ইপিজেড থানা

চট্টগ্রাম জেলার একটি মেট্রোপলিটন থানা

ইপিজেড বাংলাদেশের চট্টগ্রাম জেলার একটি মেট্রোপলিটন থানাচট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন এই থানাটি চট্টগ্রাম রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল, চট্টগ্রাম বন্দর ও বেশকিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কারণে বিখ্যাত।

ইপিজেড
মেট্রোপলিটন থানা
ইপিজেড বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
ইপিজেড
ইপিজেড
বাংলাদেশে ইপিজেড থানার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২২°২১′ উত্তর ৯১°৫৪′ পূর্ব / ২২.৩৫০° উত্তর ৯১.৯০০° পূর্ব / 22.350; 91.900স্থানাঙ্ক: ২২°২১′ উত্তর ৯১°৫৪′ পূর্ব / ২২.৩৫০° উত্তর ৯১.৯০০° পূর্ব / 22.350; 91.900 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগচট্টগ্রাম
জেলাচট্টগ্রাম
শহরচট্টগ্রাম
প্রতিষ্ঠাকাল৩০ মে, ২০১৩
আয়তন
 • মোট৯.৮২ কিমি (৩.৭৯ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১৩)
 • মোট৩,৫০,০০০
 • জনঘনত্ব৩৬০০০/কিমি (৯২০০০/বর্গমাইল)
সাক্ষরতার হার
 • মোট৭০%
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)
পোস্ট কোড৪২২৩ উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন

আয়তনসম্পাদনা

ইপিজেড থানার মোট আয়তন ৯.৮২ বর্গ কিলোমিটার।[১]

প্রতিষ্ঠাকালসম্পাদনা

২০১৩ সালের ৩০ মে বন্দরপতেঙ্গা থানা থেকে কিছু অংশ নিয়ে ইপিজেড থানা গঠন করা হয়।[১]

জনসংখ্যাসম্পাদনা

প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ের তথ্য অনুসারে ইপিজেড থানার আওতাধীন এলাকার লোকসংখ্যা প্রায় সাড়ে ৩ লাখ।[১]

অবস্থান ও সীমানাসম্পাদনা

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের দক্ষিণ-পশ্চিমাংশে ইপিজেড থানার অবস্থান। এর উত্তরে বন্দর থানা, পূর্বে কর্ণফুলি নদীকর্ণফুলি থানা এবং দক্ষিণে ও পশ্চিমে পতেঙ্গা থানা অবস্থিত।

প্রশাসনিক এলাকাসম্পাদনা

ইপিজেড থানার আওতাধীন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের এলাকাসমূহ হল:

সংসদীয় আসনসম্পাদনা

সংসদীয় আসন জাতীয় নির্বাচনী এলাকা[২] সংসদ সদস্য[৩][৪][৫][৬][৭] রাজনৈতিক দল
২৮৮ চট্টগ্রাম-১১ চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ২৭নং দক্ষিণ আগ্রাবাদ, ২৮নং পাঠানটুলী, ২৯নং পশ্চিম মাদারবাড়ী, ৩০নং পূর্ব মাদারবাড়ী, ৩৬নং গোসাইলডাঙ্গা, ৩৭নং উত্তর মধ্য হালিশহর, ৩৮নং দক্ষিণ মধ্য হালিশহর, ৩৯নং দক্ষিণ হালিশহর, ৪০নং উত্তর পতেঙ্গা৪১নং দক্ষিণ পতেঙ্গা ওয়ার্ড এম আবদুল লতিফ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ

গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনাসম্পাদনা

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "The Holy Times"www.theholytimes.com 
  2. "Election Commission Bangladesh - Home page"www.ecs.org.bd 
  3. "বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, জানুয়ারি ১, ২০১৯" (PDF)ecs.gov.bdবাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন। ১ জানুয়ারি ২০১৯। ২ জানুয়ারি ২০১৯ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৯ 
  4. "সংসদ নির্বাচন ২০১৮ ফলাফল"বিবিসি বাংলা। ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  5. "একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ফলাফল"প্রথম আলো। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  6. "জয় পেলেন যারা"দৈনিক আমাদের সময়। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  7. "আওয়ামী লীগের হ্যাটট্রিক জয়"সমকাল। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা