আল-মানার (সাময়িকী)

আল-মানার ( আরবি: المنار ; 'বাতিঘর'), আরবি ভাষায় লেখা একটি ইসলামিক ম্যাগাজিন ছিল, এবং ১৮৯৮ সাল থেকে ১৯৩৫ সালে মিশরের কায়রোতে তার মৃত্যুর আগ পর্যন্ত রশিদ রিদা দ্বারা প্রতিষ্ঠিত, প্রকাশিত এবং সম্পাদনা করা হয়েছিল।[১][২]

আল-মানার
আল মানার ম্যাগাজিনের দ্বিতীয় সংখ্যার প্রচ্ছদ, ১৮৯৯
বিভাগইসলামিক ম্যাগাজিন
রাজনৈতিক ম্যাগাজিন
প্রকাশনা সময়-দূরত্বসাপ্তাহিক
মাসিক
প্রতিষ্ঠাতারশিদ রিদা
প্রতিষ্ঠার বছর১৮৯৮
সর্বশেষ প্রকাশ১৯৪০
দেশমিশর
ভিত্তিকায়রো
ভাষাআরবি

ইতিহাস এবং প্রোফাইল

সম্পাদনা

আল-মানার ১৮৯৮ সালে রশিদ রিদা প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।[২] পত্রিকাটি প্রতিষ্ঠায় তার লক্ষ্য ছিল সংস্কারবাদী ধারণাগুলি স্পষ্টভাবে প্রকাশ করা এবং প্রচার করা এবং মুসলিম জাতির ঐক্য রক্ষা করা।[৩] ম্যাগাজিনটি কায়রো ভিত্তিক ছিল।[১][৪] এটি সাপ্তাহিক হিসাবে শুরু হয়েছিল তবে পরে এর প্রকাশ সংখ্যাকে মাসিকে পরিবর্তন করা হয়েছিল।

রশিদ রিদা ম্যাগাজিনের একমাত্র প্রধান সম্পাদক ছিলেন।[২] এর বিষয়বস্তু ছিল কুরআনের ব্যাপকভাবে ব্যাখ্যা সম্পর্কে।[৪] রিদা আল-মানার অসংখ্য নিবন্ধ প্রকাশ করেছেন যা সৌদি আরবের ওয়াহাবি আন্দোলনের প্রশংসা করেছে।[৫] তবে পত্রিকাটিতে রাজনীতি সম্পর্কিত নিবন্ধগুলিও প্রকাশিত হত। অবদানকারীদের মধ্যে একজন ছিলেন আবদুর রহমান আল কাওকিবি, তিনি ছিলেন সিরিয়ার আলেপ্পোর পণ্ডিত।[৬] তার বই উম্মুল কুরা ১৯০২ সালের এপ্রিল থেকে ফেব্রুয়ারি ১৯০৩ সাল পর্যন্ত আল-মানার-এ ধারাবাহিকিত হয় যা একটি আরবীয়/শরীফিয়ান খেলাফত প্রতিষ্ঠার প্রস্তাব করেছিল।[৭]

১৯৩৫ সালে রশিদ রিদার মৃত্যুর পরে পত্রিকাটি অনিয়মিতভাবে ১৯৪০ সাল পর্যন্ত প্রকাশিত হয়েছিল।[৬] রিদা-র উত্তরাধিকারীরা দুটি ইস্যু প্রকাশ করেছিলেন এবং ১৯৩৯ থেকে ১৯৪০ সাল পর্যন্ত মুসলিম ব্রাদারহুডের অ্যাসোসিয়েশন আল-মানারের প্রকাশক ছিলেন।

উত্তরাধিকার

সম্পাদনা

আল-মানারের বৌদ্ধিক ঐতিহ্য আরব বিশ্বের জনপ্রিয় আন্দোলনদ্বারা গৃহীত মূল নীতিগুলির মধ্যে একটি, যার মধ্যে রয়েছে মিশরের মুসলিম ব্রাদারহুড এবং আলজেরিয়ায় আলজেরিয়া 'উলামা' সমিতি[৬]

আল-মানার ১৯০৮ থেকে ১৯১৮ সাল পর্যন্ত ওরেনবার্গে প্রকাশিত তুর্কি ভাষার ম্যাগাজিন শুরা সহ বিভিন্ন জার্নালকে অনুপ্রাণিত করেছিল।[৮][৯]

আরও দেখুন

সম্পাদনা

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা

 

  1. Joseph A. Kechichian (১৪ নভেম্বর ২০১৩)। "The Islamic reformer: Mohammad Rashid Reda"Gulf News। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০১৫ 
  2. Jakob Skovgaard-Petersen (১৯৯৭)। Defining Islam for the Egyptian State: Muftis and Fatwas of the Dār Al-Iftā। BRILL। পৃষ্ঠা 69। আইএসবিএন 90-04-10947-1 
  3. "Muhammad Rashid Rida"Oxford Reference। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০১৫ 
  4. Encyclopedia of the Middle East 
  5. Ghassan Salamé (Summer ১৯৮৭)। "Islam and politics in Saudi Arabia" (পিডিএফ): 309। জেস্টোর 41857933 
  6. Kosugi Yasushi (২০০৬)। "Al-Manar revisited: the "lighthouse" of the Islamic revival"। Intellectuals in the Modern Islamic World (পিডিএফ)। Routledge। পৃষ্ঠা 3–39। 
  7. Joshua Teitelbaum (১৯৯৮)। "Sharif Husayn ibn Ali and the Hashemite vision of the post‐Ottoman order: From chieftaincy to suzerainty": 104। ডিওআই:10.1080/00263209808701212 
  8. Roy Bar Sadeh (Summer ২০২০)। "Between Cairo and the Volga-Urals: Al-Manar and Islamic Modernism, 1905-17" 
  9. Stéphane A. Dudoignon (২০০৬)। "Echoes to Al-Manār among the Muslims of the Russian Empire"। Intellectuals in the Modern Islamic World (পিডিএফ)। Routledge। পৃষ্ঠা 85–116। 

বহিঃসংযোগ

সম্পাদনা