কল্প (সংস্কৃত: कल्प, অনুবাদ'সঠিক, মানানসই') হলো বেদাঙ্গের শাখা বা বেদের সাথে সংযুক্ত আনুষঙ্গিক বিজ্ঞান।[১] এটি বৈদিক আচার-অনুষ্ঠান অনুশীলনের সাথে সম্পর্কিত পদ্ধতি ও অনুষ্ঠানের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে।[২][১]

কল্প বেদাঙ্গের প্রধান গ্রন্থগুলিকে কল্পসূত্র বলা হয়।[৩] কল্পসূত্রের মধ্যে বৈদিক আচার-অনুষ্ঠান সহ ব্যক্তির ব্যক্তিগত আচার-আচরণ সম্পর্কিত অনুষ্ঠানের আচার রয়েছে৷[৪] অধিকাংশ কল্পসূত্র গ্রন্থে তাদের ইতিহাসে প্রক্ষেপণ, পরিবর্তন এবং এর ফলে দুর্নীতির অভিজ্ঞতা রয়েছে, এবং যজুর্বেদের আনুষঙ্গিক আপস্তম্ব কল্পসূত্র এই ধারার সেরা সংরক্ষিত পাঠ্য হতে পারে।[৫] অন্যান্য ভারতীয় ঐতিহ্য যেমন জৈনধর্মেও কল্পসূত্র পাওয়া যায়।[৬]

ইতিহাস

সম্পাদনা

অধ্যয়নের কল্প ক্ষেত্রটি বেদের ব্রাহ্মণ স্তরের স্তরে এর শিকড় খুঁজে পায়,[৭] তবে এর পাঠ্যগুলি অনুষ্ঠানের জন্য অধিক উল্লেখ্য, স্পষ্ট, সংক্ষিপ্ত ও কার্যকর। [৮][৯] কল্পসূত্রগুলি কর্মকাণ্ড বা বেদের ধর্মীয় অংশগুলির সাথে সম্পর্কিত, উপনিষদের বিপরীতে যা জ্ঞানকাণ্ড বা জ্ঞানের অংশ।[১০][১১]

অধ্যয়নের এই ক্ষেত্রটি পুরোহিতদের চাহিদা মেটানোর জন্য আবির্ভূত হয়েছিল কারণ তারা বিবাহ ও শিশুর নামকরণের মতো ঘরোয়া আচারগুলি পরিচালনা করতো, যাতে আচারগুলি ফলপ্রদ, মানসম্মত এবং বিভিন্ন পরিণাম সামঞ্জস্যপূর্ণ হয়।[৭] তারা শ্রোতাদের ও ব্যক্তিদের প্রথা ও সাংস্কৃতিক অনুশীলনের মধ্যে একীভূত করতে সাহায্য করেছিল, উইন্তরনিতজ ও সরমা বলেন, "সে মুহূর্ত থেকে যখন তাকে তার মায়ের গর্ভে গ্রহণ করা হয় তার মৃত্যুর সময় পর্যন্ত", এবং তার দাহের সময়ও।[৭]

আচার সম্পর্কিত প্রাচীন গ্রন্থ দুই প্রকার - শ্রুতসূত্র শ্রুতির উপর এবং স্মার্তসূত্র স্মৃতির উপর ভিত্তি করে। কল্পসূত্রের প্রথম সংস্করণ আনুমানিক খ্রিস্টপূর্ব ষষ্ঠ শতাব্দীর, এবং কর্তৃত্ব ও সম্মানের জন্য ঋষিদের নিকট আরোপিত হয়েছিল।[১] পাঠ্যগুলি সূত্রধর্মী সূত্র শৈলীতে রচিত, এবং তাই অনুষ্ঠানের জন্য বিস্তারিত নির্দেশিকার পরিবর্তে সংক্ষিপ্ত পথপঁজি।।[৯]

মনিয়ার-উইলিয়ামের মতো পণ্ডিতরা শুধুমাত্র শ্রৌতসূত্রকে কল্প বেদাঙ্গের অংশ হিসেবে শ্রেণীবদ্ধ করেছেন, বলেছেন যে স্মার্তসূত্রগুলি শ্রৌত বা বৈদিক অনুষ্ঠানের সাথে সম্পর্কিত নয়, কিন্তু এর পরিবর্তে ঘরোয়া ঘটনা যেমন শিশুর জন্মের সময় এবং সমায়াচার বা "প্রচলিত দৈনন্দিন অনুশীলন" যা প্রতিটি মানুষের জীবনের অংশ।[১২] যাইহোক, অন্যান্য পণ্ডিতদের মধ্যে উভয়ই অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।[৭][১১]

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. James Lochtefeld (2002), "Kalpa" in The Illustrated Encyclopedia of Hinduism, Vol. 1: A-M, Rosen Publishing, আইএসবিএন ০-৮২৩৯-২২৮৭-১, page 339
  2. Plofker 2009, পৃ. 313।
  3. Maurice Winternitz 1963, পৃ. 252।
  4. Wendy Doniger (১৯৯৯)। Merriam-Webster's Encyclopedia of World Religions । Merriam-Webster। পৃষ্ঠা 629আইএসবিএন 978-0-87779-044-0 
  5. Patrick Olivelle (১৯৯৯)। The Dharmasutras: The Law Codes of Ancient India। Oxford University Press। পৃষ্ঠা xxv–xxviii with footnotes। আইএসবিএন 978-0-19-160604-5 
  6. Moriz Winternitz (১৯৮৮)। A History of Indian Literature: Buddhist literature and Jaina literature। Motilal Banarsidass (Reprint)। পৃষ্ঠা 412–413, 444–446। আইএসবিএন 978-81-208-0265-0 
  7. Moriz Winternitz; V. Srinivasa Sarma (১৯৯৬)। A History of Indian Literature। Motilal Banarsidass। পৃষ্ঠা 252–262। আইএসবিএন 978-81-208-0264-3 
  8. Friedrich Max Müller (১৮৬০)। A History of Ancient Sanskrit Literature। Williams and Norgate। পৃষ্ঠা 169–170। 
  9. Brian K. Smith (১৯৯৮)। Reflections on Resemblance, Ritual, and Religion। Motilal Banarsidass। পৃষ্ঠা 120–137 with footnotes। আইএসবিএন 978-81-208-1532-2 
  10. Kireet Joshi (১৯৯১)। The Veda and Indian Culture: An Introductory Essay। Motilal Banarsidass। পৃষ্ঠা 97–98। আইএসবিএন 978-81-208-0889-8 
  11. Barbara A. Holdrege (২০১২)। Veda and Torah: Transcending the Textuality of Scripture। State University of New York Press। পৃষ্ঠা 71–72। আইএসবিএন 978-1-4384-0695-4 
  12. Monier Monier-Williams (১৮৭৬)। Indian Wisdom। W. H. Allen & Company। পৃষ্ঠা 195–198। 

গ্রন্থপঞ্জি

সম্পাদনা