উইলিয়াম মিল্টন

দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটার

স্যার উইলিয়াম হেনরি মিল্টন (ইংরেজি: William Milton; জন্ম: ৩ ডিসেম্বর, ১৮৫৪ - মৃত্যু: ৬ মার্চ, ১৯৩০) বাকিংহামশায়ারের লিটল মার্লো এলাকায় জন্মগ্রহণকারী দক্ষিণ আফ্রিকান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। এছাড়া, ম্যাশোনাল্যান্ডের তৃতীয় প্রশাসকের দায়িত্ব পালন করেছেন উইলিয়াম মিল্টন[১]

স্যার উইলিয়াম মিল্টন

স্যার উইলিয়াম মিল্টন
উইলিয়াম মিল্টন.jpg
৪র্থ দক্ষিণ রোডেশিয়ার প্রশাসক
কাজের মেয়াদ
২০ ডিসেম্বর, ১৯০১ – ১ নভেম্বর, ১৯১৪
সার্বভৌম শাসকসপ্তম এডওয়ার্ড
পঞ্চম জর্জ
পূর্বসূরীআলবার্ট গ্রে
উত্তরসূরীফ্রান্সিস চ্যাপলিন
৩য় ম্যাশোনাল্যান্ডের প্রশাসক
কাজের মেয়াদ
৫ ডিসেম্বর, ১৮৯৮ – ২০ ডিসেম্বর, ১৯০১
ডেপুটিআর্থার ললি
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম৩ ডিসেম্বর, ১৮৫৪
লিটল মার্লো, বাকিংহামশায়ার, ইংল্যান্ড
মৃত্যু৬ মার্চ, ১৯৩০
কান, ফ্রান্স
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামউইলিয়াম হেনরি মিল্টন
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি
ভূমিকাব্যাটসম্যান, অধিনায়ক
সম্পর্কজাম্বো মিল্টন (পুত্র)
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ )
১২ মার্চ ১৮৮৯ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট১৯ মার্চ ১৮৯২ বনাম ইংল্যান্ড
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৮৮৯/৯০–১৮৯০/৯১ওয়েস্টার্ন প্রভিন্স
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা
রানের সংখ্যা ৬৮ ১৫২
ব্যাটিং গড় ১১.৩৩ ১৩.৮১
১০০/৫০ –/– –/–
সর্বোচ্চ রান ২১ ৪৭
বল করেছে ৭৯ ১১৪
উইকেট
বোলিং গড় ২৪.০০ ১৫.৭৫
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ১/৫ ১/৫
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ২/– ৫/–
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ৫ এপ্রিল ২০১৮

রাগবি খেলায় বেশ সুদক্ষ ছিলেন ও ইংল্যান্ডের পক্ষে রাগবি খেলায় অংশ নিয়েছেন। ক্রিকেটে দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষাবলম্বন করেন। দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটের ইতিহাসে দ্বিতীয় টেস্ট অধিনায়কত্ব করেন তিনি।

প্রারম্ভিক জীবনসম্পাদনা

বাকিংহামশায়ারের লিটল মার্লো এলাকায় উইলিয়াম হেনরি মিল্টনের জন্ম। মার্লবোলা কলেজে পড়াশোনা করেছেন তিনি। ১৮৭৪ ও ১৮৭৫ সালে ইংল্যান্ডের পক্ষে রাগবি খেলায় অংশগ্রহণ করেন তিনি। এরপর দক্ষিণ আফ্রিকায় অভিবাসিত হন। ১৮৭৮ সাল থেকে কেপ টাউনে বসবাস করতে থাকেন। ১৮৭০-এর দশকের শেষদিকে উইনচেস্টার কলেজ ফুটবল দলের বিপক্ষে বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিল। মিল্টন ভিলেজার্স ক্লাবে যোগ দেন। রাগবি খেলার কারণে কেপ টাউন ছাড়া সর্বত্র ফুটবলে প্রভাব পড়তে শুরু করে। এমনকি উইনচেস্টারের খেলায়ও রাগবির কারণে পরিত্যক্ত হয়।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটে ওয়েস্টার্ন প্রভিন্সের প্রতিনিধিত্ব করেছেন তিনি। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ব্যাটসম্যানের দায়িত্বে ছিলেন। এছাড়াও ডানহাতে বোলিংয়ে পারদর্শীতা দেখিয়েছেন উইলিয়াম হেনরি মিল্টন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটসম্পাদনা

১২ মার্চ, ১৮৮৯ তারিখে নিজ জন্মভূমি ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট অভিষেক ঘটে উইলিয়াম মিল্টনের। ১৮৮৮-৮৯ মৌসুমে পোর্ট এলিজাবেথে দক্ষিণ আফ্রিকা দলের ইতিহাসের প্রথম টেস্টে অংশ নেন তিনি।

পরের খেলায় কেপ টাউনে দ্বিতীয় টেস্টে দলের অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি প্রথম টেস্টের দায়িত্ব পালনকারী অধিনায়ক ওয়েন ডানেলের স্থলাভিষিক্ত হন। এরপর ১৮৯১-৯২ মৌসুমে নিজস্ব তৃতীয় ও চূড়ান্ত খেলায় কেপ টাউন টেস্টে অধিনায়কত্ব করেন। সর্বমোট তিনটি প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অংশ নিয়েছেন। দুইটি ওয়েস্টার্ন প্রভিন্স ও অন্যটি কেপ টাউন ক্লাবসের পক্ষে খেলেন।

প্রশাসকত্বসম্পাদনা

এরপর ম্যাশোনাল্যান্ডে চলে যান ও বন্ধু সেসিল জন রোডসের প্রভাবে ২৪ জুলাই ১৮৯৭ থেকে ২৪ জানুয়ারি, ১৯০১ তারিখ পর্যন্ত ম্যাশোনাল্যান্ডের তৃতীয় প্রশাসকের দায়িত্ব পালন করতে থাকেন। ১৯০১ তারিখে গৃহীত সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে ম্যাশোনাল্যান্ড ও মাতাবেলেল্যান্ডকে একত্রিত করা হয় যা তিন বছর পূর্বেই ঠিক করা হয়েছিল। এরফলে পুরো দক্ষিণ রোডেশিয়ার প্রশাসক মনোনীত হন তিনি। ৬০ বছর বয়সে ১৯১৪ সালে কর্মজীবন থেকে অবসর গ্রহণ করেন উইলিয়াম মিল্টন। ১৯২২ সালে বুলাওয়ের সর্ববৃহৎ বিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তিত হয়ে তার সম্মানার্থে মিল্টন হাই স্কুল নামকরণ হয়।

ব্যক্তিগত জীবনসম্পাদনা

ব্যক্তিগত জীবনে বিবাহিত মিল্টন তিন সন্তানের জনক ছিলেন। সেসিল ও জাম্বো মিল্টন নামীয় সন্তানদ্বয় ছিল ইংল্যান্ডের পক্ষে রাগবি খেলায় অংশ নিয়েছেন। অন্য সন্তান নোয়েল অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষে খেলেছেন। ৭৫ বছর বয়সে ফ্রান্সের কানে উইলিয়াম মিল্টনের দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "List of captains: South Africa – Tests"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 

আরও দেখুনসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা

ক্রীড়া অবস্থান
পূর্বসূরী
ওয়েন ডানেল
দক্ষিণ আফ্রিকা জাতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক
১৮৮৮/৮৯-১৮৯১/৯২
উত্তরসূরী
আর্নেস্ট হলিওয়েল
রাজনৈতিক দপ্তর
পূর্বসূরী
আলবার্ট গ্রে
দক্ষিণ রোডেশিয়ার প্রশাসক
১৯০১-১৯১৪
উত্তরসূরী
ফ্রান্সিস চাপলিন