ইমাম ইবনে রজব আল-হাম্বলী

ইমাম ইবনে রজব আল-হাম্বলী ছিলেন একজন মুসলিম বিদ্বান। তার পুরো নাম: জাইনুদ্দীন আবুল ফারাজ আব্দুর রহমান ইবনে আহমাদ ইবনে আব্দুর রহমান ইবনেুল হাসান ইবনে মুহাম্মাদ ইবনে আবি আল-বারাকাত মাস'উদ আস-সুলামি, আল-বাগদাদি, আল-হাম্বলী। তিনি ইবনে রজব নামেই সুপরিচিত। তার এ নাম তিনি পেয়েছিলেন তার দাদার থেকে যিনি হিজরি রজব মাসে জন্মগ্রহণ করেছিলেন।

জীবনীসম্পাদনা

ইমাম ইবনে রজব জন্মগ্রহণ করেন বাগদাদে ১৩৩৫ খ্রিষ্টাব্দে (৭৩৬ হিজরি)। তার দাদা ছিলেন একজন ধর্মতত্ত্ববিদ, ইসলামী শাস্ত্রের বিশিষ্ট বিদ্বান, বিশেষ করে হাদিস শাস্ত্রের। তার বাবাও বাগদাদে জন্মগ্রহণ করেছিলেন এবং বহু পণ্ডিতগণে কাছে শিক্ষা গ্রহণ করেছিলেন। তার বয়স যখন পাঁচ, ইবনে রজবের পরিবার দামেস্কে স্থানান্তরিত হয়, তখন তিনি জেরুজালেম সফর করেন এবং সেখানে আল-আলা'ঈর কাছে জ্ঞানার্জন করেন। এরপর তিনি বাগদাদে যান এবং সেখান থেকে মক্কা গমন করেন। মক্কায় তার পিতা তার শিক্ষার জন্য সু-ব্যবস্থা করে রাখেন। এরপর তিনি মিশর সফর করেন এবং এরপর আবার দামেস্কে ফিরে যান, সেখানে তিনি ছাত্রদের শিক্ষাদান শুরু করেন। তিনি ইবনে আন-নাকীব (মৃত্যু ৭৬৯ হিজরি), আস সুবকি, আল ইরাকি (৮০৬ হিজরি), মুহাম্মাদ ইবনে ইসমাইল আল খাব্বাজ এবং প্রমুখ বিদ্বানের কাছে শিক্ষা গ্রহণ করেন। তিনি যুগশ্রেষ্ঠ 'আলিমে দ্বীন ইবনে কায়্যিম আল যাওজিয়্যাহ রহঃ এর মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তার কাছে অধ্যয়ন করেন।  ইমাম আন-নববী রহঃ কর্তৃক রচিত প্রসিদ্ধ গ্রন্থ "চল্লিশ হাদিস" এর একটি বৃহৎ ব্যাখ্যা (শরাহ) ইবনে রজব রচনা করেছিলেন (জামি' আল-উলুম ওয়াল হিকাম) যা আজ পর্যন্ত চল্লিশ হাদীছের শ্রেষ্ঠ ব্যাখ্যা গ্রন্থ হিসেবে সমাদৃত হয়ে আসছে। জীবনের শেষ দিকে তিনি শ্রেষ্ঠতম হাদিসগ্রন্থ সহীহ আল-বুখারির ব্যাখ্যা রচনা শুরু করেন কিন্তু "জানাজার সালাত অধ্যায়ে" পৌঁছার আগেই মৃত্যু বরণ করেন। তিনি সেই গ্রন্থের নাম দিয়েছিলেন 'ফাতহুল বারি', যা পরবর্তীকালে দার ইবনে জাওযী থেকে ৭ খণ্ডে প্রকাশিত হয়েছে। ইবনে রজবের মৃত্যুর ২০ বৎসর পর ইবনে হাজার আসক্বালানী সহীহ আল-বুখারির ব্যাখ্যা রচনা শুরু করেন এবং ইবনে রজব আল হাম্বলীর সম্মানে গ্রন্থের শিরোনাম দেন ফাতহুল বারি। এটা সহিহ আল বুখারির শ্রেষ্ঠতম ব্যাখ্যাগ্রন্থ হিসেবে স্বীকৃত।

মৃত্যুসম্পাদনা

ইবনে রজব রহঃ ৭৯৫ হিজরি সনের চতুর্থ রমযানের পবিত্র এক রাতে (১৩৯৩ ঈসায়ী) মৃত্যুবরণ করেন। তখন তার বয়স হয়েছিল ৫৯ বছর। মৃত্যুর পর দিন তার জানাযার সালাত অনুষ্ঠিত হয় এবং তাকে সমাহিত করা হয় বাব আস-সাগীর কবরস্থানে।[১]

তার ব্যাপারে বিদ্বানদের মন্তব্যসম্পাদনা

ইবনে কাযি শুহবাহ ইবনে রজবের ব্যাপারে বলেন, "তিনি জ্ঞান বিজ্ঞানের বহু শাখায় পারদর্শী ছিলেন। তিনি হাম্বলী ফিকহের ওপর নিবিষ্ট মনে বহু সময় দেন একজন অদ্বিতীয় হাম্বলী ফকিহ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার আগ পর্যন্ত। হাদিসশাস্ত্রের বিভিন্ন অপূর্ণতা পূরণ করার জন্য, জ্ঞান অর্জনের জন্য নিজেকে অনুগত করে নিয়েছিলেন। তিনি লেখালেখির জন্য নির্জনতাকে বেঁছে নিয়েছিলেন।"[২]

হাফিয ইবনে হাজার আসক্বালানী তার ব্যাপারে বলেন, "তিনি খুব উচু পর্যায়ের হাদিসশাস্ত্রবিদ ছিলেন; উসুলুল হাদিস, রিজালশাস্ত্র, হাদিসের সনদ-মতন এবং হাদিসের অর্থ-ব্যাখ্যা সম্পর্কে পারদর্শী ছিলেন।"[৩]

ইমাম ইবনে মুফলিহ তার ব্যাপারে বলেন, "তিনি ছিলেন শাইখ, অন্যতম শ্রেষ্ঠ বিদ্বান, হাফিয, এবং এমন একজন যিনি পার্থিব জীবন থেকে বিমুখ। তিনি হাম্বলী মাযহাবের একজন প্রসিদ্ধ শায়খ (বিদ্বান) এবং বহু গুরুত্বপূর্ণ জ্ঞানগর্ভ গ্রন্থ রচনা করেছেন।"

কর্মসম্পাদনা

তাফসীর এবং কুরআন-সম্পর্কিত বিষয়েসম্পাদনা

  • তাফসীর সূরাহ আল-ইখলাস
  • তাফসীর সূরাহ আল-ফাতিহা
  • তাফসীর সূরাহ আন-নাসর
  • ই'রাব আল-বিসমিল্লাহ
  • আল-ইস্তিগনা বিল-কুর'আন

হাদীছ শাস্ত্র এবং ব্যাখ্যাসম্পাদনা

  •  শারহে জামি' আল-তিরমিযী
  • ফাতহুল বারী বি শারহে সাহীহুল বুখারী
  • জামি' আল-উলুম ওয়াল-হিকাম ফি শারহে খামসিনা হাদীছান মিন জাওয়ামি আল আল-কালিম (ইংরেজি অনুবাদ The Compendium of Knowledge and Wisdom নামে প্রকাশিত হয়েছে)
  • মা যি'বানি যা'ইয়ান উরসিলা ফি গানাম
  • ইখতিয়ার আল-আওলা ফি শারহে হাদীছ ইখতিসাম আল-মালা আল-আ'আলা
  • নূর আল-ইকতিবাস ফি মিশকাত ওয়াসিয়াত আন-নাবী লিবনে আব্বাস
  • গাইত আন-নাফা ফি শারহে হাদীছ তামসিল আল-মু'মিন বি খামাত আয-যারা
  • কাশফ আল-কুরবাহ ফি ওয়াসফি হালি আহলুল গুরবাহ

ফিকহসম্পাদনা

  • আল-ইস্তিখারাজ ফি আহকাম আল-খারাজ
  • আল-কাওয়া'ইদ আল-ফিকহিয়্যাহ
  • কিতাব আহকাম আল-খাওয়াতিম ওয়া মা ইয়াত'আলাকু বিহা
  • শারহুল মুহাররার[৪]

জীবনী ও ইতিহাস-সংক্রান্তসম্পাদনা

অন্যান্যসম্পাদনা

  • লাতা'ইফ আল-মা'আরিফ ফিমা লি মাওয়াসিম আল-আম মিন আল-ওয়াযা'ইফ
  • আত-তাখ্বীফ মিন আন-নার ওয়াত-তা'রীফ বি হালি দারুল বাওয়ার
  • আল-ফারক বাইনা আন-নাসীহাহ ওয়াত-তা'য়ীর
  • আহওয়াল আহলুল কুবুর

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Saleem al-Hilaali, Eeqaadh-ul-Himam (An abridgment of Jami' Ulum wa al-Hikam)" Pages 8-11
  2. Al-Jawhar-ul-Munaddad Page # 48
  3. Inbaa-ul-Ghamr
  4. হেলাল, ইমরান (২০২১)। হাম্বলী মাযহাবের ক্রমবিকাশ। হাম্বলী ফিকহ্। পৃষ্ঠা ১৩। 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা