ইউনাইটেড বেঙ্গল লিবারেশন ফ্রন্ট

ইউনাইটেড বেঙ্গল লিবারেশন ফ্রন্ট ভারতের ত্রিপুরার একটি সশস্ত্র সংগঠন ছিল। এটি ত্রিপুরী জঙ্গি এবং অন্যান্য উপজাতি গোষ্ঠীগুলির বিরুদ্ধে বাংলাদেশ থেকে আসা বাঙ্গালী হিন্দুদের সুরক্ষার চেষ্টা করেছিল । ১৯৯৫ সালে এনএলএফটি এবং এটিটিএফের পাশাপাশি এটি প্রথম হাজির হয়। এর কমান্ডার এবং ক্যাডারদের বিষয়ে কোনও আনুষ্ঠানিক তথ্য নেই। ইউবিএলএফ বোমা বিস্ফোরণ, খুন এবং জিম্মি সংঘাতে জড়িত থাকার অভিযোগ করা হয় । এর সংঘাত ছিল আদিবাসী উপজাতি এবং আশেপাশের অন্যান্য স্থানীয় উপজাতির বিরুদ্ধে। ত্রিপুরার বাসিন্দা বাঙালি হিন্দুদের ধ্বংসের লক্ষ্য নিয়ে এটিটিএফ গঠনের পরেই ইউবিএলএফ অস্তিত্ব লাভ করেছিল। এটিটিএফ বাংলাদেশে জাতিগত নির্মূলের পরে ভারতে আগত বাঙালি হিন্দুদের বিরুদ্ধে একাধিক আক্রমণ চালিয়েছিল। এটিটিএফকে বাংলাভাষী মানুষের উপর কমপক্ষে ২০ টি হামলা করেছিল। ইউবিএলএফ গঠন ছিল বাঙালি হিন্দুদের হত্যার বিরুদ্ধে প্রত্যক্ষ প্রতিক্রিয়া। পরে ইউবিএলএফকে সরকার নিষিদ্ধ করেছিল।

তবে ইউবিএলএফের উপর নিষেধাজ্ঞা নিছক প্রতীকী, কারণ ভারত সরকার আদিবাসী জঙ্গি বিদ্রোহের আনুষ্ঠানিক পরাজয়ের ঘোষণা দেওয়ার পরে এটি ভেঙে দেওয়া হয়েছিল। বাঙালি শাসন ও আধিপত্য স্থায়ীভাবে প্রতিষ্ঠা হওয়ায় ইউবিএলএফ অস্তিত্ব রাখার আর কোনও কারণ খুঁজে পায়নি। [১]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "United Bengali Liberation Front, Tripura, India, South Asia Terrorism Portal"www.satp.org। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৭-০৫