গঙ্গাধর সেন রায়

বাঙালি কবিরাজ ও লেখক

গঙ্গাধর সেন রায় (১৭৯৮ - ১৮৮৫) একজন বাঙালি আয়ুর্বেদ চিকিৎসক ও সংস্কৃত পণ্ডিত ছিলেন।

প্রারম্ভিক জীবনসম্পাদনা

গঙ্গাধর সেন রায় ১৭৯৮ সালে ব্রিটিশ ভারতেমাগুরা জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম ভবানী প্রসাদ সেন রায়। প্রথমে কুলপুরোহিতের নিকট চতুষ্পাঠীতে ব্যাকরণ কাব্য ও প্রাথমিক শিক্ষা পান পরে আঠেরো বছর বয়েসে রাজশাহীর কবিরাজ রমাকান্ত সেনের কাছে আয়ুর্বেদ শাস্ত্রের পাঠ নেন গঙ্গাধর। সেখান থেকে কলকাতা হয়ে মুর্শিদাবাদ জেলার সৈয়দাবাদে আসেন ১৮৮৬ সালে। এর পরে সেখানেই বসবাস করতে থাকেন তিনি। এসময় তার চিকিৎসার খ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে। মহারাণী স্বর্ণময়ীর জমিদারীর তত্ত্ববধায়ক রাজীবলোচন রায়ের সাথে পরিচিত হন ও রাজীবলোচন গঙ্গাধরের পণ্ডিত্যে মুগ্ধ হন। মহারাণী স্বর্ণময়ীর গুরুতর চিকিৎসার ভার ছিল গঙ্গাধরের ওপর।  নবাব পরিবার সহ মুর্শিদাবাদের বিভিন্ন জমিদারদের পারিবারিক চিকিৎসক হিসেবে বহাল হন তিনি। গঙ্গাধর কবিরাজ উপাধি পেয়েছিলেন।[১]

সাহিত্যসম্পাদনা

গঙ্গাধর চিকিৎসাশাস্ত্রের ওপর সংস্কৃত ভাষায় প্রচুর বই রচনা করেছেন। চরক সংহিতার টীকা হিসেবে তার রচিত জলকল্পতরু একটি বিখ্যাত বই। এছাড়া ভারতীয় দর্শন, তর্কবিদ্যা, জ্যোতিষ, তন্ত্র ও সংস্কৃত ব্যকরণের ওপর তার বই আছে। তার অন্যান্য বইগুলির নাম

  • লোকালোকপুরুষীয়
  • দুর্গবধকাব্য[২]
  • কাব্যপ্রভা
  • রাজবিজয়
  • মুগ্ধবোধমহাবৃত

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. দ্বিতীয় খণ্ড। "পাতা:জীবনীকোষ-ভারতীয় ঐতিহাসিক"। সংগ্রহের তারিখ ৯ মে ২০১৮ 
  2. "লেখক:গঙ্গাধর সেন রায়"। সংগ্রহের তারিখ ৯ মে ২০১৮