ইস্টার্ন মেট্রোপলিটান বাইপাস

ইস্টার্ন মেট্রোপলিটান বাইপাস (সংক্ষেপে ই এম বাইপাস) পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী কলকাতা মহানগরীর উত্তর ও দক্ষিণাংশকে সংযোগকারী একটি প্রধান রাস্তা। উত্তর কলকাতার উল্টোডাঙা থেকে দক্ষিণ কলকাতার কামালগাজি পর্যন্ত মহানগরীর পূর্বপ্রান্ত বরাবর প্রসারিত ২১ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের এই রাস্তাটি ইস্টার্ন মেট্রোপলিটন বাইপাস নামে পরিচিত। পরবর্তীকালে কলকাতা মহানগরীর সাথে দক্ষিণ ২৪ পরগণা জেলার দ্রুত যোগাযোগ ব্যবস্থার জন্য কলকাতা এবং দক্ষিণ ২৪ পরগণা জেলার সংযোগকারী হিসাবে কামালগাজী উড়ালপুল তৈরি করা হয়। কামালগাজী উড়ালপুলের পর থেকে বারুইপুর পর্যন্ত ১১ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের এই রাস্তাটি সাদার্ন বাইপাস অথবা এক্সটেনডেড ইস্টার্ন মেট্রোপলিটান বাইপাস নামে পরিচিত৷ ইস্টার্ন মেট্রোপলিটান বাইপাস কলকাতার একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা ও শহরের অর্থনৈতিক জীবনরেখা বলে বিবেচিত হয়। বর্তমানে হুগলী নদীর তীরে অবস্থিত ফলতার ফলতা রফতানি প্রক্রিয়াকরণ ক্ষেত্র বা ফলতা এক্সপোর্ট প্রসেসিং জোন (এফইপিজেড) পর্যন্ত রাস্তাটিকে প্রসারিত করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।

ইস্টার্ন মেট্রোপলিটান বাইপাস।
ইস্টর্না মেট্রোপলিটন বাইপাসের উপর একটি উড়ালপুল

বেশ কয়েকটি ‘কানেকটর’ বা সংযোগকারী রাস্তা মহানগরীর কেন্দ্রীয় অঞ্চলগুলির সঙ্গে বাইপাসের যোগাযোগ রক্ষা করছে। এই কানেকটরগুলির মধ্যে পার্কসার্কাস-বাইপাস সংযোগকারী পার্কসার্কাস কানেকটর এবং গড়িয়াহাট-বাইপাস সংযোগকারী রাসবিহারী কানেকটর বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। অন্যান্য কানেকটরগুলি হল : কামালগাজি-সোনারপুর কানেকটর; ঢালাইব্রীজ-গড়িয়া স্টেশন কানেকটর; গড়িয়া-পাটুলি টাউনশিপ কানেকটর;নরেন্দ্রপুর কালীতলা-রাজপুর কানেকটর সন্তোষপুর-যাদবপুর সংযোগকারী সন্তোষপুর অ্যাভিনিউ; ঢাকুরিয়া, সাউথ সিটি মল, লেক গার্ডেন্স সংযোগকারী প্রিন্স আনোয়ার শাহ রোড এবং মানিকতলা বাজার সংযোগকারী মানিকতলা কানেকটর।

পার্কসার্কাস কানেকটর ও বাইপাসের সংযোগস্থলে অবস্থিত কলকাতার অন্যতম প্রধান দ্রষ্টব্য সায়েন্স সিটি। আবার রাসবিহারী কানেকটরটি কলকাতার অন্যতম প্রধান বেসরকারি চিকিৎসালয় রুবি জেনারেল হসপিটালের কাছে বাইপাসের সঙ্গে মিলিত হয়েছে। এছাড়াও বাইপাসের দুইপাশে গড়ে উঠেছে কলকাতার বহু দ্রষ্টব্যস্থল ও প্রতিষ্ঠান। এছাড়াও বাইপাস কলকাতার তথ্যপ্রযুক্তি কেন্দ্র বিধাননগর সেক্টর-ফাইভ ও নবদিগন্ত টাউনশিপ এবং নবনির্মিত স্যাটেলাইট টাউনশিপ রাজারহাট নিউ টাউনের প্রবেশপথ। এই কারণে বাইপাসকে কলকাতার অর্থনৈতিক পুনরুজ্জীবনের একটি প্রতীক হিসেবে গণ্য করা হয়ে থাকে।

ইস্টার্ন মেট্রোপলিটান বাইপাসের ধারে অবস্থিত কলকাতার গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান, ভবন ও দ্রষ্টব্যস্থলগুলি হল:

এগুলি ছাড়াও সিলভার স্প্রিং, অভিস্তিকা, গ্রিনউড নুক, কলকাতা গ্রিনস, রাজাওয়াদা, উদয়ন ও হাইল্যান্ড পার্কের মতো বেশ কয়েকটি বিলাসবহুল আবাসন চত্বর ই এম বাইপাসের ধারে গড়ে উঠেছে।

বর্তমানে বাইপাসের চিংরিহাটা থেকে কামালগাজি পর্যন্ত অংশকে বিশ্ব বাংলা সরণির অন্তর্গত করা হয়েছে।

চিকিৎসা কেন্দ্রসম্পাদনা

কলকাতা হেল্থ গ্রীন করিডোর হচ্ছে এই সড়ক। এখানে সবরকম সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালগুলো রয়েছে :

  • রুবি জেনারেল হসপিটাল, বি কে রায় রিসার্চ সেন্টার, অ্যাপোলো গ্লিনিগল হসপিটালের মতো অত্যাধুনিক চিকিৎসাকেন্দ্র।
  • ফর্টিস হাসপাতাল - হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যসেবা সরবরাহকারীদের জন্য জাতীয় স্বীকৃতি বোর্ড অনুমোদনপ্রাপ্ত হাসপাতাল। এটি সংস্থাটির পূর্ব ভারতের একমাত্র শাখা।
  • মেডিকা সুপারস্পেশালিটি হাসপাতাল
  • রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর আন্তর্জাতিক হৃদবিজ্ঞান প্রতিষ্ঠান
  • পিয়ারলেস হসপিটাল
  • IRIS হসপিটাল

আরও দেখুনসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা

আরও দেখুনসম্পাদনা