এ. কে. এম. সিরাজুল ইসলাম খান

বাংলাদেশী শিক্ষাবিদ

এ. কে. এম. সিরাজুল ইসলাম খান (আনু. ১৯৪৩ – ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯) বাংলাদেশের একজন শিক্ষায়তনিক ব্যক্তি ও অণুজীব বিজ্ঞানী ছিলেন। তিনি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম উপাচার্য ছিলেন।[১][২]

এ. কে. এম. সিরাজুল ইসলাম খান
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য
কাজের মেয়াদ
৮ জুলাই ২০০৬ – ২৬ জুলাই ২০০৮
পূর্বসূরীপদ প্রতিষ্ঠিত
উত্তরসূরীআবু হোসেন সিদ্দিক
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্মআনু. ১৯৪৩
মৃত্যু১৪ ডিসেম্বর ২০১৯ (বয়স ৭৬)
জাতীয়তাবাংলাদেশি

এ. কে. এম. সিরাজুল ইসলাম খান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অণুজীব বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান ছিলেন।[৩] তিনি সেন্টার ফর অ্যাডভান্সড রিসার্চ ইন সায়েন্সেসের চেয়ারম্যান ছিলেন। এছাড়া, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব হেলথ অ্যান্ড লাইফ সায়েন্সের ডিন হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন।[৩] তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুজীব বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ছিলেন। তিনি বাংলাদেশ অনুজীব বিজ্ঞানী সমিতির চেয়ারম্যান হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন।[৪] তিনি ২০০৬ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে ২০০৮ সালের ২৬ জুলাই পর্যন্ত জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন।[৫]

এ. কে. এম. সিরাজুল ইসলাম খান ২০১৯ সালের ১৪ ডিসেম্বর ৭৬ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করেন।[৩][৪]

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. "জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়"বাংলাপিডিয়া। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯ 
  2. "বর্ণাঢ্য আয়োজনে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উদ্‌যাপন"সমকাল। ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯ 
  3. "জবির প্রথম উপাচার্য সিরাজুল ইসলাম খান আর নেই"প্রথম আলো। ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  4. "জগন্নাথের প্রথম উপাচার্য সিরাজুল ইসলামের মৃত্যু"বিডিনিউজ২৪.কম। ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯। ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯  একের অধিক |archiveurl= এবং |আর্কাইভের-ইউআরএল= উল্লেখ করা হয়েছে (সাহায্য); একের অধিক |archivedate= এবং |আর্কাইভের-তারিখ= উল্লেখ করা হয়েছে (সাহায্য); একের অধিক |url-status= এবং |ইউআরএল-অবস্থা= উল্লেখ করা হয়েছে (সাহায্য)
  5. "উপাচার্য মহোদয়গণের মেয়াদকাল"জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯