কাশ্মীরি হস্তশিল্প

কাশ্মীরি হস্তশিল্প হলো কাশ্মীরি জনগণ এবং স্বহস্তে প্রস্তুতকৃৃৃত বস্তু তৈরি করে আনুষঙ্গিক জিনিসপত্রে নৈপুণ্যের সহিত সাজিয়ে তোলা কারিগরদের কাছে একটি ঐতিহ্যবাহী শিল্প। মধ্য কাশ্মীরের শ্রীনগর, গণ্ডেরবাল এবং বড়গাম জেলা বহু বছর ধরে হস্তশিল্পজাত পণ্য তৈরি করে চলেছে। শ্রীনগর, গণ্ডেরবাল এবং বড়গাম সহ ভারতের জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যের কাশ্মীরের অন্যান্য জেলাগুলি দেশজুড়ে তাদের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য তথা হস্তশিল্পকে প্রসারিত করে চলেছে।

আখরোট কাঠের ওপর কাশ্মীরি কারিগরের খোদাই, যা কাশ্মীরের আখরোট কাঠের খোদাই নামে পরিচিত

কাশ্মীরের শিল্পকলার মধ্যে পাল্কির কাজ, বিছানার চাদর, হাতির দাঁতের কাজ, কালিদানি, বাক্স এবং চামচ সারা ভারতবর্ষে বিখ্যাত, তদুপরি কাশ্মীরি শাল ব্যতিক্রমীভাবে সমাদৃত। কাশ্মীরিরা ঐতিহ্যগতভাবে সুদর্শন হস্তশিল্প পণ্য তৈরি করে চলেছেন। কয়েকটি উল্লেখযোগ্য উৎপাদন ক্ষেত্র হলো টেক্সটাইল, কার্পেট ও কম্বল, চিকণের কাজ, ফুল কড়ি, রূপার ওপর শিল্পকলা, কাঠের কাজ এবং কাগজমণ্ড শিল্প ইত্যাদি। এই হস্তশিল্পই কাশ্মীরের কারিগরদের জীবনধারণ ও জীবিকার উৎস।[১][২]

কাশ্মীরি কাগজমণ্ড শিল্পসম্পাদনা

ইরান|পারস্য থেকে মুসলমান প্রচারক মীর সৈয়দ আলি হামাদানি খ্রিস্টীয় চতুর্দশ শতাব্দীর মধ্যযুগীয় ভারত|মধ্যযুগীয় ভারতে এই কাগজমণ্ড শিল্প নিয়ে এসেছিলেন। এটি মূলত কাগজের সজ্জার উপর ভিত্তি করে তৈরি, এবং এটি একটি সজ্জিত, রঙিন নিদর্শন; সাধারণত ফুলদানি, বাটি বা কাপ (ধাতব রিমগুলি সহ এবং এর বাইরে), বাক্স, ট্রে, ল্যাম্পের ঘাঁটি এবং অন্যান্য অনেকগুলি ছোট ছোট বস্তুর আকারে।

কাশ্মীরের আখরোট কাঠের খোদাইসম্পাদনা

কাশ্মীরের আখরোট কাঠের খোদাই হলো সূক্ষ্ম কাঠের খোদাইয়ের কারুকাজ। কাশ্মীর অঞ্চলে ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পাওয়া জাগলানস রেজিয়া গাছ (আখরোট গাছ) কাঠের খোদাইয়ের জন্য ব্যবহৃত হয়৷ এবং আখরোট গাছের প্রাচুর্যের জন্য বিশ্বের কয়েকটি জায়গার মধ্যে কাশ্মীর অন্যতম, টেবিল, গহনার বাক্স, ট্রে ইত্যাদি তৈরিতে তাই আখরোটের কাঠ ব্যবহার করা হয়৷

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Raina, Mohini Qasba (২০১৪-১১-১৩)। Kashur The Kashmiri Speaking People (ইংরেজি ভাষায়)। Partridge Publishing Singapore। আইএসবিএন 978-1-4828-9945-0 
  2. Rafiabadi, Hamid Naseem (২০০৫)। Saints and Saviours of Islam (ইংরেজি ভাষায়)। Sarup & Sons। আইএসবিএন 978-81-7625-555-4 

আরো দেখুনসম্পাদনা