উইকিপিডিয়া আলোচনা:নিবন্ধ সৃষ্টিকরণ/ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

সক্রিয় আলোচনা

ভূমিকাসম্পাদনা

প্রাচ্যের অক্সফোর্ড বলা হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কে। এটি এশিয়ার ১০০ টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে ৬৪ তম। এর যাত্রা শুরু হয় ১৯২১ সালের ১ জুলাই থেকে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার জন্য জায়গা দান করেছিলেন নবাব স্যার সলিমুল্লাহ

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের বিরুধিতাসম্পাদনা

কথিত আছে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার বিরুধিতা করেছিলেন। অনেক গবেষক বই লিখেছেন যেখানে কেউ বলেছেন রবীন্দ্রনাথ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার বিরুধিততা করেছেন আবার কেউ বলেছেন করেন নি।

একনজরে বিরুধিতাসম্পাদনা

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায় রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বিরুধিতা করেননি লিখা এমন দুজন উল্লেখযোগ্য লেখক হলেন কুলদা রায় এবং এম আর জালাল। তারা তাদের বই "" ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা ও রবীন্দ্রনাথের বিরুধিতা বইয়ে উল্লেখ করেন যে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার বিরুধিতা করেননি। উল্লেখযোগ্য কুলদা রায়ের জন্ম ১৯৬৫ সালে যা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ৪৪ বছর এবং এম আর জালালের জন্ম ১৯৫৫ সালে যা ৩৪ বছর পরে।

কিন্তু বাংলা সাহিত্যের দীর্ঘজীবী লেখক নীরদচন্দ্র চৌধুরী তার বইয়ে উল্লেখ করেন যে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার বিরুধিতা করেন। উল্লেখ্য যে নীরদচন্দ্র চৌধুরীর জন্ম ১৮৯৭ সালে এবং মৃত্যু ১৯৯৮ সালে। তাঁর জন্ম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ২৪ বছর আগে।

নীরদচন্দ্র চৌধুরী ছাড়াও আরও অনেকে তাদের বইয়ে লিখেছেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার বিরুধিতা করেন।।

১৯১২ সালের ২৮ মার্চ কলকাতার গড়ের মাঠে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার বিরুদ্ধে একটি সভা ডাকা হয়। যার সভাপতি ছিলেন স্বয়ং রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। কারণ তিনি ছিলেন জমিদার। সূত্রঃ দি অটোবায়োগ্রাফি অব আননোন ইন্ডিয়া- নীরদচন্দ্র চৌধুরী


১৯১২ সালের ২৮ মার্চ কলকাতার গড়ের মাঠে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্টার বিরুদ্ধে একটি সভা হয়। যার সভাপতি ছিলেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। তার দুদিন আগে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করতে দেওয়া যাবেনা। সূত্রঃ কলকাতা ইতিহাসের দিনলিপি - ড. নীরদ বরণ হাজরা, ২য় খন্ড, ৪র্থ পর্ব।

" তাহলে কি রবীন্দ্রনাথ চায়নি তার জমিদারির অন্তর্ভূক্ত বাঙ্গালি সন্তানেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের আলো পেয়ে ধন্য হোক... বলতে আরও লজ্জা হয় যে সে সময়কার ভাইসরয় লর্ড হার্ডিন্জ্ঞ কে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা না করার জন্য ১৮ বার স্মারকলিপি দিয়ে চাপ সৃষ্টি করা হয়। তারা এতটা নিচে নেমে ছিল যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কে বিদ্রুপ করে বলত মক্কা বিশ্ববিদ্যালয়। সূত্রঃ জীবনের স্মৃতিদ্বীপে - ড. রমেশচন্দ্র মজুমদার

"নিবন্ধ সৃষ্টিকরণ/ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর" প্রকল্প পাতায় ফিরুন।