প্রধান মেনু খুলুন

ক্যাচ-২২ (ইংরেজি: catch-22) হলো একপ্রকারের কূটাভাসিক পরিস্থিতি যেখানে বিপরীতধর্মী নিয়মনীতি ও সীমাবদ্ধতার জন্যে কোন ব্যক্তিবিশেষ এটাকে এড়াতে পারে না। [১][২] আমেরিকান ঔপন্যাসিক জোসেফ হেলার এ শব্দটি প্রথম তার ১৯৬১-এর উপন্যাস "ক্যাচ-২২"-তে ব্যবহার করেন।

একটি উদাহরণ হলো:

“আমার অভিজ্ঞতা না থাকার দরুণ যদি আমি চাকরিই না পাই, আমি অভিজ্ঞতা অর্জন করবো কীভাবে?”[৩]

ক্যাচ-২২ সমূহ অধিকাংশক্ষেত্রে নিয়মনীতি, প্রক্রিয়া থেকে উদ্ভব হয়, যেখানে ব্যক্তিবিশেষ ভুক্তভোগী কিন্তু বিষয়টির উপর তার কোন নিয়ন্ত্রণ নেই, কারণ নিয়মটির সাথে লড়াই করার মানেই হচ্ছে নিয়মটি মেনে নেয়া।

অন্য একটি উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, কিছু বিষয় শুধু তখনই অর্জন করা যায়, যখন তার প্রয়োজন থাকে না (যেমন, যার অর্থ প্রয়োজন তাকে ব্যাংক কখনও ঋণ দিবে না)। শব্দটি দ্বারা আবার বুঝায় যে "ক্যাচ-২২"-এর নির্মাতারা তাদের ক্ষমতার অপব্যবহারকে ন্যয্যতা দেয়ার জন্যে কিছু যুক্তবহির্ভূত নিয়মের প্রচলন করেছে।

মূল ও অর্থসম্পাদনা

জোসেফ হেলার তার ১৯৬১ সালের উপন্যাস ক্যাচ-২২-এ প্রথম এ শব্দটির ব্যবহার করেন, যেখানে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সৈন্যদের উপর অর্থহীন আমলাতান্ত্রিক অবরোধের কথা বলা হয়। ডক ড্যানিকা নামে একজন মনোবিশারদ এ শব্দটির সাথে পরিচয় করিয়ে দেন, যিনি কেন বিমানচালকরা মারাত্মক অভিযানগুলো এড়াতে মানসিকভাবে সুস্থ না বুঝানোর জন্যে মানসিক মূল্যায়নের আবেদন করে, যা বুঝায় সে মানসিকভাবে সুস্থ এবং অসুস্থ হতে পারে না। এ শব্দদ্বয় একই সাথে এমন একধরণের উভয়সংকট বুঝায় যেখানে পরস্পর বিরোধী অথবা নির্ভর শর্তাদীর জন্যে পালানোর কোন সুযোগ নেই।[৪]

"You mean there's a catch?"

"Sure there's a catch," Doc Daneeka replied. "Catch-22. Anyone who wants to get out of combat duty isn't really crazy."

There was only one catch and that was Catch-22, which specified that a concern for one's own safety in the face of dangers that were real and immediate was the process of a rational mind. Orr was crazy and could be grounded. All he had to do was ask; and as soon as he did, he would no longer be crazy and would have to fly more missions. Orr would be crazy to fly more missions and sane if he didn't, but if he was sane, he had to fly them. If he flew them, he was crazy and didn't have to; but if he didn't want to, he was sane and had to. Yossarian was moved very deeply by the absolute simplicity of this clause of Catch-22 and let out a respectful whistle.

সাহিত্যের অধ্যাপক ইয়ান গ্রেগসনের মতে, এ বৃদ্ধার বক্তব্যে ক্যাচ-২২ হলো কুতর্ককে একপাশে সরিয়ে রেখে সরাসরিভাবে ক্ষমতার নির্মম ব্যবহার।[৫]

২২ সংখ্যাটির বিশেষত্বসম্পাদনা

হেলার মূলত এ শব্দগুচ্ছটি অন্য সংখ্যা দিয়ে তৈরী করতে চেয়েছিলেন, কিন্তু তিনি ও তার প্রকাশক শেষ পর্যন্ত এ ২২ সংখ্যাটিতেই এসে ঠেকলেন। সংখ্যাটির বিশেষ কোন বিশেষত্ব নেই। শ্রুতিমধুরতাই ছিলো সংখ্যাটি ব্যবহারের মূল কারণ। শিরোনাম প্রথমে ছিলো ক্যাচ-১৮, কিন্তু জনপ্রিয় মিলা ১৮ প্রকাশিত হওয়ার পর হেলার এর নাম পরিবর্তন করেন।

ব্যবহারসম্পাদনা

"ক্যাচ-২২"-এর ব্যবহার ইংরেজি ভাষায় ক্রমেই বেড়ে চলছে। ১৯৭৫ সালের একটি সাক্ষাৎকারে হেলার বলেন, শব্দটি অন্যভাষায় সম্পূর্ণরূপে অনুবাদ সম্ভব না।[৬]

জেমস ই. কম্বস ও ড্যান ডি. নিমো বলেন বর্তমানে এ শব্দটির বিপুল জনপ্রিয়তার মূল কারণ আধুনিক সমাজেত বিশাল একটি অংশ এ আমলাতান্ত্রিক যৌক্তিকতায় হতাশ হয়ে পড়ে।

জর্জ ওরওয়েলের ডাবলথিংকের সাথে সাথে ক্যাচ-২২ বিপরীতধর্মী নিয়মের মধ্যে বন্দী হওয়ার বিধেয়কে বর্ণনার সবচেয়ে পরিচিত কয়েকটি উপায়ের একটি হয়ে উঠেছে।[৭]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "ক্যাচ-২২"র‍্যান্ডম হাউজ ডিকশনারি। ২০১২। 
  2. "ক্যাচ-২২ ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১০ নভেম্বর ২০১৩ তারিখে", অক্সফোর্ড অ্যাডভান্সড লার্নার্স ডিকশনারি, সংগ্রহের তারিখ ১৪ এপ্রিল ২০১৯।
  3. স্মিথ, জেকেলিন। "যখন চাকরিদাতার অভিজ্ঞতার প্রয়োজন, আর তোমার তা নেই"ফোর্বস। সংগ্রহের তারিখ ১৪ এপ্রিল ২০১৯ 
  4. বাইডলার, ফিলিপ ডি. (১৯৯৫)। কোন এক প্রজন্মের বাইবেল, ৬০-এর দশকে আমরা যা পড়ছিলাম। পৃষ্ঠা ১৬২। আইএসবিএন 978-0820317878It is Catch-22: Dr. Daneeka explains how anybody who is crazy has a right to ask to be removed from combat status but how anybody who asks is revealing a rational concern for his own safety that makes him not crazy; 
  5. ইয়ান গ্রেগসন, যুদ্ধ পরবর্তী ফিকশনে বিদ্রূপ ও চরিত্র; লন্ডন: কন্টিনাম, ২০০৬; আইএসবিএন ৯৭৮১৪৪১১৩০০০৬; পৃষ্ঠা ৩৮.
  6. "যেকোন নামের এক ধ্রুপদী", দ্যা টেলিগ্রাফ, ১৮ নভেম্বর ২০০৭।
  7. রিচার্ড কিং, "২২ থেকে ৫০: অর্ধশতাব্দী পর, পৃথিবীটি ক্যাচ-২২তে ভরে উঠেছে"; দ্যা স্মার্ট সেট, ২০ জুলাই ২০১১