উইলিস কাটেল

ইংরেজ ক্রিকেটার

উইলিস রবার্ট কাটেল (ইংরেজি: Willis Cuttell; জন্ম: ১৩ সেপ্টেম্বর, ১৮৬৩ - মৃত্যু: ৯ ডিসেম্বর, ১৯২৯) ইয়র্কশায়ারের শেফিল্ডে জন্মগ্রহণকারী বিখ্যাত ইংরেজ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট তারকা ছিলেন। ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৮৯৯ সময়কালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে ইংল্যান্ডের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছিলেন। ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ইংরেজ কাউন্টি ক্রিকেটে ল্যাঙ্কাশায়ারের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ব্যাটসম্যানের দায়িত্ব পালন করতেন। এছাড়াও, ডানহাতে স্লো বোলিং করতেন উইলিস কাটেল

উইলিস কাটেল
Willis Cuttell c1905.jpg
আনুমানিক ১৯০৫ সালের গৃহীত স্থিরচিত্রে উইলিস কাটেল
ব্যক্তিগত তথ্য
জন্ম১৩ সেপ্টেম্বর ১৮৬৩
শেফিল্ড, ইংল্যান্ড
মৃত্যু৯ ডিসেম্বর ১৯২৯
নেলসন, ইংল্যান্ড
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি স্লো
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ২২৭
রানের সংখ্যা ৬৫ ৫৯৩৮
ব্যাটিং গড় ১৬.২৫ ২০.৯০
১০০/৫০ -/- ৫/২১
সর্বোচ্চ রান ২১ ১৩৭
বল করেছে ২৮৫ ৪৪৩৭২
উইকেট ৭৯২
বোলিং গড় ১২.১৬ ১৯.৫৯
ইনিংসে ৫ উইকেট ৫০
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৩/১৭ ৮/১০৫
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ২/- ১৪১/-
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৯ জুন ২০১৮

আলবার্ট হলামের সাথে একত্রে খেলেন। ১৮৯৭ সালে তাদের সহায়তায় এবং জনি ব্রিগসআর্থার মোল্ডের অনবদ্য ভূমিকায় ল্যাঙ্কাশায়ারকে প্রথমবারের মতো কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপের প্রথম আনুষ্ঠানিক শিরোপা লাভে প্রভূতঃ ভূমিকা রাখেন। এছাড়াও সাত বছর পর ল্যাঙ্কাশায়ারের চ্যাম্পিয়নশীপের শিরোপা জয়ে তার বোলিং অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল। ঐ মৌসুমের পুরোটা সময়ই দলটি অপরাজিত অবস্থায় থাকে।

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অংশগ্রহণসম্পাদনা

খুব ধীরগতিতে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে আগমন ঘটে উইলিস কাটেলের। কাটেলের শুরুরদিকের ক্রিকেটে যাত্রা শুরু হয় ল্যাঙ্কাশায়ার লীগে অ্যাক্রিংটন ক্লাবে খেলার মাধ্যমে। ইয়র্কশায়ারে জন্মগ্রহণ করায় ও বাবা উইলিয়াম কাটেল ১৮৬০-এর দশকে খেলায় তিনিও ইয়র্কশায়ার একাদশে খেলার চেষ্টা চালান। তবে, প্রতিপক্ষের বিপক্ষে কয়েকটি খেলায় অংশগ্রহণের পর প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অংশগ্রহণ থেকে বিরত থাকেন ও লীগ ক্রিকেটে চলে যান। ১৮৯১ সালে নেলসন ক্লাবে চলে যান। সেখানে বিখ্যাত ক্রিকেটার টেড ম্যাকডোনাল্ড ল্যাঙ্কাশায়ারের পক্ষে খেলার সুযোগ পেয়েছিলেন। লীগ ক্রিকেটে উইলিস কাটেল সেরা বোলার হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলেন। ১৮৯৫ সালে উইকেট প্রতি সাড়ে আট রান দিয়ে ১০৬ উইকেট পান ও ১৮৯৩ সালে লীগের খেলায় ১১৮ উইকেট পান।

ল্যাঙ্কাশায়ারে দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করায় অবশেষে ১৮৯৬ সালে ল্যাঙ্কাশায়ারের পক্ষে খেলার সুযোগ লাভ করেন। ঐ মৌসুমে তিনি মাত্র দুই খেলায় অংশ নিতে পেরেছিলেন। কিন্তু, আবারও দলের বাইরে চলে যেতে হয়। তবে, পরের বছর শুরুতে ধীরলয়ে অগ্রসর হলেও ক্রমশঃ প্রথম-শ্রেণীর কাউন্টি ক্রিকেটের মানদণ্ডে নিজেকে নিয়ে আসেন। ব্যাটিং উপযোগী পিচে তেমন সুবিধা করতে না পারলেও মৌসুমের শেষদিকে অনুপযুক্ত ব্যাটিং পিচে বেশ সফলতা দেখান। শেষ খেলায় নটিংহ্যামশায়ারের বিপক্ষে ৮১ রান দিয়ে বারো উইকেট পান। ল্যাঙ্কাশায়ারের সকল প্রথম-শ্রেণীর খেলায় গড়ে শীর্ষস্থান দখল করেন। ফলশ্রুতিতে উইজডেন কর্তৃক অন্যতম বর্ষসেরা ক্রিকেটার হিসেবে মনোনীত হন তিনি।[১]

১৮৯৮ সালে আলবার্ট হলামের অসুস্থতা, আর্থার মোল্ডের আরও একবার আঘাতপ্রাপ্তি ও জনি ব্রিগসের দূর্বল ক্রীড়াশৈলীর কারণে উইলিস কাটেল ল্যাঙ্কাশায়ারের প্রধান বোলিং স্তম্ভ হয়ে উঠেন। বৃষ্টিবিঘ্নিত উইকেটে বেশ রান দিয়ে উইকেট লাভ করলেও ব্যাটিংয়ে বেশ অগ্রসর হন। সহস্রাধিক রান ও শতাধিক উইকেটের ন্যায় ডাবল লাভ করেন। জুলাইয়ে বোলিং উপযোগী পিচে নিজস্ব সেরা ৮/১০৫ বোলিং পরিসংখ্যান গড়েন গ্লুচেস্টারশায়ারের বিপক্ষে।

টেস্ট ক্রিকেটসম্পাদনা

ইংল্যান্ড দলের সাথে দক্ষিণ আফ্রিকা গমন করেন। ম্যাটিং উইকেটে তার বোলিংয়ের ভারসাম্যতা থাকা স্বত্ত্বেও তার খেলার ধরনের সাথে একমাত্র টেস্টে তেমন কিছুই করতে পারেননি।

পরের বছর খুব অল্পসংখ্যক খেলাতেই সফলতা পেয়েছিলেন। ফলশ্রুতিতে, অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে খেলার জন্য তাকে মনোনীত করা হয়নি। কিন্তু, ব্যাট হাতে ব্যাপক সফলতা পান। নটিংহ্যামশায়ারের বিপক্ষে ১৩৭ রান সংগ্রহসহ অন্য মৌসুমের তুলনায় বেশ রান তুলেছিলেন।

১৯০০ সালে উইলিস কাটেল নিজেকে ইংল্যান্ডের অন্যতম সেরা বোলারে রূপান্তরে প্রয়াস চালান। কিন্তু, রোডস ও গিডিওন হেইয়ের পোতানো উইকেটে সফলতা প্রাপ্তির প্রেক্ষিতে কাটেলের দিন শেষের দিকে চলে যেতে থাকে। ১৯০১ থেকে ১৯০৩ সালের মধ্যে ব্যাট কিংবা বল হাতে তাকে রুখে দাঁড়াতে দেখা যায়নি। কিন্তু, ১৯০৪ সালের মে মাসে বেশকিছু পোতানো উইকেটে দূর্দান্ত বোলিং করেন উইলিস কাটেল। সিডনি বার্নসকে ছাড়াই বিস্ময়করভাবে ল্যাঙ্কাশায়ার চ্যাম্পিয়নশীপের শিরোপা জয় করে।

১৯০৫ সালে তেমন সফলতা না পেলেও ১৯০৬ সালে কাটেল বেশ ভালোমানের বোলিং করেন। গিডিওন হেইয়ের তুলনায় এগিয়ে থেকে শতাধিক উইকেট নিয়ে জাতীয় বোলিং গড়ে এগিয়ে যান।

খেলার ধরনসম্পাদনা

উইলিস কাটেল ধীরগতিসম্পন্ন ডানহাতি বোলার ছিলেন। অপ্রত্যাশিতভাবে বলকে লেগের দিক থেকে বাঁক করানোর অধিকারী ছিলেন। ফলে ঝুঁকি গ্রহণকারী ব্যাটসম্যানেরাই কেবল বল মোকাবেলায় সক্ষমতা দেখাতেন। অত্যন্ত নিখুঁত নিশানায় বল ফেলতেন ও তিনি তার সময়কালে খেলাকে নিজেদের দিকে নিয়ে আসতেন। পিচের সুবিধা পেলে তাকে খেলা অসম্ভব হয়ে পড়তো।

অবসরসম্পাদনা

৪৩ বছর বয়সে রাগবিতে কোচ হিসেবে যোগদানের সিদ্ধান্ত নেন। ১৯২৬ সাল পর্যন্ত এ দায়িত্বে ছিলেন। ৬৩ বছর বয়সে কাউন্টি খেলায় আম্পায়ার হিসেবে ছিলেন। কিন্তু, স্বাস্থ্যের ক্রমাবনতিতে এ দায়িত্ব মাত্র দুই বছর পালন করেছিলেন।

৯ ডিসেম্বর, ১৯২৯ তারিখে ল্যাঙ্কাশায়ারের নেলসনে ৬৬ বছর বয়সে উইলিস কাটেলের দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

আরও দেখুনসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা