এএফসি কাপ এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশন (এএফসি) কর্তৃক আয়োজিত একটি বাৎসরিক মহাদেশীয় ক্লাব ফুটবল প্রতিযোগিতা।মর্যাদার দিক দিয়ে এটি এএফসি চ্যাম্পিয়নস লীগের পর এশিয়ার দ্বিতীয় সর্বোচ্চ প্রতিযোগিতা।২০০৪ সাল থেকে এ প্রতিযোগিতা চালু করা হয়। এশীয় অঞ্চলের উঠতি ফুটবল দেশগুলোর সেরা ক্লাবগুলো নিয়ে এই টুর্নামেন্টের আয়োজন হচ্ছে।

এএফসি কাপ
প্রতিষ্ঠিত২০০৪; ২০ বছর আগে (2004)
বিলুপ্ত২০২৪; ০ বছর আগে (2024)
অঞ্চলএশিয়া (এএফসি)
দলের সংখ্যা৩৬-৪৮ (মূল গ্রুপ পর্ব)
৫৯ (মোট)
সম্পর্কিত
প্রতিযোগিতা
এএফসি চ্যাম্পিয়নস লিগ
এএফসি প্রেসিডেন্টস কাপ
সর্বশেষ চ্যাম্পিয়নঅস্ট্রেলিয়া সেন্ট্রাল কোস্ট মেরিনার্স (১ম শিরোপা)
সবচেয়ে সফল দলকুয়েত আল-কুয়েত
ইরাক আল-কুয়া আল-জাউইয়া
(৩টি শিরোপা)
ওয়েবসাইটঅফিসিয়াল ওয়েবসাইট
২০২৩–২৪ এএফসি কাপ

আল-কুয়েত এসসি এবং আল-কোওয়া আল জাওয়াইয়া প্রতিযোগিতার ইতিহাসের সবচেয়ে সফল ক্লাব, যার মধ্যে তিনটি করে শিরোপা জিতেছে। কুয়েতের ক্লাবগুলি চারটি শিরোপা জিতেছে, তাদেরকে এই প্রতিযোগিতায় সবচেয়ে সফল দেশ করেছে। ২০০৪ সালে প্রতিযোগিতার উদ্বোধনের পর থেকে প্রতি আসরের ফাইনালিস্টরা পশ্চিম এশিয়া থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত ক্লাবগুলির আধিপত্য বজায় রেখেছে যখন পূর্ব এশিয়া থেকে মালয়েশিয়ার দল জোহর দারুল তা'জিম চূড়ান্ত পর্বে পরিণত হয়েছিল এবং চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল। ২০১৯-এর ফাইনালে এপ্রিল ২৫ স্পোর্টস ক্লাবকে পরাজিত করার পর আল-আহেদ চ্যাম্পিয়ন হয়।

এএফসি কাপ ২০২৩-২৪ মৌসুমের শেষের পর বন্ধ হয়ে যাবে, যেখানে এএফসি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ২ এবং এএফসি চ্যালেঞ্জ লিগ এশিয়ার নতুন দ্বিতীয় এবং তৃতীয়-স্তরের প্রতিযোগিতা হিসেবে চালু করা হয়েছে।[১][২]

ইতিহাস সম্পাদনা

এএফসি কাপ ২০০৪ সালে এএফসি চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সাথে সম্পর্কিত একটি দ্বিতীয় স্তরের প্রতিযোগিতা হিসাবে শুরু হয়েছিল কারণ ১৪টি দেশ যারা উন্নয়নশীল অবস্থার অধিকারী ছিল তারা প্রথম প্রতিযোগিতায় ১৮টি দল মনোনীত হয়েছিল। গ্রুপ এ, বি, সি তে ছিল পশ্চিম ও মধ্য এশিয়ার দল এবং বাকি দুটি গ্রুপে ছিল পূর্ব ও দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া। বিজয়ী এবং তিন রানার্স আপ তারপর নক-আউট পর্বে যাবে যেখানে কে খেলতে যাচ্ছে তা এলোমেলো ড্র ছিল। আল-জইশ প্রথম এএফসি কাপ নিয়েছিল যখন তারা সিরিয়ার প্রতিপক্ষ আল-ওয়াহদাকে অ্যাওয়ে গোলে পরাজিত করেছিল।

২০০৫ সালে, ১৮ টি দল নয়টি দেশ থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিল এবং দেশগুলিকে এখনও একটি বা দুটি দল থেকে বেছে নেওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। চার বছর ধরে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে চেষ্টা করার জন্য সিরিয়ার দলগুলো এএফসি কাপ ছেড়ে যাওয়ার পর, আল-ফয়সালি ফাইনালে নেজমেহকে পরাজিত করে। এটির সাথে, জর্ডানের দলগুলি বাহরাইন লিগে যোগদানের সাথে পরবর্তী দুটি এএফসি কাপ মরসুমে জিতবে এবং ২০১৪ সালে টুর্নামেন্টের বিলুপ্তি না হওয়া পর্যন্ত বাংলাদেশ এএফসি প্রেসিডেন্টস কাপ-এ অবনমিত হয়েছিল।

আল-মুহাররাক ২০০৮ সালে নিয়মিত ছকটি ভেঙ্গে ফেলেছিল কারণ তারা শেষ দুই-লেগ ফাইনালে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিল এবং এটি এক লেগ পদ্ধতিতে ফিরে যাওয়ার আগে, যা এখনও চলছে।

ফলাফল ও পরিসংখ্যান সম্পাদনা

ফাইনাল সম্পাদনা

বছর দেশ ঘরের দল ফলাফল বাইরের দল দেশ স্থান দর্শক সংখ্যা
২০০৪   সিরিয়া আল-ওয়াহদা ২–৩ আল-জইশ   সিরিয়া   আব্বাসিয়িন স্টেডিয়াম, দামাস্কাস
  সিরিয়া আল-জইশ ০–১ আল-ওয়াহদা   সিরিয়া   আব্বাসিয়িন স্টেডিয়াম, দামাস্কাস
সম্মিলিত ফল ৩–৩, আল-জইশ অ্যাওয়ে গোলে জয়ী
২০০৫   জর্ডান আল-ফয়সলি ১–০ নাজমেহ   লেবানন   আম্মান আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম, আম্মান
  লেবানন নাজমেহ ২–৩ আল-ফয়সলি   জর্ডান   রফিক এল-হারিরি স্টেডিয়াম, বেইরুট
আল-ফয়সলি জয়ী ৪–২ সম্মিলিত ফলে
২০০৬   জর্ডান আল-ফয়সলি ৩–০ আল-মুহাররক   বাহরাইন   আম্মান আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম, আম্মান ৭,০০০
  বাহরাইন আল-মুহাররক ৪–২ আল-ফয়সলি   জর্ডান   বাহরিন জাতীয় স্টেডিয়াম, রিফ্ফা ৩,০০০
আল-ফয়সলি জয়ী ৫–৪ সম্মিলিত ফলে
২০০৭   জর্ডান আল-ফয়সলি ০–১ শাবাব আল-অর্দন   জর্ডান   আম্মান আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম, আম্মান ৫,৫০০
  জর্ডান শাবাব আল-অর্দন ১–১ আল-ফয়সলি   জর্ডান   আম্মান আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম, আম্মান ৭,৫০০
শাবাব আল-অর্দন জয়ী ২–১ সম্মিলিত ফলে
২০০৮   বাহরাইন আল-মুহাররক ৫–১ সাফা   লেবানন   বাহরিন ন্যাশনাল স্টেডিয়াম, রিফ্ফা ৬,০০০
  লেবানন সাফা ৪–৫ আল-মুহাররক   বাহরাইন   স্পোর্টস সিটি স্টেডিয়াম, বেইরুট ২,০০০
আল-মুহাররক ১০–৫ সম্মিলিত ফলে জয়ী
বছর দেশ চ্যাম্পিয়ন ফলাফল রানার্স-আপ দেশ মাঠ দর্শক সংখ্যা
২০০৯   কুয়েত আল-কুয়েত ২–১ আল-কারামাহ   সিরিয়া   আল কুয়েত স্পোর্টস ক্লাব স্টেডিয়াম, কুয়েত সিটি ১৭,৪০০
২০১০   সিরিয়া আল-ইত্তিহাদ ১–১ (অ.স.প.)
(৪–২ পে.)
আল-কাদসিয়া   কুয়েত   জাবির আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম, কুয়েত সিটি ৫৮,৬০৪
২০১১   উজবেকিস্তান এফসি নাসাফ ২–১ আল-কুয়েত   কুয়েত   মারকাজি স্টেডিয়াম, কারশি ১৫,৭৫৩
২০১২   কুয়েত আল-কুয়েত ৪–০ এরবিল   ইরাক   ফ্রান্সো হারিরি স্টেডিয়াম, এরবিল ৩০,০০০
২০১৩   কুয়েত আল-কুয়েত ২–০ আল-কাদসিয়া   কুয়েত   আল-সাদাকুয়া ওয়ালসালাম স্টেডিয়াম, কুয়েত সিটি ১০,০০০
২০১৪   কুয়েত আল-কাদসিয়া ০–০ (অ.স.প.)
(৪–২ পে.)
এরবিল এসসি   ইরাক   মাক্তুম বিন রশিদ আল মাক্তুম স্টেডিয়াম, দুবাই ৫,২৪০
২০১৫   মালয়েশিয়া জোহর দারুল তা'জিম ১–০ ইস্তিকলোল   তাজিকিস্তান   পামির স্টেডিয়াম, দুশান্‌বে ১৮,০০০
২০১৬   ইরাক আল-কুয়া আল-জাউইয়া ১–০ বেঙ্গালুরু   ভারত   সুহেম বিন হামাদ স্টেডিয়াম, দোহা ৫,৮০৬
২০১৭   ইরাক আল-কুয়া আল-জাউইয়া ১–০ ইস্তিকলোল   তাজিকিস্তান   হিসর সেন্ট্রাল স্টেডিয়াম, হিসর ২০,০০০
২০১৮   ইরাক আল-কুয়া আল-জাউইয়া ২–০ আল্টিন আসির   তুর্কমেনিস্তান   বাসরা আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম, বাসরা ২৪,৬৬৫
২০১৯   লেবানন আল-আহেদ ১–০ এপ্রিল ২৫   উত্তর কোরিয়া   কুয়ালালামপুর স্টেডিয়াম, কুয়ালালামপুর ৫০০
২০২০ কোভিড-১৯ মহামারীর জন্য বাতিল[৩]
২০২১   বাহরাইন আল-মুহাররক ৩–০ এফসি নাসাফ   উজবেকিস্তান   আল-মুহাররক স্টেডিয়াম, আরাদ ৯,০৬০
২০২২   ওমান আল-সীব ৩–০ কুয়ালালামপুর সিটি   মালয়েশিয়া   বুকিত জলিল জাতীয় স্টেডিয়াম, কুয়ালালামপুর ২৭,৭২২
২০২৩/২৪   অস্ট্রেলিয়া সেন্ট্রাল কোস্ট মেরিনার্স ১–০ আল-আহেদ   লেবানন   সুলতান কাবুস স্পোর্টস কমপ্লেক্স, মাস্কাট ১,৯৩০

দেশ অনুযায়ী সম্পাদনা

দেশ চ্যাম্পিয়ন রানার্স-আপ মোট
  কুয়েত
  ইরাক
  জর্ডান
  সিরিয়া
  বাহরাইন
  লেবানন
  উজবেকিস্তান
  মালয়েশিয়া
  ওমান
  অস্ট্রেলিয়া
  তাজিকিস্তান
  ভারত
  তুর্কমেনিস্তান
  উত্তর কোরিয়া

মৌসুমের সেরা খেলোয়াড় সম্পাদনা

বছর খেলোয়াড়গণ ক্লাব
২০১১   আর্তার গেভরকিয়ান   এফসি নাসাফ
২০১২   রজারিনহো   আল-কুয়েত
২০১৩   বদর আল-মুতাওয়া   আল-কাদসিয়া
২০১৪   সঈফ আল-হাসান
২০১৫   শফিক রহিম   জোহর দারুল তা'জিম
২০১৬   হাম্মাদি আহমেদ   আল-কুয়া আল-জাউইয়া
২০১৭   মনুচেখর ঝালিলোভ   ইস্তিকলোল
২০১৮   হাম্মাদি আহমেদ   আল-কুয়া আল-জাউইয়া
২০১৯   মেহদী খালিল   আল-আহেদ
২০২১   আব্দুল-ওয়াহাব আল-মালুদ   আল-মুহাররক
২০২২   ঈদ আল-ফারসি   আল-সীব ক্লাব
২০২৩/২৪   মাইকেল ডোকা   সেন্ট্রাল কোস্ট মেরিনার্স

উপমহাদেশীয় দলগুলোর প্রদর্শন সম্পাদনা

ভারতীয় ক্লাব বেঙ্গালুরু এফসি ছাড়া আর কোনো উপমহাদেশীয় দল এখনো সেভাবে নজর কাড়তে পারেনি এই টুর্নামেন্টে।

  • ২০১৫ সালে ভারতীয় ক্লাব বেঙ্গালুরু এফসি টুর্নামেন্টে ১৬ দলের রাউন্ডে পৌঁছায় ।
  • ২০১৬ সালে বেঙ্গালুরু এফসি টুর্নামেন্টে রানারআপ হয়।
  • ২০১৭ সালে বেঙ্গালুরু এফসি টুর্নামেন্টে ইন্টার জোন প্লে অফ রানারআপ হয়।
  • ২০১৮ সালে বেঙ্গালুরু এফসি টুর্নামেন্টে ইন্টার জোন প্লে অফ সেমিফাইনালিস্ট হয়।

বাঙালি ক্লাব হিসেবে ভারতের ইস্টবেঙ্গল ক্লাব ২০১৩ সালে সেমি-ফাইনালিস্ট হয়েছিল।

স্পনসর সম্পাদনা

প্রধান স্পনসর সমূহ:[৪]

তথ্যসূত্র সম্পাদনা

  1. "AFC Competitions Committee recommends strategic reforms to elevate Asian club football"theAFC.com (ইংরেজি ভাষায়)। ২৪ ডিসেম্বর ২০২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ডিসেম্বর ২০২২ 
  2. "AFC Executive Committee approves biggest prize purse in Asian club football history from 2024/25; announces AFC Women's Champions League"AFC। ১৪ আগস্ট ২০২৩। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০২৩ 
  3. "AFC Executive Committee announces updates to 2020 competitions calendar"। AFC। ১০ সেপ্টেম্বর ২০২০। ৫ অক্টোবর ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ নভেম্বর ২০২১ 
  4. "AFC Cup League"। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ 

বহিঃসংযোগ সম্পাদনা