প্রধান মেনু খুলুন

কানসাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর

জাপানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর

কাইসাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ওসাকা স্টেশন থেকে ৩৮ কিলোমিটার দূরে হনশু উপকূলে ওসাকা উপসাগরের মাঝে কৃত্রিম দ্বীপে স্থাপিত একটি বিমানবন্দর।[৩] বিমানবন্দরটি জাপানের ওসাকা প্রশাসনিক অঞ্চলের ইজুমিসানো (উত্তর),[৪] সেনানান (দক্ষিণ),[৫] এবং তাজিরি (কেন্দ্রীয়),[৬] সহ তিনটি পৌরসভার অন্তর্গত।

সানসাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর
関西国際空港
Kansai Kokusai Kūkō
Kansai International Airport Logo.png
Kix aerial photo.jpg
সংক্ষিপ্ত বিবরণ
বিমানবন্দরের ধরনজনসাধারন
পরিচালককাইসাই বিমানবন্দর[১]
সেবা দেয় বৃহত্তর ওসাকা অঞ্চল
অবস্থান ইজুমিসানো, সেনান্ন এবং তাজিরি
ওসাকা, জাপান
যে হাবের জন্য
এএমএসএল উচ্চতা৫ মিটার / ১৭ ফুট
স্থানাঙ্ক৩৪°২৬′০৩″ উত্তর ১৩৫°১৩′৫৮″ পূর্ব / ৩৪.৪৩৪১৭° উত্তর ১৩৫.২৩২৭৮° পূর্ব / 34.43417; 135.23278স্থানাঙ্ক: ৩৪°২৬′০৩″ উত্তর ১৩৫°১৩′৫৮″ পূর্ব / ৩৪.৪৩৪১৭° উত্তর ১৩৫.২৩২৭৮° পূর্ব / 34.43417; 135.23278
ওয়েবসাইটwww.kansai-airport.or.jp/en/index.asp
মানচিত্র
কেআইএক্স আরজেবিবি জাপান-এ অবস্থিত
কেআইএক্স আরজেবিবি
কেআইএক্স
আরজেবিবি
জাপানে অবস্থান
রানওয়েসমূহ
দিকনির্দেশনা দৈর্ঘ্য পৃষ্ঠতল
মি ফুট
০৬আর/২৪এল ৩,৮০০ ১২,৪৬৭ অ্যাসফাল্ট কংক্রিট
০৬এল/২৪আর ৪,০০০ ১৩,১২৩ আস্ফাল্ট কংক্রিট
পরিসংখ্যান (২০১৭)
উড়ান সংখ্যা১,৮৫,১৭৪
(বৃদ্ধি ৫%)
যাত্রী সংখ্যা২,৭৯,৮৭,৫৬৪
(বৃদ্ধি ১১%)
আন্তর্জাতিক যাত্রী সংখ্যা২,১১,৩৮,৯২৮
(বৃদ্ধি ১৩%)
পণ্য (টন)৮,২৪,৪৮৫
(বৃদ্ধি ১৪%)
আন্তর্জাতিক পণ্য (টন)৮,১৪,৭০৪
(বৃদ্ধি ১৫%)

ওসাকা শহরের কাছাকাছি অবস্থিত এবং কেবলমাত্র অভ্যন্তরীণ বিমান চালনা করে ওসাকা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে উপচে পড়া ভিড় থেকে মুক্তি দিতে কানসাই বিমানবন্দর ১৯৯৪ সালের ৪ সেপ্টেম্বর উদ্বোধন করা হয়। এটি দুটি টার্মিনাল নিয়ে গঠিত: টার্মিনাল ১ এবং টার্মিনাল ২। ইতালীয় স্থপতি রেনজো পিয়ানো দ্বারা নকশা করা টার্মিনাল ১ বিশ্বের দীর্ঘতম বিমানবন্দর টার্মিনাল, যার দৈর্ঘ্য ১.৭ কিলোমিটার (১.১ মাইল)। বিমানবন্দরটি অল নিপ্পন এয়ারওয়েজ, জাপান এয়ারলাইন্স, এবং নিপ্পন কার্গো এয়ারলাইন্সের একটি আন্তর্জাতিক কেন্দ্র হিসাবে কাজ করে এবং জাপানের প্রথম আন্তর্জাতিকভাবে স্বল্প ব্যয়ের বাহক পীচ-এর কেন্দ্র হিসাবেও কাজ করে।

২০১৬ সালে, ২৫.২ মিলিয়ন যাত্রী পরিবহন করে বিমানবন্দরটি এশিয়ার ৩০ তম এবং জাপানের তৃতীয় ব্যস্ততম বিমানবন্দর হিসাবে মর্যাদা লাভ করে। বিমানবন্দরটি দ্বারা পণ্য পরিবহনের পরিমাণ ছিল ৮,০২,১৬২ টন, যার মধ্যে ৭,৫৭,৪১৪ টন ছিল আন্তর্জাতিক (বিশ্বে ১৮ তম), এবং ৪৪,৭৪৮ টি গার্হস্থ্য পণ্য ছিল।[৭] ৪,০০০ মি × ৬০ মিটার (১৩,১২৩ ফুট × ১৯৭ ফুট) পরিমাপের দ্বিতীয় রানওয়েটি ২ আগস্ট ২০০৭ সালে খোলা হয়। জুন ২০১৪ সালের মধ্যে এশিয়া এবং অস্ট্রেলেশিয়ায় ৭৮০ টি সাপ্তাহিক উড়ান (মালবাহী ১১৯ টি সহ), ৫৯ টি ইউরোপ এবং মধ্যপ্রাচ্যে সাপ্তাহিক উড়ান (মালবাহী ৫ টি) এবং উত্তর আমেরিকাতে সাপ্তাহিক ৮০ টি উড়ান (মালবাহী ৪২ টি) দ্বারা কানসাই বিমানবন্দর একটি এশিয়ান হাব হয়ে উঠেছে।[৮]

ইতিহাসসম্পাদনা

১৯৬০- এর দশকে, যখন কানসাই অঞ্চলটি দ্রুত টোকিওর বিপরীতে বাণিজ্য হারাচ্ছিল, তখন পরিকল্পনাকারীরা কোবে এবং ওসাকার কাছে একটি নতুন বিমানবন্দর নির্মাণের প্রস্তাব করে। ওসাকা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, ঘনবসতিপূর্ণ শহরতলির ইতামি এবং টয়োনাকায় অবস্থিত। বিমানবন্দরটি চারপাশে উচু ভবন দ্বারা বেষ্টিত ছিল; ফলে এটি প্রসারিত করা সম্ভব ছিল না এবং বিমানবন্দরের অনেকেই শব্দদূষণ সমস্যার কারণে অভিযোগ দায়ের করেন।

নতুন টোকিও আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর (বর্তমানে নারিতা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর), যেটি চিবা প্রশাসনিক অঞ্চলের একটি গ্রামাঞ্চলে জমি নিয়ে নির্মিত হয়, এর আশেপাশের বিক্ষোভের পরে পরিকল্পনাকারীরা কানসাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরটি সমুদ্রের মধ্যে নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। নতুন বিমানবন্দরটি ওসাকাকে পুনরুজ্জীবিত করার জন্য বেশ কয়েকটি নতুন ঘটনার অংশ ছিল, যা শতাব্দীর বেশিরভাগ সময় ধরে টোকিওর বিপরীতে অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রটি হারাচ্ছিল।[৯]

প্রাথমিকভাবে, বিমানবন্দরটি কোবের নিকটে নির্মিত হবে বলে পরিকল্পনা করা হয়, কিন্তু কোবে শহর পরিকল্পনাটি প্রত্যাখ্যান করে, তাই বিমানবন্দরটি ওসাকা উপসাগরের আরও দক্ষিণাঞ্চলে স্থানান্তরিত হয়। সেখানে এটি শহরের পূর্বসূরী বিমানবন্দরের বিপরীতে ২৪ ঘন্টা সচল থাকবে।

নির্মাণসম্পাদনা

 
ওসাকা উপসাগরে অবস্থিত কানসাই বিমানবন্দরের (নীচে- ডান দিকের দ্বীপ) উপগ্রহ চিত্র। ছবির মাঝখানে অবস্থিত কোবে বিমানবন্দর অসম্পূর্ণ দ্বীপে নির্মিত হচ্ছে। ওসাকা আন্তর্জাতিক-এর সঙ্গে সমান্তরালে ছবির উপরে-ডান কোণে কেন্দ্রীয় ওসাকাকে দেখা যাচ্ছে।
 
বিমানবন্দরের মানচিত্র।

কৃত্রিম দ্বীপটি ৪ কিলোমিটার লম্বা এবং ২.৫ কিলোমিটার চওড়া। প্রকৌশলীরা একে এমনভাবে নির্মাণ করেন যেন ভূমিকম্প কিংবা টাইফুনে ঝুঁকির মধ্যে না পড়ে। ১৮ মিটার গভীরতা জলের নীচে ২০ মিটার গভীরতা নরম হলসিন মাটি রয়েছে, যার মধ্যে জলের পরিমাণ ৭০%।[১০][১১][১২][১৩] জল অপসারণ এবং কাদামাটি দৃঢ় করার জন্য এক মিলিয়ন বালির নালা মাটির মধ্যে তৈরি করা হয়।[১২][১৩]

দ্বীপ নির্মাণের কাজ শুরু হয় ১৯৮৭ সালে শেষ হয় ১৯৮৯ সালে। দ্বীপটি নির্মাণ করা হয় ৪৮০০০ কংক্রিটের ব্লক দ্বারা। তিনটি পর্বত থেকে ২১ মিলিয়ন ঘন মিটার (২৭ মিলিয়ন কিউবিক ওয়াইডি) মাটি ও পাথর খনন করা হয় এবং ১৮০ মিলিয়ন ঘন মিটার (২৪০ মিলিয়ন কিউবিক ওয়াইডি) মাটি ও পাথর দ্বীপের নির্মাণের জন্য ব্যবহৃত হয়।[১১] ১০,০০০ জন শ্রমিক এবং তিন বছরেরও বেশি সময় ধরে দশ মিলিয়ন কর্ম ঘণ্টা কাজ করে আশিটি জাহাজ ব্যবহার করে সমুদ্রের তলের উপর এবং সমুদ্রের প্রাচীরের অভ্যন্তরে পৃথিবীর ৩০-মিটার (৯৮ ফুট) (বা ৪০ মিটার)[১১] স্তরটি সম্পূর্ণ করে। ১৯৯০ সালে, $১ বিলিয়ন ডলার ব্যয়ে, রিঙ্কু শহরের মূল ভূখণ্ডের সাথে দ্বীপটির সংযোগ স্থাপনের জন্য তিন কিলোমিটার দীর্ঘ সেতুর নির্মাণ সম্পন্ন হয়। কৃত্রিম দ্বীপটি সম্পূর্ণ করার ফলে ওসাকা প্রদেশের ভূমিভাগের আয়তন যথেষ্ট পরিমাণে বৃদ্ধি পায় এবং এটি এখন আর জাপানের ক্ষুদ্রতম প্রশাসনিক অঞ্চল নয় (কাগাওয়া প্রশাসনিক অঞ্চল এখন সবচেয়ে ছোট)।

১৯৮০ এর দশকের শেষদিকে এবং ১৯৯০ এর দশকের গোড়ার দিকে বিমানবন্দরটির দরপত্র ঘোষণা এবং নির্মাণ আন্তর্জাতিক বাণিজ্য সঙ্ঘর্ষের একটি উৎস ছিল। প্রধানমন্ত্রী ইয়াসুহিরো নাকাসোনে আমেরিকান উদ্বেগের জবাব দিয়েছিলেন, বিশেষত সিনেটর ফ্র্যাঙ্ক মারকোভস্কির কাছ থেকে আসা উদ্বেগের। সম্ভাব্য আন্তর্জাতিক ঠিকাদারদের জন্য বিশেষ কার্যালয় সরবরাহ করে দরপত্র জালিয়াতি কররা চেষ্টা করার হয় জাপানি সংস্থাগুলিকে প্রকল্প থেকে দূরে রাখতে,[১৪] যা শেষ পর্যন্ত বিদেশি ঠিকাদারদের অংশগ্রহণকে স্বাচ্ছন্দিত করতে খুব কমই উপযোগী হয়।[১৫] পরে, বিদেশী বিমান সংস্থাগুলি অভিযোগ করেছিল যে, প্রস্থান কাউন্টারের স্থানের দুই-তৃতীয়াংশ জাপানিজ বিমান সংস্থাগুলিকে বরাদ্দ দেওয়া হয়, যা বিমানবন্দরের মাধ্যমে যাত্রী পরিবহনে প্রকৃত বিমান সংস্থাগুলির অস্বচ্ছলতা ঘটায়।[১৬]

নির্মাণের জন্য ব্যবহৃত সামগ্রীর ওজনে সমুদ্রের তলদেশের মাটি সংকুচিত হওয়ার কারণে অনুমান অনুসারে সর্বোচ্চ এই দ্বীপটি ৫.৭ মিটার (১৯ ফুট) ডুবে যাওয়ার পূর্বাভাস করা হয়। তবে, ১৯৯৯ সালের মধ্যে দ্বীপটি ৮.২ মিটার (২৭ ফুট) ডুবে গেছে - এটি পূর্বাভাসের চেয়ে অনেক বেশি। প্রকল্পটি ২০ বছরের পরিকল্পনার পরে, তিন বছরের নির্মাণ এবং পনের হাজার কোটি (মার্কিন) ডলার বিনিয়োগের পরে আধুনিক ইতিহাসের সবচেয়ে ব্যয়বহুল সিভিল ওয়ার্কস প্রকল্পে পরিণত হয়। এই প্রকল্প থেকে শিক্ষা নিয়ে কিতাব্যু বিমানবন্দর, কোবে বিমানবন্দর এবং চৌবু সেন্টারায়ার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের জন্য কৃত্রিম দ্বীপ নির্মাণে সফল ভাবে মাটি দ্বারা সমুদ্র ভরাট করা হয়। হংকং আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণে কানসাই বিমানবন্দরের প্রযুক্তি ও অভিজ্ঞতা প্রয়োগ করা হয়। [১]]

১৯৯১ সালে, টার্মিনালটির নির্মাণ কাজ শুরু হয়। দ্বীপের ডুবে যাওয়ার ক্ষতিপূরণ করতে জন্য, টার্মিনাল ভবনকে দৃঢ় ভাবে ধরে রাখার জন্য সামঞ্জস্যযোগ্য কংক্রিটের খুঁটি (কলামগুলি) তৈরি করা হয়। ঘাঁটির ভিতে মোটা ধাতব প্লেটগুলি ব্যবহার করা হয়। সরকারি আধিকারিকরা ব্যয় কমানোর জন্য টার্মিনালের দৈর্ঘ্য হ্রাস করার প্রস্তাব করে, তবে স্থপতি রেনজো পিয়ানো টার্মিনালটিকে তার সম্পূর্ণ পরিকল্পনা অনুযায়ী রাখার জন্য জোর দিয়েছিলেন। [১৮] ১৯৯৪ সালের ৪ সেপ্টেম্বর বিমানবন্দরটি খোলা হয়। [১৯]

১৭ ই জানুয়ারী, ১৯৯৫ সালে জাপানের [কোবে]] ভূমিকম্পে আক্রান্ত হয়, যার কেন্দ্রস্থল কেআইএক্স থেকে প্রায় ২০ কিলোমিটার (১২ মাইল) দূরে ছিল এবং জাপানের মূল দ্বীপ হোনশুতে ৬,৪৩৪ জন নিহত হয়। ভূমিকম্প প্রতিরোধী প্রকৌশলের কারণে, বিমানবন্দরটি অক্ষত থাকে ভূমিকম্পের পরে, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে স্লাইডিং জোড়গুলির ব্যবহারের কারণে। এমনকি জানালার কাঁচগুলি অক্ষত ছিল। ১৯৯৮ সালে, বিমানবন্দর ২০০ কিলোমিটার/ঘন্টা (১২০ মাইল) এর বাতাসের গতিতে একটি টাইফুন থেকে অক্ষত থাকে।

১৯ এপ্রিল ২০০১ সালে বিমানবন্দরটি আমেরিকান সোসাইটি অফ সিভিল ইঞ্জিনিয়ার্স কর্তৃক "সহস্রাব্দের স্থাপত্য প্রকৌশলবিদ্যা স্মৃতিসৌধ" পুরষ্কার প্রাপ্ত দশটি কাঠামোর মধ্যে একটি ছিল।[১৭]

২০০৮ সালের মধ্যে কানসাই বিমানবন্দরের মোট ব্যয় ছিল ২০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, জমি পুনরুদ্ধার, দুটি রানওয়ে, টার্মিনাল এবং সুবিধা সহ। বেশিরভাগ অতিরিক্ত ব্যয় শুরুতে দ্বীপটি ডুবে যাওয়ার কারণে হয়, যা ওসাকা উপসাগরের নরম মাটির কারণে প্রত্যাশিত ছিল। নির্মাণের পরে ডুবে যাওয়ার হারকে এত মারাত্মক হিসাবে বিবেচনা করা হয়েছিল যে বিমানবন্দরটি ভূ-প্রযুক্তিগত প্রকৌশল বিপর্যয় হিসাবে ব্যাপক সমালোচিত হয়। ডুবির হার ১৯৯৪ সালে প্রতি বছর ৫০ সেমি (২০ ইঞ্চি) থেকে হ্রাস পেয়ে ২০০৮ সালে প্রতি বছরে ৭ সেন্টিমিটার (২.৮ ইঞ্চি) হয়।[১৮]

পরিচালনাসম্পাদনা

 
পটভূমিতে টার্মিনাল ভবন'সহ কানসাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর
 
টার্মিনালের এয়ারফয়েল ছাদ চিত্রিত করে চতুর্থ তলটির টিকিটিং হল।

১৯৯৪ সালের ৪ সেপ্টেম্বর চালু হওয়া বিমানবন্দরটি অল নিপন এয়ারওয়েজ, জাপান এয়ারলাইনস এবং নিপ্পন কার্গো এয়ারলাইন্সের মতো কয়েকটি বিমান সংস্থার কেন্দ্র হিসাবে কাজ করে। এটি জাপানের কানসাই অঞ্চলের আন্তর্জাতিক প্রবেশদ্বার, যেখানে কয়োটো, কোবে এবং ওসাকার মত প্রধান শহর রয়েছে। কানসাইয়ের অন্যান্য অভ্যন্তরীণ বিমানগুলি ইটামিতে অবস্থিত পুরানো তবে বেশি স্বাচ্ছন্দ্য যুক্ত ওসাকা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর অথবা আরও নতুন কোবে বিমানবন্দর থেকে।

বিমানবন্দর গভীরভাবে ঋণ জড়িত হয়ে পরে, প্রতি বছর $৫৬০ মিলিয়ন ডলারের ক্ষতি হছিল। উচ্চ অবতরণ করের জন্য উড়োজাহাজগুলি (প্রায়, $৭,৫০০ ডলার বোয়িং ৭৪৭ বিমানের জন্য) বিমানবন্দরটি এড়িয়ে চলাচল করত, যা নরিতার পরে বিশ্বের দ্বিতীয় ব্যয়বহুল বিমানবন্দর ছিল। বিমানবন্দরের পরিচালনার শুরুর বছরগুলিতে, অতিরিক্ত টার্মিনাল ভাড়া এবং সাইটে ছাড়ের জন্য ইউটিলিটি বিলগুলিও পরিচালনা ব্যয় বাড়িড়ানলেছিল: বিমানবন্দর খোলার আগে কিছু অনুমান করা হয়ে ছিল যে এক কাপ কফির জন্য ১০ মার্কিন ডলার ব্যয় করতে হবে।[১৯] ওসাকা ব্যবসায়ী মালিকরা বিমানবন্দরটিকে যাত্রী ও বিমান সংস্থাগুলির কাছে আকর্ষণীয় রাখতে নির্মাণ ব্যয়ের একটি আরও বেশি বোঝা নেওয়ার জন্য সরকারকে চাপ দিয়েছিল।[২০]

১৭ ফেব্রুয়ারী ২০০৫ সালে ওসাকার ঠিক পূর্বদিকে নাগোয়াতে চুবু সেন্টারায়ার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরটি চালু হয়। বিমানবন্দরটি খোলার ফলে জাপানের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরগুলির মধ্যে প্রতিযোগিতা বাড়বে বলে আশা করা হয়। এ সত্ত্বেও, ২০০৫-২০০৪ সালে যাত্রী সংখ্যা ১১% বেড়েছে এবং ২০০৬ সালে আন্তর্জাতিক যাত্রী বেড়েছে ৩.১০ মিলিয়ন, যা ২০০৫ সালের তুলনায় ১০% বেশি। ২০০৬ সালে এই প্রতিযোগিতার সাথে যুক্ত হয় ২৫ কিমি (১৬ মাইল) এর কম দূরে অবস্থিত কোবে বিমানবন্দর এবং ২০০৭ সালে শিকোকুর টোকুশিমা বিমানবন্দরে রানওয়ের দৈর্ঘ্য বৃদ্ধি। টোকিও অঞ্চলের বিমানবন্দরগুলি মারাত্মকভাবে যানজটের কারণে এই বিস্তারের পিছনে মূল যুক্তি ছিল এশিয়ার প্রবেশদ্বার হিসাবে পরিচিত ইনছন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এবং হংকং আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করা। কনসাইয়ে ২০১৩ সালের গ্রীষ্মকালে আন্তর্জাতিক যাত্রী ৫%-বছরে বৃদ্ধি পায়, চীন এবং দক্ষিণ কোরিয়াগামী উড়ান হ্রাস পেয়ে তাইওয়ান এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় স্বল্প মূল্যের বিমান সংস্থার উরান মূলত সমর্থন করে বিমানবন্দরকে।[২১]

২০১৩ অর্থবছরের জন্য বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষকে সরকারি সহায়তায় ৪ বিলিয়ন ইয়েন বরাদ্দ দেওয়া হয় এবং ভূমি, অবকাঠামো ও পরিবহন ও অর্থ মন্ত্রক ২০১৫ অর্থবছরের মধ্যে এই অর্থ বরাদ্দ হ্রাস করতে সম্মত হয়, যদিও কানসাই অঞ্চলের স্থানীয় সরকারগুলি অব্যাহত ভর্তুকির জন্য চাপ দেয়।[২২]

বৃহত্তর টোকিও অঞ্চল থেকে আন্তর্জাতিক যাত্রীদের জন্য নারিতা বিমানবন্দরের বিকল্প হিসাবে কানসাই বিমানবন্দরকে তুলে ধরা হয়। হানেদা বিমানবন্দর থেকে কানসাই'তে উড়ে গিয়ে সেখানে আন্তর্জাতিক উড়ানের সাথে সংযোগ স্থাপন করে যাত্রীরা। এই ক্ষেত্রে যাত্রীরা নারিতা যাওয়ার জন্য অতিরিক্ত সময়টি সাশ্রয় করতে পারবে: কানাগাওয়া প্রশাসনিক অঞ্চল এবং দক্ষিণ টোকিওর অনেক বাসিন্দার জন্য দেড় ঘন্টা পর্যন্ত সাশ্রয়কারী।

সম্প্রসারণসম্পাদনা

 
কানসাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নির্মাণাধীন দ্বিতীয় ধাপ।

বিমানবন্দরটি ব্যস্ত সময়ে পরিচালনা ক্ষমতার সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌছেছিল, বিশেষত মালবাহী বিমানের কারণে, তাই দ্বিতীয় ধাপের সম্প্রসারণের একটি অংশ - দ্বিতীয় রানওয়ে নির্মাণকে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়।[২৩] সুতরাং, ২০০৩ সালে, ডুবে যাওয়ার সমস্যাটি প্রায় শেষ হয়ে গিয়েছে বলে বিশ্বাস করে, বিমানবন্দর পরিচালনাকারীগণ একটি ৪,০০০ মিটার (১৩,০০০ ফুট) দীর্ঘ দ্বিতীয় রানওয়ে এবং টার্মিনাল নির্মাণ শুরু করে।

দ্বিতীয় রানওয়ে ২০০৭ সালের ২ আগস্ট খোলা হয়, তবে মূল পরিকল্পনার সাথে যুক্ত টার্মিনাল অংশের নির্মাণ স্থগিত করা হয়। এটি প্রকল্পের ব্যয়কে জেপিওয়াই ¥৯১০ বিলিয়ন (প্রায় মার্কিন ডলার ৪ বিলিয়ন ডলার) হ্রাস করে, এটি প্রথম অনুমানের চেয়ে ৬৫০ বিলিয়ন ডলার সাশ্রয় করে।[২৪] ওসাকার আইএএএফ ওয়ার্ল্ড অ্যাথলেটিক্স চ্যাম্পিয়নশিপের জন্য সময়মতো খোলা অতিরিক্ত রানওয়ের নির্মাণ বিমানবন্দরটির আকার ১০.৫ বর্গকিলোমিটারে (২,৬০০ একর) প্রসারিত করে। দ্বিতীয় রানওয়েটি অবতরণের জন্য ব্যবহৃত হয় এবং যখন রানওয়ে এ-এর ব্যবহার বন্ধ রাখার ঘটনা ঘটে। সেপ্টেম্বর ২০০৭ সালে, নতুন রানওয়ে ২৪ ঘন্টা বিমানবন্দর পরিচালনা শুরু করতে অনুমতি দেয়।[২৫][২৬]

২০১২ সালের শেষদিকে একটি নতুন টার্মিনাল চালু হয়।[২৭] বেশ কয়েকটি নতুন এপ্রোন, ৩,৫০০ মিটার দৈর্ঘ্যের (১১,৪৮৩ ফুট) একটি তৃতীয় রানওয়ে (০৬সি /২৪সি), একটি নতুন পণ্য টার্মিনাল এবং বিমানবন্দরটির আকার ১৩ বর্গ কিমি (৫.০ বর্গ মাইল) পর্যন্ত বাড়ানোর জন্য অতিরিক্ত পরিকল্পনা করা হয়। তবে পরে জাপান সরকার অর্থনৈতিক কারণে এই পরিকল্পনা স্থগিত করে।

ইতমি বিমানবন্দরের সাথে সম্পর্কসম্পাদনা

 
২০০৬ সালে কানসাই বিমানবন্দর

জুলাই ২০০৮ সাল থেকে ওসাকা প্রশাসনিক অঞ্চলের গভর্নর তোড়ু হাশিমোটো ইতামি বিমানবন্দরের সোচ্চার সমালোচক হয়ে যুক্তি দিয়েছিলেন যে চু শিংকানসেন ম্যাগলেভ লাইন ইতামি বিমানবন্দরের অন্তঃদেশীয় উড়ানের ভূমিকা অনেকটাই অপ্রাসঙ্গিক করে তুলবে এবং মধ্য ওসাকা থেকে কানসাইতে উন্নত উচ্চ-গতির যাতায়াতের সাথে মিলিয়ে ইতামি বিমানবন্দরের অন্তঃদেশীয় উড়ানগুলি কানসাই বিমানবন্দরে স্থানান্তর করা উচিত।[২৮] ২০০৯ সালে, হাশিমোটো মেরিন কর্পস এয়ার স্টেশন ফুটেনমার ঘাঁটির আশেপাশের রাজনৈতিক সঙ্কটের সম্ভাব্য সমাধান হিসাবে ঘাঁটির কাজগুলি কানসাই বিমানবন্দরে সরকারীভাবে স্থানান্তর করার প্রস্তাবও দিয়েছিল।[২৯]

২০১১ সালের মে মাসে, জাপানের জাতীয় আইনসভায় কানসাই বিমানবন্দরে রাজ্যের বিদ্যমান অংশিদারীত্বের অংশ এবং ইতামি বিমানবন্দরের সম্পত্তির অংশ ব্যবহার করে একটি নতুন কানসাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর কর্পোরেশন গঠনের আইন পাস করা হয়। কানসাই বিমানবন্দরের ঋণের বোঝা মেটানো এই পদক্ষেপের লক্ষ্য ছিল।[৩০]

ইতামি এবং কানসাই বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের একীকরণটি ২০১২ সালের জুলাইয়ে শেষ হয়। সংযুক্তির অল্প সময়ের মধ্যেই, কানসাই বিমানবন্দরটি অক্টোবর ২০১২ সাল থেকে কার্যকর অবতরণ ফি ৫% হ্রাস করার ঘোষণা করে, সঙ্গে রাতে যখন বিমানবন্দর অব্যবহারযোগ্য হয়ে থাকে সেই সময়ে উড়ান পরিচালনাতে অতিরিক্ত ছাড়ের ঘোষণা করা হয় এবং ভর্তুকি'সহ আরও ছাড়ের পরিকল্পনা করা হয় ভবিষ্যতের জন্য, নতুন বিমান সংস্থা এবং নতুন রুটের জন্য। অক্টোবরে ২০১২ সাল পর্যন্ত এই পদক্ষেপগুলি কানসাইয়ে অবতরণের জন্য ধার্য কর নারিতা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের অবতরণ করের কাছাকাছি হয়, যেখানে অবতরণ কর কানসাইয়ের তুলনায় প্রায় ২০% কম ছিল এবং কোরিয়ার ইনছন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের মতো অন্যান্য এশিয়ান বিমান ঘাঁটির সাথে প্রতিযোগিতামূলক উন্নতির লক্ষ্যে।[৩১]

প্রতিষ্ঠার পর থেকে, নতুন বিমান সংস্থা মিয়ানমারের ইয়াঙ্গুন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এবং হানতাওয়াদ্দি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পরিচালনা ছাড়ের জন্য নিলাম দরপত্র রেখে আন্তর্জাতিক সম্প্রসারণের দিকেও প্রচেষ্টা চালায়।[৩২]

কেআইএসি ২০১৫ সালের মে মাসে কানসাই এবং ইতামি বিমানবন্দরের পরিচালনার অধিকার বিক্রি করার জন্য একটি সরকারী দরপত্র প্রকাশ করে। অরিক্স এবং ভিঞ্চি এসএ ৪৫ বছরের চুক্তির একমাত্র দরদাতা ছিল, যার দাম ছিল প্রায় $১৮ বিলিয়ন ডলার।[৩৩] ১ এপ্রিল ২০১৬ সাল থেকে নতুন পরিচালনাকারী সংস্থা কানসাই বিমানবন্দরের দায়িত্ব নেয়।[৩৪] এটি অরিক্স এবং ভিঞ্চির মালিকানাধীন রয়েছে ৮০%, বাকি ২০% কানসাই ভিত্তিক উদ্যোগ হানকিউ হানশিন হোল্ডিংস এবং প্যানাসনিকের মালিকানাধীন।[৩৫]

টাইফুন জেবিসম্পাদনা

৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ সালে, বিমানবন্দরটি টাইফুন জেবি'র সম্মুখীন হয়। টাইফুনটি দ্বীপটিকে সমুদ্রের জল দ্বারা কয়েক মিটার ডুবিয়ে দেওয়ার পরে বিমানবন্দরের কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়। পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ আকার ধারণ করে, যখন বিমানবন্দরকে মূল ভূখণ্ডের সাথে সংযোগ স্থাপনকারী সেতুর সাথে সংঘর্ষে একটি বিশাল ট্যাঙ্কার (জাহাজ) বিধ্বস্ত হয়ে কার্যকরভাবে বিমানবন্দরে থাকা লোকজনকে আটকে দেয়।[৩৬] বিমানবন্দরে সমস্ত উড়ান সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বাতিল করা হয় এবং ওই তারিখে প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে ঘোষণা করেন যে বিমানবন্দর আংশিকভাবে অভ্যন্তরীণ কার্যক্রম শুরু করবে।[৩৭][৩৮]

টার্মিনালসম্পাদনা

 
কানসাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ছাদ
 
টার্মিনাল ১-এর অভ্যন্তরে চলন্ত সিঁড়ি

টার্মিনাল ১সম্পাদনা

কেআইএক্স-এর মূল যাত্রীবাহী টার্মিনাল ভবন, টার্মিনাল ১ টি একটি ৪ তলা ভবন, যা রেনজো পিয়ানো বিল্ডিং ওয়ার্কশপ (রেঞ্জো পিয়ানো এবং নুরিয়াকি ওকাবে) দ্বারা নকশা করা হয় এবং এর মেঝের আয়তন ২,৯৬,০৪৩ বর্গ মিটার (৩১,৮৬,৫৮০ বর্গফুট) রয়েছে। ২০১৮ হিসাবে, টার্মিনাল ভবনের দুই প্রান্তের মধ্যে দূরত্ব মোট ১.৭ কিমি (১.১ মাইল), টার্মিনাল ১ হ'ল বিশ্বের দীর্ঘতম বিমানবন্দর টার্মিনাল[৩৯] এটিতে উইং শাটল নামে একটি পরিশীলিত মানুষ পরিবহন ব্যবস্থা রয়েছে, যা যাত্রীদের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে নিয়ে যায়।

টার্মিনালের ছাদটি এয়ারফয়েলের মতো আকারযুক্ত। এই আকারটি ভবনের মাধ্যে বায়ু চলাচল করতে ব্যবহৃত হয়: জায়ান্ট এয়ার কন্ডিশনার নালীগুলি টার্মিনালের একপাশে বায়ু বাইরে বেড়করে দেয়, ছাদের (সিলিংয়ের) বক্ররেখা জুড়ে বায়ু সঞ্চালন করে এবং অন্যদিকে বাইরে থেকে বায়ু সংগ্রহ করে। বহমান বায়ু সুবিধা গ্রহণ করতে টিকিট কক্ষে বিভিন্ন ভাস্কর্য স্থাপন স্থগিত করা হয়।

টিকিটিং হলটি আন্তর্জাতিক প্রস্থানের জমায়েতকে উপেক্ষা করে এবং দুটি কাচের বিভাজন দ্বারা পৃথক। কানসাইয়ের প্রথম দিনগুলিতে, দর্শনার্থীরা পার্টিশনের উপর দিয়ে নীচের করিডোরে বন্ধুদের উদ্দেশ্যে জিনিসপত্র নিক্ষেপ করত। এই বিষয়টি থামাতে অবশেষে বিভাজনটি সংশোধন করা হয়।

টার্মিনাল ২সম্পাদনা

 
টার্মিনাল ২-এর প্রস্থান লবি।
 
টার্মিনাল ২-এর বিধিনিষেধযুক্ত এলাকার দোকান।

টার্মিনাল ২ স্বল্প খরচের বিমান সংস্থার (এলসিসি) টার্মিনাল, যা টার্মিনাল ১-এর চেয়ে কম অবতরণ কর সরবরাহ করে আরও স্বল্প খরচের বিমান সংস্থাদের (এলসিসি) আকৃষ্ট করার জন্য নকশা করা হয়, এটি একচেটিয়াভাবে পীচ, স্প্রিং এয়ারলাইন্স এবং জেজু এয়ারের দখলে। কানসাইয়ের অন্যান্য স্বল্প খরচের বিমান সংস্থাগুলি হল জাস্টার এয়ারওয়েজ, জেটস্টার জাপান এবং সেবু প্যাসিফিক এয়ার মূল টার্মিনাল ১ ব্যবহার করে।[৪০]

পীচ অনুরোধ করেছে যে টার্মিনাল ২ -এর পরিচালনা ব্যয় হ্রাস করার জন্য একটি সরল নকশা তৈরি করার।[৪১] টার্মিনালটি এককতলা ভবন এভাবে লিফটের ব্যয়কে হ্রাস করে। বিমানের প্যাসেজওয়েগুলির কোনও শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা নেই।[৪২] টার্মিনালটিতে কোনও জেট ব্রিজ নেই, অন্তঃদেশীয় যাত্রার জন্য একটি বোর্ডিং গেট এবং আন্তর্জাতিক যাত্রার জন্য একটি বোর্ডিং গেট রয়েছে। বৃষ্টিপাতের ক্ষেত্রে, যাত্রীরা বিমানে পৌঁছানোর জন্য ছাতা প্রদানের ব্যবস্থা রয়েছে।[৪৩]

টার্মিনাল ২ সরাসরি টার্মিনাল ১ বা কানসাই বিমানবন্দর স্টেশনের সাথে সংযুক্ত নয়। দুটি টার্মিনালের মধ্যে এবং টার্মিনাল ২ এর থেকে রেলপথ ও ফেরি স্টেশনগুলির মধ্যে ফ্রি শাটল বাস চলাচল করে। টার্মিনাল ২ সংলগ্ন একটি চার-হেক্টর আয়তনের উদ্যান, কেআইএক্স সোরা উদ্যানের মাধ্যমে টার্মিনাল দুটির মধ্যে দিয়ে চলাফেরা করা সম্ভব হয়।[৪৪]

বিমান সংস্থা এবং গন্তব্যস্থলসম্পাদনা

যাত্রীসম্পাদনা

বিমান সংস্থাগন্তব্যস্থল
৯ এয়ার গুয়াংঝু (শুরু ২২ ডিসেম্বর ২০১৯)[৪৫]
অ্যারোফ্লট মস্কো – শেরেমেতিয়েভো (পুনরায় শুরু ১৫ জুন ২০২০)[৪৬]
এয়ারএশিয়া এক্স হনলুলু,[৪৭] কুয়ালালামপুর – আন্তর্জাতিক, তাইপেই–তাইয়ুয়ান[৪৮]
এয়ার বুশান বুশান
এয়ারক্যালিন নওমিয়া
এয়ার কানাডা মরসুম: ভ্যানকুভার[৪৯][৫০]
এয়ার চীনা বেইজিং–ক্যাপিটাল, চেঙ্গদু, ডালিয়ান, হ্যাংজু,[৫১] সাংহাই-পুডং, তিয়ানজিন[৫২]
এয়ার ফ্রান্স প্যারিস – চার্লস ডি গল
এয়ার ম্যাকাও ম্যাকাও
এয়ার নিউজিল্যান্ড মরসুম: অকল্যান্ড
এয়ার সিওল সিওল – ইনচিয়ন[৫৩]
অল নিপ্পন এয়ারওয়েজ বেইজিং – ক্যাপিটাল, ডালিয়ান, ফুকুওকা, হ্যাংজু, হংকং, ইশিগাকি, মিয়াকো, নাহা, কিংদাও, সাপ্পোরো চিটোজ, সাংহাই - পুডং, টোকিও – হানেদা
'মরসুম: ' আশাহিকাওয়া, মেমনবেটসু
এশিয়ানা এয়ারলাইনস সিওল – গিম্পো, সিওল – ইনচিয়ন
মরসুম: সাইপান
বেইজিং ক্যাপিটাল এয়ারলাইন্স হ্যাংজু
ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ London–Heathrow[৫৪]
Cathay Pacific হংকং, Taipei–Taoyuan
Cebu Pacific Manila
China Airlines Kaohsiung, Tainan, Taipei–Taoyuan
China Eastern Airlines Beijing–Capital, Dalian,[৫৫] Hangzhou, Kunming, Nanchang,[৫৬] Nanjing, Ningbo, Qingdao, Shanghai–Pudong, Xi'an, Yanji,[৫৭] Yantai
China Southern Airlines Changchun,[৫৮] Changsha, Dalian, Guangzhou, Guiyang, Harbin, Shanghai–Pudong, Shenyang, Shenzhen, Wuhan, Zhengzhou
Delta Air Lines Honolulu
Seasonal: Seattle/Tacoma[৫৯][৬০]
Eastar Jet Busan,[৬১] Seoul–Incheon
EgyptAir Seasonal charter: Cairo (resumes 16 December 2019)[৬২]
Emirates Dubai–International
EVA Air Kaohsiung, Taipei–Taoyuan
Finnair Helsinki
Garuda Indonesia Denpasar/Bali, Jakarta–Soekarno-Hatta
Hainan Airlines Beijing–Capital,[৬৩] Haikou,[৬৪] Lianyungang (begins 25 November 2019),[৬৫] Shenzhen,[৬৬] Xi'an[৬৭]
Hawaiian Airlines Honolulu
Hebei Airlines Shijiazhuang (begins 18 January 2020)[৬৮]
এইচকে এক্সপ্রেস হংকং
হংকং এয়ারলাইন্স হংকং
Japan Airlines Bangkok–Suvarnabhumi, Honolulu, Los Angeles, Sapporo–Chitose, Shanghai–Pudong, Taipei–Taoyuan, Tokyo–Haneda
Japan Transocean Air Ishigaki, Naha
Jeju Air Busan, Cheongju,[৬৯] Guam,[৬৯] Seoul–Gimpo, Seoul–Incheon
Seasonal: Muan[৭০]
Jetstar Airways Cairns
Jetstar Asia Airways Clark,[৭১] Manila, Singapore, Taipei–Taoyuan
Jetstar Japan Fukuoka, Hong Kong, Kochi,[৭২] Kumamoto,[৭৩] Manila, Naha, Sapporo–Chitose, Shimojishima,[৭৪] Taipei–Taoyuan, Tokyo–Narita
Jin Air Busan,[৭৫] Seoul–Incheon
Juneyao Airlines Changsha,[৭৬] Changzhou,[৭৭] Harbin,[৭৭] Nanjing,[৭৮] Qingdao,[৭৯] Shanghai–Pudong, Wenzhou,[৭৭] Wuhan[৭৭]
KLM Amsterdam
Korean Air Seoul–Gimpo, Seoul–Incheon
Lufthansa Munich[৮০]
Malaysia Airlines Kuala Lumpur–International
MIAT Mongolian Airlines Seasonal: Ulaanbaatar[৮১]
Nepal Airlines Kathmandu [৮২]
NokScoot Bangkok–Don Mueang[৮৩]
Okay Airways Changsha,[৮৪] Hangzhou (begins 24 November 2019),[৮৫] Tianjin
Peach Aviation Amami Oshima, Busan (ends 7 January 2020),[৮৬] Fukuoka, Hong Kong, Ishigaki, Kagoshima, Kaohsiung, Kushiro,[৮৭] Matsuyama, Miyazaki, Nagasaki, Naha, Niigata,[৮৮] Sapporo–Chitose, Sendai, Seoul–Incheon, Shanghai–Pudong, Taipei–Taoyuan, Tokyo–Narita
Philippine Airlines Cebu, Manila
Philippines AirAsia Manila[৮৯]
Qantas Sydney[৯০][৯১]
কাতার এয়ারওয়েজ দোহার (পুনরায় শুরু ২০ এপ্রিল ২০২০)[৯২]
S7 Airlines Seasonal: Vladivostok
স্কুট ব্যাংকক – ডন মুয়াং, কাওসিয়াং, সিঙ্গাপুর
Shandong Airlines Jinan, Qingdao[৯৩]
সাংহাই এয়ারলাইনস সাংহাই – পুডং
শেনজেন এয়ারলাইনস বেইজিং - ক্যাপিটাল,[৯৪] নানচং,[৯৫] ন্যানটং,[৯৬] শেনজেন, উক্সি
সিচুয়ান এয়ারলাইনস শিয়ান, চেংদু[৯৭] ঝাঞ্জিয়াজি[৯৮]
সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্স সিঙ্গাপুর
Spring Airlines Chongqing, Dalian,[৯৯] Guangzhou,[১০০] Luoyang, Qingdao, Shanghai–Pudong, Tianjin, Wuhan, Xi'an,[১০১] Yangzhou
স্টারফ্লায়ার টোকিও – হানেদা
সুইস আন্তর্জাতিক এয়ার লাইন জুরিখ (শুরু ১ মার্চ ২০২০)[১০২]
থাই এয়ারএশিয়া এক্স ব্যাংকক–ডন মুয়াং
থাই এয়ারওয়েজ ব্যাংকক–সুবর্ণভূমি
থাই লায়ন এয়ার ব্যাংকক–ডন মুয়াং[১০৩]
তিয়ানজিন এয়ারলাইনস তিয়ানজিন
টাইগারএয়ার তাইওয়ান কেওসিয়াং,[১০৪] তাইপেই – তাইয়ুয়ান
তুর্কি এয়ারলাইনস ইস্তাম্বুল (পুনরায় শুরু ১৪ ই এপ্রিল ২০২০)[১০৫]
টি'ওয়ে এয়ারলাইন্স বুশান,[১০৬] দায়েগু, মুয়ান, গুয়াম,[১০৭] জেজু,[১০৬] সিওল – ইনছন
ইউনাইটেড এয়ারলাইন্স গুয়াম, সান ফ্রান্সিসকো
ভিয়েতজেট এয়ার হ্যানয়,[১০৮] হো চি মিন সিটি[১০৯]
ভিয়েতনাম এয়ারলাইনস ডা নং,[১১০] হ্যানয়, হো চি মিন সিটি
ওয়েস্ট এয়ার ছুংছিং, চেংচৌ] (দু'ই শুরু ২৬ নভেম্বর ২০১৯)[১১১]
শিয়ামন এয়ার ফুঝো, হ্যাংজু,[১১২] চিংদাও (শুরু ২০ নভেম্বর ২০১৯),[১১৩] শিয়ামন

পণ্যসম্পাদনা

বিমান সংস্থাগন্তব্যস্থল
এয়ার চীনা কার্গ বেইজিং-ক্যপিটাল, সাংহাই-পোডং
এয়ার হংকং হংকং
ANA & JP Express Seoul–Incheon
ANA Cargo Bangkok–Suvarnabhumi, Dalian, Naha, Qingdao, Saga, Shanghai–Pudong, Tokyo–Haneda, Tokyo–Narita, Xiamen
Asiana Cargo Seoul–Incheon
Cathay Pacific Cargo Hong Kong, Seoul–Incheon
China Airlines Cargo Anchorage, Los Angeles, Taipei–Taoyuan
China Cargo Airlines Shanghai–Pudong, Xiamen
China Postal Airlines Shanghai–Pudong
China Southern Cargo[১১৪] Shanghai–Pudong
Cathay Pacific Cargo Hong Kong
EVA Air Cargo Taipei–Taoyuan
FedEx Express Anchorage, Beijing–Capital, Guangzhou, Hong Kong, Indianapolis, Memphis, Oakland, Singapore, Shanghai–Pudong, Taipei–Taoyuan, Tokyo–Narita
Garuda Indonesia Cargo Denpasar/Bali, Jakarta–Soekarno–Hatta
Hong Kong Airlines Cargo Hong Kong
Korean Air Cargo Seoul–Incheon
Lufthansa Cargo Frankfurt, Krasnoyarsk
Nippon Cargo Airlines Bangkok–Suvarnabhumi, Beijing–Capital, Guangzhou, Hong Kong, Seoul–Incheon, Shanghai–Pudong, Singapore, Tokyo–Narita
Polar Air Cargo Chicago–O'Hare, Shanghai–Pudong
Singapore Airlines Cargo Hong Kong, Los Angeles, Singapore
UPS Airlines Anchorage, Shanghai–Pudong, Shenzhen
ইকুটিয়া এয়ারলাইনস সাংহাই-পোডং

ভূতল পরিবহনসম্পাদনা

 
হারুকা, জেআর ওয়েস্টের কানসাই বিমানবন্দর লিমিটেড এক্সপ্রেস
 
রপি: টি, নানকাই রেলওয়ের সীমিত এক্সপ্রেস ট্রেন

রেলসম্পাদনা

কানসাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরটি স্কাই গেট সেতু নামে পরিচিত শুধু মাত্র একটি সড়ক/রেল সেতু রিঙ্কু টাউন এবং মূল ভূখণ্ডের সাথে দ্বারা সংযুক্ত। সেতুর নীচের রেলপথটি দুটি রেল পরিচালনাকারী ব্যবহার করে: জেআর ওয়েস্ট এবং নানকাই ইলেকট্রিক রেলওয়ে।

জেআর ওয়েস্ট টেনাজি, শিন-এসাকা এবং কিয়োটো স্টেশন থেকে কানসাই বিমানবন্দর স্টেশনের জন্য হারুকা সীমিত এক্সপ্রেস ট্রেন পরিষেবা পরিচালনা করে। জেআর ওয়েস্ট এস্কা, কিবাশি স্টেশন এবং পথে কয়েকটি স্টেশন থেকে কানসাই বিমানবন্দর স্টেশনের জন্য "কানসাই বিমানবন্দর র‌্যাপিড" পরিষেবাগুলিও সরবরাহ করে। বিভিন্ন সংযোগ, যেমন বাস, সাবওয়ে, ট্রাম এবং অন্যান্য রেলপথ প্রতিটি স্টেশনে উপলব্ধ।

নানকাই রাপি: টি পরিচালনা করে, এটি ওসাকার শহরতলীর দক্ষিণ প্রান্তে নাম্বা স্টেশনের কাছে একটি সীমিত এক্সপ্রেস ট্রেন পরিষেবা।

বাসসম্পাদনা

কানসাই বিমানবন্দর পরিবহন এন্টারপ্রাইজ[১১৫] এবং অন্যান্য বাস পরিচালনাকারী কানসাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের জন্য "বিমানবন্দর লিমোজাইনস" নামে একটি নির্ধারিত এক্সপ্রেস বাস পরিষেবা সরবরাহ করে।

গাড়ি রাখার ব্যবস্থাসম্পাদনা

গাড়ি রাখার ব্যবস্থা হিসাবে দুটি ছয়তলা অবকাঠাম রয়েছে, যা পি ১ এবং পি ২ নামে পরিচিত, একটি রেলওয়ে টার্মিনাল স্টেশনের উপরে অবস্থিত, পি ৩ এবং পি ৪ নামে দুতলা যুক্ত অন্য গাড়ি রাখার সুবিধা, একটি হোটেল কমপ্লেক্স "অ্যারোপ্লাজা"-এর পাশে অবস্থিত।

কানসাই বিমানবন্দর এক্সপ্রেসওয়টি শুধু মাত্র স্কাই গেট ব্রিজ আর দ্বারা বিমানবন্দরে প্রবেশ করতে পারে। এক্সপ্রেসওয়েটি হানশিন এক্সপ্রেসওয়ে রুট ৫, "ওয়াঙ্গান রুট" এবং হনওয়া এক্সপ্রেসওয়ের সাথে যুক্ত।

ফেরি পরিষেবাসম্পাদনা

জুলাই ২০০৭ সালে, উচ্চ-গতির ফেরি পরিষেবা শুরু হয়। ওএম কোবে বিমানবন্দর এবং কেআইএক্স এর মধ্যে "বে শাটল" পরিচালনা করে। এই যাত্রার সময় প্রায় ত্রিশ মিনিট।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "New Management Setup of Kansai Airport" (PDF)Kansai Airports। Kansai Airports। ২০১৬-০৪-০১। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৪-২৪ 
  2. "FedEx Opens North Pacific Regional Hub at Kansai International Airport"। newswit.com। ৩ জুলাই ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ৩ জুলাই ২০১৪ 
  3. "AIS Japan"। ২০১১-০৭-২২। ২০১১-০৭-২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৭-১৫ 
  4. Home ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৮ আগস্ট ২০১১ তারিখে. Hotel Nikko Kansai Airport. Retrieved on 23 July 2011. "Hotel Nikko Kansai Airport 1, Senshu-kuko Kita, Izumisano-shi, Osaka, 549-0001, Japan "
  5. "OSAKA KANSAI (Kansai International Airport)." JAL Cargo. Retrieved on 23 July 2011. "Departure JAL Export Cargo Bldg. 1 Senshu Airport Minami, Sennan, Osaka Arrival JALKAS Import Cargo Bldg. 1 Senshu Airport Minami, Sennan, Osaka"
  6. 航空運送事業の許可について(Peach・Aviation 株式会社)Ministry of Land, Infrastructure, Transport, and Tourism। ৭ জুলাই ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুলাই ২০১১1.本社所在地 大阪府泉南郡田尻町泉州空港中1番地(関西空港内) 
  7. Kansai International Airport Statistics ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৯ মে ২০১২ তারিখে – Kansai International Airport Co., Ltd.
  8. Kansai International Airport 2014 summer Flight Schedules – Kansai International Airport Co., Ltd.
  9. Osaka Journal; Impatient City's Mission: Steal Tokyo's Thunder, New York Times, 9 December 1989.
  10. Rice, Peter (৪ সেপ্টেম্বর ১৯৯৪)। "Kansai International Airport terminal building"। Engineering Timelines / Arup Group। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মার্চ ২০১৭ 
  11. Mesri, Gholamreza (ফেব্রুয়ারি ২০১৫)। "Settlement of the Kansai International Airport Islands"। Journal of Geotechnical and Geoenvironmental EngineeringASCE Library141 (2): 04014102। doi:10.1061/(asce)gt.1943-5606.0001224 
  12. "Kansai International Airport Land Co., Ltd - Technical Information - Land Settlement - Why Settlement Occurs"। Kansai। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মার্চ ২০১৭ 
  13. "Kansai International Airport Land Co., Ltd - Technical Information - Approach to Settlement - Condition of the Settlement"। Kansai। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মার্চ ২০১৭ 
  14. Some Minor Gains on Trade Conflicts, New York Times, 2 May 1987.
  15. US Cancels A Plan To Begin Sanctions After Japan Acts, New York Times, 27 October 1993.
  16. Osaka Notebook, International Herald Tribune, 24 August 1992.
  17. U.S. Engineering Society names Kansai International Airport a Civil Engineering Monument of the Millennium ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৩ অক্টোবর ২০০৯ তারিখে – Press release from American Society of Civil Engineers
  18. "Kansai International Airport Land Co., Ltd - Technical Information - Approach to Settlement - Condition of the Settlement"। সংগ্রহের তারিখ ৪ জুন ২০১৫ 
  19. Will Fees Sink New Osaka Airport?, International Herald Tribune, 5 August 1994.
  20. Pride and (Ouch!) Price: The $14 Billion Airport, New York Times, 16 December 1993.
  21. "関空、夏季の国際線旅客5%増 台湾・東南ア顧客が増加見通し"日本経済新聞। ১৯ জুলাই ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জুলাই ২০১৩ 
  22. "関空支援を国に要望 促進協、ターミナル整備など"日本経済新聞। ২২ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২২ আগস্ট ২০১৩ 
  23. The reason for construction of The 2nd runway ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২২ জুলাই ২০০৭ তারিখে– Kansai International Airport Co., Ltd.
  24. – Daily Yomiuri Online – Opening of new KIX runway celebrated[অকার্যকর সংযোগ]
  25. "Kansai opens its Second Runway", Airports – September/October 2007 (Key Publishing), P7
  26. "24 hours operation from 1st September 2007" from Sankei Newspaper (Japanese) on 24 August 2007.
  27. KIX Terminal2 ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৬ জানুয়ারি ২০১৩ তারিখে. Kansai-airport.or.jp (28 October 2012). Retrieved on 16 August 2013.
  28. Airport wars roil Kansai region, Japan Times
  29. Will the U.S. Marines charge ashore at Kansai airport?, Japan Today
  30. 関空・伊丹統合法が成立 1兆円超す負債解消目指す, Asahi Shimbun
  31. 関空、国際線着陸料5%下げ LCC誘致へ10月から, Nihon Keizai Shimbun
  32. 新関空会社、ミャンマーの国際空港入札に参加 海外2カ所目, Nihon Keizai Shimbun
  33. Fujita, Junko (২২ মে ২০১৫)। "Orix only confirmed bidder for Kansai airport rights after more drop out"। Reuters। সংগ্রহের তারিখ ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৫ 
  34. "New Management Set-up of Kansai Airports" (PDF)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৭-১৫ 
  35. 伊藤, 正泰 (১১ সেপ্টেম্বর ২০১৫)। "新関空会社とオリックス陣営、空港運営権の売却で大筋合意"The Nikkei। সংগ্রহের তারিখ ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৫ 
  36. The Mainichi (৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮)। "Ship smashes into Kansai airport bridge as typhoon hits Japan"। ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  37. NHK World News (৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮)। "Abe: Kansai airport to partially reopen on Friday"। ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  38. nytimes.com 7 September 2018: Many Major Airports Are Near Sea Level. A Disaster in Japan Shows What Can Go Wrong. (incl. photo of the partially flooded airport)
  39. "Osaka Kansai International Airport"Skyscanner। ৩১ মে ২০১৮। অক্টোবর ১১, ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ১১, ২০১৮ 
  40. Commercial offer to the fore as Kansai opens budget terminal. TheMoodieReport.com. Retrieved on 16 August 2013.
  41. Kansai Airport opens new terminal for low-cost carriers – AJW by The Asahi Shimbun ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১ নভেম্বর ২০১২ তারিখে. Ajw.asahi.com. Retrieved on 16 August 2013.
  42. (জাপানি) :日本経済新聞. Nikkei.com. Retrieved on 16 August 2013.
  43. (জাপানি) :日本経済新聞. Nikkei.com. Retrieved on 16 August 2013.
  44. Large "Ecopark" Outside Kansai Terminal 2 with Fields, "Ecofarm" and More – Airport News Japan. En.airportnews.jp (25 October 2012). Retrieved on 16 August 2013.
  45. https://www.routesonline.com/news/38/airlineroute/287119/9-air-adds-guangzhou-osaka-service-from-late-dec-2019/
  46. https://www.routesonline.com/news/38/airlineroute/286574/aeroflot-resumes-osaka-service-from-june-2020/
  47. Liu, Jim। "AirAsia X proposes Honolulu launch in June 2017"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ 
  48. Liu, Jim (৩১ অক্টোবর ২০১৮)। "AirAsia X adds Taipei – Osaka service from late-Jan 2019"Routesonline। Informa Markets। 
  49. Liu, Jim (১৮ জুন ২০১৮)। "Air Canada S19 Osaka service adjustment"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ১৮ জুন ২০১৮ 
  50. Liu, Jim [@Airlineroute] (১৫ অক্টোবর ২০১৮)। "Air Canada's seasonal Vancouver – Osaka Kansai service will be delayed to 01JUN19 in 2019, instead of from 12MAY19" (টুইট) – টুইটার-এর মাধ্যমে। 
  51. "Air China to launch new KIX-Hangzhou service with four weekly flights this winter" (PDF)। Kansai Airport। সংগ্রহের তারিখ ৫ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  52. Liu, Jim। "Air China adds Tianjin to Osaka service"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জানুয়ারি ২০১৯ 
  53. Liu, Jim। "Air Seoul files preliminary Osaka schedule from Sep 2017"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুন ২০১৭ 
  54. "British Airways to resume KIX-London flights for first time in 20 years - Nonstop service on the route for first time in 10 years -" (PDF)। Kansai Airport। সংগ্রহের তারিখ ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  55. Liu, Jim। "China Eastern revises Dalian – Osaka service in W17"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ৩০ অক্টোবর ২০১৭ 
  56. Liu, Jim। "China Eastern W19 Japan service changes"Routesonline। সংগ্রহের তারিখ ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 
  57. "China Eastern Adds Yanji – Osaka Service from July 2015 :: Routesonline"। Airlineroute.net। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৭-১৫ 
  58. "China Southern resumes Changchun – Osaka service from June 2019"Routesonline 
  59. Liu, Jim। "Delta resumes Seattle – Osaka service from April 2019"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ৯ জুলাই ২০১৮ 
  60. "Delta Air Lines - Tony's Regional Update - SEA - Winter 2019 – Page 5"। Delta Up & Away। সংগ্রহের তারিখ ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  61. Liu, Jim (১৭ জুলাই ২০১৯)। "EastarJet suspends Busan – Japan service in Sep/Oct 2019"Routesonline। Informa Markets। 
  62. Liu, Jim (১৪ অক্টোবর ২০১৯)। "EGYPTAIR resumes Osaka charter flights in W19"routesonline.com 
  63. https://www.routesonline.com/news/38/airlineroute/286595/hainan-airlines-adds-new-beijing-capital-japan-routes-in-w19/
  64. "Hainan Airlines launches Haikou-Osaka flights"Japan Today 
  65. "Hainan Airlines plans Lianyungang – Osaka service from late-Nov 2019"। routesonline। সংগ্রহের তারিখ ১৫ অক্টোবর ২০১৯ 
  66. Liu, Jim (১ জানুয়ারি ২০১৯)। "Hainan Airlines adds Shenzhen – Osaka service from Feb 2019"Routesonline। Informa Markets। 
  67. Liu, Jim। "Hainan Airlines plans Xi'An – Osaka service from July 2019"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুন ২০১৯ 
  68. https://www.routesonline.com/news/38/airlineroute/287338/hebei-airlines-adds-shijiazhuang-osaka-service-from-jan-2020/
  69. Liu, Jim। "Jeju Air adds Osaka – Guam service from late-July 2018"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৭-১৫ 
  70. Liu, Jim। "Jeju Air schedules international service from Muan in 2Q18"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৭-১৫ 
  71. "Jetstar Asia launches first direct service to Osaka from Clark"Jetstar.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জানুয়ারি ২০১৮ 
  72. "Jetstar Japan to launch Tokyo Narita/Osaka Kansai-Kochi services"। CAPA। সংগ্রহের তারিখ ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  73. "Jetstar Japan to launch new daily service from KIX to Kumamoto" (PDF)। Kansai Airport। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জুলাই ২০১৮ 
  74. Liu, Jim। "Jetstar Japan adds Osaka – Shimojishima service from July 2019"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মার্চ ২০১৯ 
  75. "Jin Air Adds New Routes from Busan eff late-Sept 2015"। Airlineroute.net। ২৪ আগস্ট ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০১৫ 
  76. Liu, Jim। "Juneyao Airlines adds Changsha – Osaka from July 2019"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ৬ মে ২০১৯ 
  77. "Juneyao Airlines adds new routes to Japan in W19"। routesonline। সংগ্রহের তারিখ ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 
  78. Liu, Jim। "Juneyao Airlines Adds Nanjing – Osaka Route from Aug 2016"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জুন ২০১৬ 
  79. Liu, Jim। "Juneyao Airlines adds Qingdao – Osaka service from late-March 2019"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  80. Liu, Jim। "Lufthansa S19 long-haul changes as of 10OCT18"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১০-৩০ 
  81. "MIAT Mongolian Airlines"www.miat.com 
  82. "Nepal Airlines schedules July 2019 Osaka service resumption"Routesonline 
  83. Liu, Jim। "NokScoot adds Osaka service in late-Oct 2018"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ২৩ আগস্ট ২০১৮ 
  84. "Okay Airways adds Changsha – Osaka from late-July 2019" 
  85. https://www.routesonline.com/news/38/airlineroute/287118/okay-airways-schedules-new-routes-to-japan-in-november-2019/
  86. https://twitter.com/Airlineroute/status/1166642973561372674?s=19
  87. Liu, Jim। "Peach begin service to Kushiro from 2018"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৭-১৫ 
  88. Liu, Jim। "Peach adds Osaka – Niigata service in March 2018"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৭-১৫ 
  89. "AirAsia to fly between the Philippines and Japan"AirAsia Newsroom 
  90. "Qantas to launch seasonal Sydney-Osaka flights"। Australian Business Traveller। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুলাই ২০১৭ 
  91. Liu, Jim। "Qantas converts Sydney – Osaka to year-round service in 2018"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  92. https://www.qatarairways.com/en/press-releases/2019/September/OsakaLaunch.html?activeTag=Press-releases&CID=SMALL0678502232000000001105
  93. "Shandong Airlines Adds New Osaka Service from July 2015"। Airlineroute.net। ৪ জুন ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৪ জুন ২০১৫ 
  94. "Shenzhen Airlines to Start Beijing - Osaka Flight from July 2015"। Airlineroute.net। ২৯ এপ্রিল ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২৯ এপ্রিল ২০১৫ 
  95. "Shenzhen Airlines adds new routes to Japan in W19"। routesonline। সংগ্রহের তারিখ ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 
  96. "Shenzhen Airlines Expands Osaka Service in W15"। Airlineroute.net। ১০ নভেম্বর ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১০ নভেম্বর ২০১৫ 
  97. Liu, Jim। "Sichuan Airlines adds Xi'An – Osaka from late-Nov 2018"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১০-৩০ 
  98. Liu, Jim। "Sichuan Airlines plans Dayong – Osaka launch in August 2019"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জুলাই ২০১৯ 
  99. "Spring Airlines adds Dalian – Osaka service from Nov 2018"Routesonline 
  100. Liu, Jim। "Spring Airlines adds Guangzhou – Osaka service from Feb 2019"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ১০ জানুয়ারি ২০১৯ 
  101. "Spring Airlines Launches 4 New China – Osaka Routes in S15"। সংগ্রহের তারিখ ৪ জুন ২০১৫ 
  102. "SWISS to introduce new services to Osaka and Washington, D.C." (Press release). Swiss International Air Lines Ltd.. 4 August 2019. https://swiss.newsmarket.com/english/press-releases/new-destinations/s/199b3551-eb9b-4f94-b6bb-9f0bf8ff265c। সংগৃহীত হয়েছে 7 August 2019.
  103. Liu, Jim। "Thai Lion Air schedules additional routes to Japan in 1Q19"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জানুয়ারি ২০১৮ 
  104. "tigerair Taiwan Adds Kaohsiung - Osaka; Bangkok Service Reductions from July 2015"। Airlineroute.net। ১৬ জুন ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জুন ২০১৫ 
  105. "Turkish Airlines to resume Istanbul-Osaka service in Apr-2020"। CAPA Centre for Aviation। সংগ্রহের তারিখ ২৩ মে ২০১৯ 
  106. Liu, Jim। "T'Way Air boosts Osaka flights in S17"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ৮ মে ২০১৭ 
  107. "Tway"। Twayair.com। ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুলাই ২০১৮ 
  108. "vietjet-opens-direct-flight-from-hanoi-to-osaka--japan - news - VietJetAir.com - Enjoy Flying!"www.vietjetair.com 
  109. Liu, Jim। "Vietjet Air adds Ho Chi Minh City – Osaka route from Dec 2018"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুলাই ২০১৮ 
  110. "Vietnam Airlines to offer new route between KIX and Da Nang" (PDF)। Kansai Airport। সংগ্রহের তারিখ ৩০ আগস্ট ২০১৮ 
  111. Liu, Jim (২ অক্টোবর ২০১৯)। "West Air adds new Osaka routes from late-Nov 2019"routesonline.com 
  112. Liu, Jim। "Xiamen Airlines plans Hangzhou – Osaka launch in late-Oct 2018"Routesonline। Informa Markets। সংগ্রহের তারিখ ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  113. https://www.routesonline.com/news/38/airlineroute/286594/xiamen-airlines-w19-japan-service-changes/
  114. China Southern launches Japanese route, Asian exports decline | Air Cargo World News ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১ সেপ্টেম্বর ২০১২ তারিখে. Aircargoworld.com (30 August 2012). Retrieved on 16 August 2013.
  115. "Kansai Airport limousine"। সংগ্রহের তারিখ ৪ জুন ২০১৫ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা