মুসলমানদের ভারত বিজয়

(ইসলামের ভারত বিজয় থেকে পুনর্নির্দেশিত)


ভারতীয় উপমহাদেশে মুসলিম বিজয় শুরু হয় প্রধানত ১২শ থেকে ১৬শ শতাব্দীতে। তবে ৮ম শতাব্দীতে মুসলমানেরা রাজপুত সাম্রাজ্যে (বর্তমান আফগানিস্তানপাকিস্তানে) কিছু কিছু হামলা চালিয়েছিল। দিল্লি সালতানাত প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে ইসলাম উপমহাদেশের বড় অংশে ছড়িয়ে পড়ে। ১২০৪ সালে বখতিয়ার খিলজি বাংলা জয় করেন যা ছিল তৎকালে মুসলিম বিশ্বের সবচেয়ে উত্তর প্রান্ত।

ভারতীয় উপমহাদেশের ইতিহাস

দক্ষিণ এশিয়া
প্রস্তর যুগ ৭০,০০০-৩৩০০খ্রীষ্টপূর্ব
মেহেরগড় • ৭০০০-৩৩০০খ্রীষ্টপূর্ব
হরপ্পা ও মহেঞ্জদর সভ্যতা ৩৩০০-১৭০০খ্রীষ্টপূর্ব
হরপ্পা সংস্কৃতি ১৭০০-১৩০০খ্রীষ্টপূর্ব
বৈদিক যুগ ১৫০০-৫০০খ্রীষ্টপূর্ব
লৌহ যুগ ১২০০-৩০০খ্রীষ্টপূর্ব
ষোড়শ মহাজনপদ • ৭০০-৩০০খ্রীষ্টপূর্ব
মগধ সাম্রাজ্য • ৫৪৫খ্রীষ্টপূর্ব
মৌর্য সাম্রাজ্য • ৩২১-১৮৪খ্রীষ্টপূর্ব
মধ্যকালীন রাজ্যসমূহ ২৫০খ্রীষ্টপূর্ব
চোল সাম্রাজ্য • ২৫০খ্রীষ্টপূর্ব
সাতবাহন সাম্রাজ্য • ২৩০খ্রীষ্টপূর্ব
কুষাণ সাম্রাজ্য • ৬০-২৪০ খ্রীষ্টাব্দ
বাকাটক সাম্রাজ্য • ২৫০-৫০০ খ্রীষ্টাব্দ
গুপ্ত সাম্রাজ্য • ২৮০-৫৫০ খ্রীষ্টাব্দ
পাল সাম্রাজ্য • ৭৫০-১১৭৪ খ্রীষ্টাব্দ
রাষ্ট্রকুট • ৭৫৩-৯৮২
ইসলামের ভারত বিজয়
সুলতানী আমল • ১২০৬-১৫৯৬
দিল্লি সালতানাত • ১২০৬-১৫২৬
দাক্ষিনাত্যের সুলতান • ১৪৯০-১৫৯৬
হৈসল সাম্রাজ্য ১০৪০-১৩৪৬
কাকতীয় সাম্রাজ্য ১০৮৩-১৩২৩
আহমন সাম্রাজ্য ১২২৮-১৮২৬
বিজয়নগর সাম্রাজ্য ১৩৩৬-১৬৪৬
মুঘল সাম্রাজ্য ১৫২৬-১৮৫৮
মারাঠা সাম্রাজ্য ১৬৭৪-১৮১৮
শিখ রাষ্ট্র ১৭১৬-১৮৪৯
শিখ সাম্রাজ্য ১৭৯৯-১৮৪৯
ব্রিটিশ ভারত ১৮৫৮–১৯৪৭
ভারত ভাগ ১৯৪৭–বর্তমান
জাতীয় ইতিহাস
বাংলাদেশভুটানভারত
মালদ্বীপনেপালপাকিস্তানশ্রীলংকা
আঞ্চলিক ইতিহাস
আসামবেলুচিস্তানবঙ্গ
হিমাচল প্রদেশউড়িষ্যাপাকিস্তানের অঞ্চল সমূহ
পাঞ্জাবদক্ষিণ ভারততিব্বত
বিশেষায়িত ইতিহাস
টঙ্কনরাজবংশঅর্থনীতি ভারততত্ত্ব
ভাষাবিজ্ঞানের ইতিহাসসাহিত্যনৌসেনা
সেনাবিজ্ঞান ও প্রযুক্তিসময়রেখা

১৪ শতকে খিলজি বংশের, আলাউদ্দিন খিলজি তার সাম্রাজ্যের সীমানা দক্ষিণে গুজরাত,রাজস্থানদাক্ষিণাত্য মালভূমি এবং তুগলক রাজবংশ তাদের সীমানা তামিলনাড়ু পর্যন্ত বাড়ায়। কিন্তু দিল্লি সালতানাত ভেংগে গেলে ভারতীয় উপমহাদেশ জুড়ে অনেক গুলো নতুন সালতানাতে আবির্ভাব ঘটে, যার মধ্যে গুজরাত সালতানাত, মালওয়া সালতানাত, তৎকালীন পৃথিবীর সবচেয়ে বড় বাণিজ্য পথের অধিকারী বাংলা সালতানাত[১][২]

মারাঠা সাম্রাজ্যব্রিটিশ রাজত্বের পূর্বে মুসলিম মুঘল সাম্রাজ্য ভারতের অধিকাংশ রাজ্যকে দখল বা দমন করতে সক্ষম হয়। তবে কিছু প্রান্তিক রাজ্য তারা দখল করতে পারেনি, যেমন - হিমালয়ের উপরাংশে হিমাচল প্রদেশ, উত্তরখণ্ড, সিকিম, নেপালভুটান; দক্ষিণ ভারতে ট্রাভাঙ্কর ও তামিলনাড়ু এবং পূর্বে আসামের আহোম সাম্রাজ্য

প্রাথমিক মুসলিম গোষ্ঠীসম্পাদনা

আরব উপদ্বীপে ইসলামের উৎপত্তি ও বিস্তৃতির অল্পকালের মধ্যেই তা আরব বণিক, সুফি ও ধর্মপ্রচারকদের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে সমুদ্র-উপকূলবর্তী অঞ্চল সিন্ধ, বাংলা, গুজরাট, কেরালা এবং সিলনে। মুসলিমরা এসব স্থানে বসতি করেন এবং স্থানীয় মেয়েদের বিয়ে করেন। ৬৪৩ খ্রীষ্টাব্দে খোলাফায়ে রাশেদীনের সময়ে আরব বিশ্ব প্রথম নৌপথে ভারত উপমহাদেশে আক্রমণ করে, স্থলপথে আক্রমণ করে তার অনেক পরে।

আরব নৌঅভিযানসম্পাদনা

৬৪৩ সনে বাহরাইন ও ওমানের গভর্নর উসমান ইবনে আবুল আস সাকিফী নৌবহর নিয়ে মুম্বাইয়ের নিকটে থান-এ হামলা চালান, তার ভাই হাকাম যাত্রা করেন ব্রোচে এবং আরেক ভাই মুগীরা আক্রমণ করেন দেবল। ফুতুহুল বুলদানের তথ্যমতে তিনটি অভিযানই সফল হয়,[৩] তবে অন্য সূত্রমতে মুগীরা দেবলে পরাজিত ও নিহত হন।[৪] এই অভিযানের কথা উমর কে জানানো হয়নি বলে তিনি উসমানকে তিরস্কার করেন।[৫] উল্লেখ্য, অভিযানগুলো হয়েছিলো জলদস্যুদের বিরুদ্ধে যারা আরব সাগরে তাদের বাণিজ্যপথ নিরাপদ রাখার জন্যে, ভারত জয়ের উদ্দেশ্যে নয়।[৬][৭][৮]

উমাইয়া অভিযানসম্পাদনা

মাকরান ও জাবুলিস্তানের লড়াইসম্পাদনা

হাজ্জাজের আমল ও সিন্ধু জয়সম্পাদনা

হিন্দুস্থানের উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত ইস্‌লামের সংস্পর্শে প্রথম আসে অষ্টম শতাব্দীর প্রথম দিকে। ৭১১–১২ খ্রীষ্টাব্দে, ওমায়িয়াদ যুগেই ইরাকের শাসনকর্তা হজ্জাদের নৌ-সেনাপতি মুহাম্মদ-বিন-কাসেম নিম্ন সিন্ধু উপত্যকা করে একটি ক্ষুদ্র আরব উপনিবেশ স্থাপন করেন।[৯] করাচির প্রায় পঁয়ষট্টি কিলোমিটার পূর্বে ‘ভামবোর’ নামক স্থানে মাটি খুঁড়ে সেই আদিম আরব উপনিবেশের ধ্বংসাবশেষ আবিষ্কৃত হয়েছে। তার ভিতর একটি মস্‌জিদকেই বলা যায় বৃহত্তর ভারত উপমহাদেশের প্রাচীনতম ইস্‌লামী স্থাপত্য-কীর্তি। মূলতান অঞ্চল ৭১৩ খ্রীষ্টাব্দে ইস্‌লাম-অভিযানের শিকার হয়।[৯] প্রথম যুগে কিন্তু বিজয়ী-বিজিতের সম্পর্কটা অত তিক্ত ছিল না। হিন্দু ও মুসলমান ওই মূলতান ও সিন্ধু অঞ্চলের নির্বিবাদে বসবাস করেছে, একে অপরের চিন্তাভাবনার হাতফিরি করেছে।[১০]

পরবর্তী মুসলিম আক্রমণসম্পাদনা

গজনবী সাম্রাজ্যসম্পাদনা

 
১৮৪৮ সনে সুলতান মাহমুদ গজনবীর সমাধি

ছবিটা বদলে গেল সুলতান সবুক্তগীনের ভারত আক্রমণের (৯৮৬–৯৮৭) সমসময়ে, এবং আরও বেশি করে তাঁর পুত্র সুলতান মাহ্‌মুদের উপর্যুপরি ভারত-লুণ্ঠনে। দশম শতকে উত্তর-পশ্চিম ভারতের ছোট ছোট রাজ্যগুলির দুর্বলতার সুযোগে ভারতের সঞ্চিত ঐশ্বর্যের প্রলোভনে গজনীর সুলতান সবুক্তগীন পাঞ্জাবের শাহী রাজ্য আক্রমণ করেন।[১১] সবুক্তগীন বিশেষ সাফল্যলাভ না-করলেও ৯৯৭ খ্রিস্টাব্দে তার মৃত্যুর পর পুত্র সুলতান মামুদ ১০০০ থেকে ১০২৭ খ্রিস্টাব্দের মধ্যে অন্তত সতেরো-বার ভারত আক্রমণ করেছিলেন।[১১] ১০০১ খ্রীষ্টাব্দে ভারতীয় হিন্দু রাজা জয়পাল পরাজিত হলেন; ১০২৫–২৬ খ্রিস্টাব্দে মামুদ সোমনাথের মন্দির লুণ্ঠনের জন্য দুবার অভিযান করেন।[৯][১১] তবু উত্তর-পশ্চিম বাদে ভারতের অন্যান্য অঞ্চলে তখনও ইস্‌লাম ছায়াপাত করেনি।[৯] আরও প্রায় দু’শ বছর পরে গজনীর সুলতান মহম্মদ বিন সাম—যাঁর সহজ পরিচয় ‘মহম্মদ ঘোরী’, এলেন উপর্যুপরি ভারত-লুন্ঠনের ধারণা নিয়ে; ১১৯২ খ্রীষ্টাব্দে তরাই-এর যুদ্ধ থেকে দিল্লী অঞ্চলে হিন্দু রাজত্বের অবসান হল বলে ধরে নেওয়া যায়।[৯]

মুহাম্মদ ঘুরীসম্পাদনা

মুইজউদ্দিন মুহাম্মাদ (ফার্সি: معزالدین محمد‎‎), জন্মনাম শিহাবউদ্দিন (১১৪৯ – মার্চ ১৫, ১২০৬), (মুহাম্মাদ ঘুরি বলেও পরিচিত) ছিলেন ঘুরি সাম্রাজ্যের সুলতান। তার ভাই গিয়াসউদ্দিন মুহাম্মাদের সাথে তিনি ১১৭৩ থেকে ১২০২ পর্যন্ত শাসন করেন। এরপর ১২০২ থেকে ১২০৬ পর্যন্ত তিনি সর্বো‌চ্চ শাসক হিসেবে শাসন করেন।

মহম্মদ ঘোরীর হাতে চৌহান বংশীয় পৃথ্বীরাজ—যাঁর রাজধানী ছিল দিল্লির লাটকোট অঞ্চলে—পরাজিত ও নিহত হলেন।[৯]

দিল্লি সালতানাতসম্পাদনা

দাস বংশসম্পাদনা

ভারত জয় করে মহম্মদ ঘোরী কোন উত্তরাধিকারী নির্বাচন করে যাননি। তাঁর কোন পুত্রসন্তান ছিল না।[৯] ১২১০ খ্রীষ্টাব্দে তিনি যখন নিহত হলেন তখন কির্মানের শাসনকর্তা তাজউদ্‌দীন য়ীলদিজ্ উঠে বসলেন গজনীর মসনদে এবং কুৎবউদ্‌দীন আইবক পেলেন ভারত শাসনের অধিকার।[৯] অচিরেই দুজনের সংঘাত বাধল এবং সে গৃহযুদ্ধে বিজয়ী হলেন কুৎবউদ্‌দীন। উঠে বসলেন গজনীর মসনদে। য়ীলদিজ্ নির্বাসিত হলেন।[৯] কিন্তু হঠাৎ সুলতান কুৎব বিলাসের স্রোতে গা ভাসালেন। গজনীর আমীর মালিকেরা বিরক্ত হয়ে নির্বাসিত য়ীলদিজ্কে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করল। কুৎব পরাজিত হলেন।[৯] কুৎব তৎক্ষণাৎ গজনীর মসনদ ছেড়ে রওনা দিলেন হিন্দুস্থানের দিকে।[৯]

কুৎববউদ্‌দীন আইবক দিল্লীতে এসে নতুন বংশের প্রতিষ্ঠা করলেন—যার প্রচলিত নাম ‘দাস বংশ’,[৯] যদিও ইদানীংকালে[কখন?] ঐতিহাসিকেরা[কে?] কথাটা পছন্দ করেন না।[৯] রাজধানী স্থাপন করলেন লাটকোট-এ, অর্থাৎ পূর্বযুগের চৌহান বংশীয় পৃথ্বীরাজের দুর্গ এলাকায়। বর্তমানে জায়গাটার নাম কুৎব-চত্বর[৯] সেখানে পূর্বযুগ থেকে ছিল একটি দুর্গ, প্রাসাদ, মন্দির ও নগরীর নানান জাতের সৌধ।[৯] কুৎবউদ্‌দীন আইবক সর্বপ্রথমেই নির্মাণ করতে চাইলেন একটি জাম-ই-মস্‌জিদ। তার নাম: ‘কুওওতুল মস্‌জিদ’[৯] ভিত্তি স্থাপন করলেন একটি বিজয় মিনারের—যা হতে চলেছে বিশ্বের বিস্ময়: কুৎব মিনার[৯]

তৈমুরসম্পাদনা

তৈমুর বিন তারাগাই বারলাস (চাগাতাই ভাষায়: تیمور - তেমোর্‌, "লোহা") (১৩৩৬ - ফেব্রুয়ারি, ১৪০৫) ১৪শ শতকের একজন তুর্কী-মোঙ্গল সেনাধ্যক্ষ[১২][১৩][১৪][১৫] তিনি পশ্চিম ও মধ্য এশিয়ার বিস্তীর্ণ অঞ্চল নিজ দখলে এনে তৈমুরি সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেন যা ১৩৭০ থেকে ১৪০৫ সাল পর্যন্ত নেতৃত্বে আসীন ছিল। এই অপরাজেয় সমরবিদ ইতিহাসের অন্যতম সফল সেনানায়ক হিসেবে পরিগণিত হন।[১৬][১৭][১৮]

মুঘল সাম্রাজ্যসম্পাদনা

বাবরসম্পাদনা

আওরঙ্গজেবসম্পাদনা

দুররানী সাম্রাজ্যসম্পাদনা

দুরারানি সাম্রাজ্য (পশতু: د درانیانو واکمني) সাদুজাই রাজ্য নামেও পরিচিত, ছিল আফগানিস্তানের সর্বশেষ সাম্রাজ্য।[১৯] ১৭৪৭ সালে কান্দাহারকে রাজধানী করে আহমদ শাহ দুররানি সাম্রাজ্যটি প্রতিষ্ঠা করেন।[২০][২১]

মুসলিম শাসনের পতনসম্পাদনা

১৭০৭ সালে সম্রাট আওরঙ্গজেবের মৃত্যুর পরই মূলত মুসলিম শাসকদের পতন হতে থাকে। ১৭৫৮ সালের মধ্যে মারাঠা সাম্রাজ্য দক্ষিণ এশিয়ার প্রায় অর্ধেক জায়গা জুড়ে তাদের সাম্রজ্য বিস্তার করতে সক্ষম হয়।

আরো দেখুনসম্পাদনা


তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Kulke, Hermann. (১৯৯৮)। A history of India। Rothermund, Dietmar. (3rd ed সংস্করণ)। London: Routledge। আইএসবিএন 0203443454ওসিএলসি 51067013 
  2. Vincent A Smith, গুগল বইয়ে The Oxford History of India: From the Earliest Times to the End of 1911, পৃ. 217,, Chapter 2, Oxford University Press
  3. আল বালাযুরি, আবুল আব্বাস আহমাদ , "কিতাব ফুতুহুল বুলদান, ২য় খণ্ড", pp227
  4. Fredunbeg, Mirza Kalichbeg, "The Chachnama: An Ancient History of Sind", pp57
  5. Murgotten, Francis Clark (১৯২৪)। The Origins Of The Islamic State Part II। Osmania University, Digital Library Of India। Longmans, Green And Company। 
  6. Sen, Sailendra Nath, "Ancient Indian History and Civilization 2nd Edition", pp346
  7. Khushalani, Gobind, "Chachnama Retold An Account of the Arab Conquests of Sindh", pp221
  8. Editors: El Harier, Idris, & M'Baye, Ravene , "Spread of Islam Throughout the World ", pp594
  9. নারায়ণ সান্যাল (আগস্ট ১৯৮৫)। অপরূপা আগ্রা। ৬বি, রামনাথ মজুমদার স্ট্রিট, কলকাতা: ভারতী বুক স্টল। 
  10. “The Arab settlers lived side by side with their Hindu fellow-citizens for many years on terms on terms of amity and peace”—মজুমদার, আর. সি. (১৯৪৫)। অ্যান অ্যাডভান্স্‌ড হিস্ট্রি অফ ইন্ডিয়া (ইংরেজি ভাষায়)। ম্যাকমিলান & কোং। পৃষ্ঠা ২৭৫। 
  11. অজয় গুপ্ত; অজন্তা সেনগুপ্ত (এপ্রিল ২০০৬)। ইতিহাসে ভারত ও বিশ্ব [নবম ও দশম শ্রেণির জন্য]। ১৫, শ্যামাচরণ দে স্ট্রিট, কলকাতা: দে বুক কনসার্ন। আইএসবিএন 88-88133-74-4 |আইএসবিএন= এর মান পরীক্ষা করুন: checksum (সাহায্য) 
  12. বি.এফ. মান্‌জ, "Tīmūr Lang", in এনসাইক্লোপিডিয়া অফ ইসলাম, Online Edition, 2006
  13. The Columbia Electronic Encyclopedia, "Timur", 6th ed., Columbia University Press: "... Timur (timoor') or Tamerlane (tăm'urlān), c.1336–1405, মোঙ্গল বিজেতা, b. কেশ, সমরখন্দের নিকটে. ...", (LINK)
  14. "Timur", in ব্রিটানিকা বিশ্বকোষ: "... [Timur] was a member of the Turkic Barlas clan of Mongols..."
  15. "Baber", in ব্রিটানিকা বিশ্বকোষ: "... Baber first tried to recover Samarkand, the former capital of the empire founded by his Mongol ancestor Timur Lenk ..."
  16. Muntakhab-ul-Lubab, Khafi Khan Nizam-ul-Mulk, Vol I, p. 49. Printed in Lahore, 1985
  17. Marozzi, Justin (২০০৪)। Tamerlane: Sword of Islam, conqueror of the world। HarperCollins। 
  18. Josef W. Meri (২০০৫)। Medieval Islamic Civilization। Routledge। পৃষ্ঠা 812। আইএসবিএন 9780415966900 
  19. "Last Afghan empire"Louis Dupree (professor), Nancy Hatch Dupree and others। Encyclopædia Britannica। ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৮-২৫ 
  20. "Aḥmad Shah Durrānī"। Encyclopædia Britannica। ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৮-২৫ 
  21. "Afghanistan (Archived)"John Ford Shroder। University of Nebraska। ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৩-২১ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা