ওয়াসিম (অভিনেতা)

ওয়াসিম (জন্ম: ২৩ মার্চ ১৯৫০) হলেন একজন বাংলাদেশী চলচ্চিত্র অভিনেতা। তাকে বাংলা চলচ্চিত্রের অ্যাকশন এবং ফোক ফ্যান্টাসির নায়ক হিসেবে অপ্রতিদ্বন্দ্বী মনে করা হয়।[১] তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্র হল রাজমহল, চন্দন দ্বীপের রাজকন্যা, দি রেইন

ওয়াসিম
জন্ম
মেজবাহ উদ্দীন আহমেদ

(1950-03-23) ২৩ মার্চ ১৯৫০ (বয়স ৭০)
জাতীয়তাবাংলাদেশি
পেশাচিত্রনায়ক
কার্যকাল১৯৭৬ – ২০১০
উল্লেখযোগ্য কর্ম
রাজমহল, চন্দন দ্বীপের রাজকন্যা, দি রেইন
সন্তানদেওয়ান ফারদিন, বুশরা আহমেদ (মৃত)

চলচ্চিত্র জীবনসম্পাদনা

প্রখ্যাত চিত্র পরিচালক এস এম শফীর হাত ধরে চলচ্চিত্র জগতে অভিষেক ঘটে ওয়াসিমের। ১৯৭২ সালে শফী পরিচালিত ‘ছন্দ হারিয়ে গেলো’ চলচ্চিত্রের সহকারী পরিচালক হন তিনি। এতে ছোট একটি চরিত্রে অভিনয়ও করেন। ১৯৭৪ সালে আরেক প্রখ্যাত চিত্রনির্মাতা মহসিন পরিচালিত ‘রাতের পর দিন’ চলচ্চিত্রে প্রথম নায়ক হিসেবে আত্মপ্রকাশ তার। চলচ্চিত্রটির অসামান্য সাফল্যে রাতারাতি সুপারস্টার বনে যান তিনি।

ওয়াসিম দেড়শ’র মতো ছবিতে নায়ক ছিলেন। হাতেগোনা অল্প কিছু ছবি ছাড়া প্রতিটি ছবিই সুপারহিট হয়েছিল। ‘দি রেইন’ তাকে বিশ্ববাসীর কাছে পরিচয় করিয়ে দিয়েছিল সেদিন। পৃথিবীর ৪৬টি দেশে ‘দি রেইন’ মুক্তি পেয়েছিল। ছবিতে ওয়াসিমের নায়িকা অলিভিয়া। পরবর্তী সময়ে ওয়াসিম-অলিভিয়া জুটি বেঁধে বেশ কয়েকটি ছবিতে অভিনয় করেন। ‘বাহাদুর’ এর মধ্যে একটি উল্লেখযোগ্য। এছাড়া লুটেরা, লাল মেম সাহেব, বেদ্বীন প্রভৃতিও সফল হয়েছিল। শাবানা, সুচরিতা, অঞ্জু ঘোষ, সুজাতা প্রমুখের বিপরীতেও তিনি অভিনয় করেছিলেন। তবে শাবানা আর অলিভিয়ার সঙ্গে ওয়াসিম যেসব ছবিতে অভিনয় করেছেন তার প্রতিটিই ব্যবসাসফল হয়েছিল। ‘রাজ দুলারী’তে ওয়াসিম ও শাবানার অভিনয় সেদিন দর্শকদের দারুণ মুগ্ধ করেছিল। ছবিতে তাদের মুখের গানগুলো ছিল দর্শকের মুখে মুখে ফেরে ।[২]

ব্যক্তিগত জীবনসম্পাদনা

ওয়াসিম বিয়ে করেছিলেন চিত্রনায়িকা রোজীর ছোট বোনকে। তাদের সংসারে দুটি সন্তান – পুত্র দেওয়ান ফারদিন এবং কন্য বুশরা আহমেদ। ২০০০ সালে তার স্ত্রীর অকালমৃত্যু ঘটে। ২০০৬ সালে ওয়াসিমের কন্যা বুশরা আহমেদ চৌদ্দ বছর বয়সে মানারাত ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের পাঁচতলা থেকে লাফিয়ে পড়ে আত্মহত্যা করেন। পরীক্ষা চলাকালীন নকলের অভিযোগ তার পরিবারকে জানাবার প্রাক্কালে বাথরুমে যাওয়ার কথা বলে বুশরা লাফ দেন। অন্যদিকে পুত্র ফারদিন লন্ডনের কারডিফ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এলএলএম পরীক্ষায় কৃতিত্বের সঙ্গে উত্তীর্ণ হয়ে এখন ব্যারিস্টার হিসেবে আইন পেশায় নিয়োজিত।[৩]

ওয়াসিম পড়াশোনায় ইতিহাস বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। কলেজের ছাত্রাবস্থায় তিনি বডি বিল্ডার হিসেবে নাম করেছিলেন। ১৯৬৪ সালে তিনি বডি বিল্ডিং এর জন্য ইস্ট পাকিস্তান খেতাব অর্জন করেছিলেন।[৩]

চলচ্চিত্রের তালিকাসম্পাদনা

  • ছন্দ হারিয়ে গেলো
  • রাতের পর দিন
  • ডাকু মনসুর
  • কে আসল কে নকল
  • দি রেইন
  • দোস্ত দুশমন
  • আসামী হাজির
  • মিস লোলিতা
  • রাজ দুলারী
  • জিঘাংসা
  • বাহাদুর
  • মানসী
  • দুই রাজকুমার
  • সওদাগর
  • নরম গরম
  • ইমান
  • চন্দন দ্বীপের রাজকন্যা
  • লুটেরা
  • লাল মেম সাহেব
  • বেদ্বীন
  • রাজনন্দিনী
  • রাজমহল
  • বিনি সুতার মালা

সম্মাননাসম্পাদনা

  • কমিটমেন্ট সাংস্কৃতিক একাডেমি থেকে আজীবন সম্মাননা - ২০১৬[৪]

তথ্যসমূহসম্পাদনা

  1. "ওয়াসিমের জীবন এর গল্প"দৈনিক আমার দেশ। ঢাকা, বাংলাদেশ। ৪ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জানুয়ারি ২০১৫ 
  2. "ওয়াসিমের চলচিত্র জীবন"দৈনিক আমার দেশ। ঢাকা, বাংলাদেশ। ৪ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জানুয়ারি ২০১৫ 
  3. "যেমন আছেন অভিনেতা ওয়াসিম"বাংলাদেশ প্রতিদিন। ১১ এপ্রিল ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জুন ২০১৯ 
  4. "Wasim to get Lifetime Achievement Award"দ্য নিউ নেশন (ইংরেজি ভাষায়)। ৪ মে ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জুন ২০১৯ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা