমির উন্মুক্ত তৃণভূমিতে বেশ কয়েকটি বড় প্রজাতির প্রাণীর বসবাস ছিল। উন্মুক্ত সমভূমিতে প্রচুর পরিমাণে তৃণভোজী প্রাণীর বাসস্থান ছিল। যার মধ্যে তিনটি এশিয়ান গন্ডার (ভারতীয় গন্ডার, জাভান গন্ডার, সুমাত্রান গন্ডার) অন্তর্ভুক্ত ছিল। উন্মুক্ত তৃণভূমিগুলো আধুনিক আফ্রিকার ল্যান্ডস্কেপের সাথে অনেকভাবে মিল সম্পন্ন ছিল। গজেল, মহিষ, গন্ডার, হাতি, সিংহ এবং জলহস্তী তৃণভূমিতে ঘুরে বেড়াত। যেমনটি তারা বর্তমান সময়ে আফ্রিকায় করে থাকে। ভারতীয় হাতি, গজেল, হরিণ এবং ঘোড়ার বড় পাল এখন বিলুপ্ত অরোচ সহ বিভিন্ন প্রজাতির বন্য গবাদি পশুর পাশাপাশি বাস করত। বনাঞ্চলে বেশ কিছু প্রজাতির বন্য শূকর, হরিণ ও মুনজ্যাক ছিল। গঙ্গার কাছাকাছি আর্দ্র অঞ্চলে, জলমহিষের বিলুপ্ত প্রজাতির পাশাপাশি নদীর তীরে জল মহিষের বড় পাল থাকত।

তাই অনেক বড় প্রাণী শিকারীদের একটি বিশাল জনসংখ্যাকেও সমর্থন করত। ভারতীয় নেকড়ে, ঢোল, ডোরাকাটা হায়েনা, এশিয়াটিক চিতা এবং এশিয়াটিক সিংহরা খোলা সমভূমিতে বড় শিকার করত। বেঙ্গল টাইগার এবং চিতাবাঘ আশেপাশের জঙ্গলে শিকার করত এবং শ্লথ ভাল্লুক এই উভয় অঞ্চলে উইপোকা শিকার করত। গঙ্গায় ঘড়িয়াল, ছিনতাইকারী কুমির এবং নদীর ডলফিন মাছের মজুদ নিয়ন্ত্রণকারী এবং মাঝে মাঝে পরিযায়ী পাল নদী পার হওয়ার বিশাল ঘনত্ব ছিল।

কৃষিসম্পাদনা

সিন্ধু-গঙ্গা সমভূমিতে কৃষিকাজ প্রাথমিকভাবে শস্য আবর্তনে উত্থিত ধান এবং গম নিয়ে গঠিত। অন্যান্য ফসলের মধ্যে রয়েছে ভুট্টা, বাজরা, বার্লি, আখ এবং তুলা।

বৃষ্টিপাতের প্রধান উৎস হল দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমী বায়ু। এটি সাধারণত সাধারণ কৃষির জন্য যথেষ্ট। হিমালয় থেকে প্রবাহিত অনেক নদী প্রধান সেচ কাজের জন্য জল সরবরাহ করে থাকে।

দ্রুত ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার (পাশাপাশি অন্যান্য কারণগুলোর) কারণে, এই অঞ্চলটিকে ভবিষ্যতে জলের ঘাটতির জন্য উচ্চ ঝুঁকির মধ্যে বিবেচনা করা হয়।

এলাকাটি ব্রহ্মপুত্র নদী এবং আরাবল্লী রেঞ্জের মধ্যবর্তী ভূমি গঠন করে। গঙ্গা এবং অন্যান্য নদী যেমন যমুনা, ঘাঘরা এবং চম্বল নদী এই এলাকার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়।

প্রশাসনিক বিভাগসম্পাদনা

যেহেতু ইন্দো-গাঙ্গেয় সমভূমির সীমানা নির্ধারণ করা সম্পূর্ণরূপে সম্ভব নয়, তাই কোন প্রশাসনিক এলাকা সমতলের অংশ তার সঠিক তালিকা দেওয়াও কঠিন।

সমতলের যে সমস্ত এলাকা সম্পূর্ণ বা অর্ধেকের বেশি সেগুলো হল:

আরও দেখুনসম্পাদনা

  • দোয়াব
  • আর্যাবর্ত
  • ইকোরিজিয়ন: নিম্ন এবং উচ্চ গাঙ্গেয় সমভূমি আর্দ্র পর্ণমোচী বন, তরাই-দুয়ার সাভানা এবং তৃণভূমি, উত্তর-পশ্চিম কাঁটা ঝাড়া বন।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Taneja, Garima; Pal, Barun Deb (২০১৪)। Farmers preferences for climate-smart agriculture: An assessment in the Indo-Gangetic Plain। Intl Food Policy Res Inst। পৃষ্ঠা 2। 
  2. Gopal, Madan (১৯৯০)। India through the ages। Publication Division, Ministry of Information and Broadcasting, Government of India। পৃষ্ঠা 70 
  3. Michael Cook (2014), Ancient Religions, Modern Politics: The Islamic Case in Comparative Perspective, Princeton University Press, p. 68: "Aryavarta ... is defined by Manu as extending from the Himalayas in the north to the Vindhyas of Central India in the south and from the sea in the west to the sea in the east."
  4. "India"। CIA – The World Factbook। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০০৭ 
  5. "Hindustani Classical Music"। Indian Melody। ১১ ডিসেম্বর ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০০৭ 
  6. Jadunath Sarkar 1960
  7. Satish Chandra 2006
  8. "Indo-Gangetic plains: Geography, Facts, Divisions and Importance"General Knowledge Today। ৩ এপ্রিল ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ৩০ মে ২০১৯ 
  9. "Indo-Gangetic plains: Geography, Facts, Divisions and Importance"General Knowledge Today। ৩ এপ্রিল ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ৩০ মে ২০১৯ "Indo-Gangetic plains: Geography, Facts, Divisions and Importance". General Knowledge Today. 3 April 2016. Retrieved 30 May 2019.
  10. Water and the Laws in India। SAGE Publications। ১১ এপ্রিল ২০০৯। পৃষ্ঠা 542–। আইএসবিএন 978-81-321-0424-7