আর. এম. ব্যালেনটাইন

রবার্ট মাইকেল ব্যালেনটাইন (ইংরেজি: Robert Michael Ballantyne; ২৪ এপ্রিল, ১৮২৫ – ৮ ফেব্রুয়ারি, ১৮৯৪) ছিলেন একজন স্কটিশ কিশোর সাহিত্যস্রষ্টা। তিনি শতাধিক গ্রন্থ রচনা করেছিলেন। এছাড়া তিনি একজন দক্ষ শিল্পীও ছিলেন জলরঙে আঁকা তার কয়েকটি ছবি রয়্যাল স্কটিশ অ্যাকাডেমিতে প্রদর্শিত হয়েছিল।[১]

আর. এম. ব্যালেনটাইন
আর. এম. ব্যালেনটাইন, আনুমানিক ১৮৯০
আর. এম. ব্যালেনটাইন, আনুমানিক ১৮৯০
জন্ম(১৮২৫-০৪-২৪)২৪ এপ্রিল ১৮২৫
এডিনবরা, স্কটল্যান্ড
মৃত্যু৮ ফেব্রুয়ারি ১৮৯৪(1894-02-08) (বয়স ৬৮)
রোম, ইতালি
ছদ্মনামকমাস
পেশালেখক
জাতীয়তাস্কটিশ
সময়কাল১৯শ শতাব্দী
ধরনকিশোর সাহিত্য

প্রথম জীবনসম্পাদনা

১৮২৫ সালের ২৪ এপ্রিল স্কটল্যান্ডের এডিনবরায় জন্মগ্রহণ করেন আর. এম. ব্যালেনটাইন। তিনি ছিলেন আলেকজান্ডার থমসন ব্যালেনটাইন (১৭৭৬-১৮৪৭) ও তার স্ত্রী অ্যানির (১৭৮৬-১৮৫৫) দশ সন্তানের মধ্যে নবম তথা কনিষ্ঠ পুত্র। আলেকজান্ডার ছিলেন এডিনবরার দ্য ক্যাননগেটে পল’স ওয়ার্কে স্থিত পারিবারিক সংস্থা ব্যালেনটাইন অ্যান্ড কোম্পানির মুদ্রক ও একটি সংবাদপত্রের সম্পাদক।[২] রবার্টের জ্যাঠা জেমস ব্যালেনটাইন (১৭৭২-১৮৩৩) ছিলেন স্কটিশ লেখক স্যার ওয়াল্টার স্কটের মুদ্রক।[৩] জানা যায় যে, ১৮৩২-৩৩ সাল নাগাদ তাদের পরিবার এডিনবরার উত্তর নিউ টাউন অঞ্চলে ২০ নং ফেটস রো ঠিকানা বাস করতেন।[২] ১৮২৫ সালে সমগ্র যুক্তরাজ্যব্যাপী একটি ব্যাংকিং সঙ্কটকালে ব্যালেনটাইনদের মুদ্রণ ব্যবসা চরম ক্ষতির সম্মুখীন হয়। পরের বছর তাদের দেনার পরিমাণ দাঁড়ায় ১৩০,০০০ পাউন্ড।[৪] এর ফলে তাদের পারিবারিক সমৃদ্ধিরও অবসান ঘটে।[৩]

ষোলো বছর বয়সে ব্যালেনটাইন কানাডায় চলে যান। সেখানে পাঁচ বছর তিনি কাজ করেন হাডসন’স বে কোম্পানিতে। পশমের জন্য স্থানীয় নেটিভ আমেরিকানদের সঙ্গে তিনি ব্যবসা শুরু করেন। এই জন্য তাকে অধুনা যুক্তরাষ্ট্রের ম্যানিটোবা, অন্টারিও ও কুইবেক রাজ্যের বিভিন্ন অঞ্চলে কনু ও স্লেজ গাড়িতে ঘুরতে হত। এই ভ্রমণের অভিজ্ঞতার ভিত্তিতেই পরবর্তীকালে তিনি রচনা করেছিলেন স্নোফ্লকস অ্যান্ড সানবিমস (১৮৫৬) উপন্যাসটি।[৩] বাড়ি ও পরিবারের থেকে দীর্ঘ বিচ্ছেদ তাকে মায়ের উদ্দেশ্যে চিঠি লিখতে অনুপ্রাণিত করে। ব্যালেনটাইন তার আত্মজীবনীমূলক পারসোনাল রেমিনিসেন্সেস ইন বুক মেকিং (১৮৯৩) গ্রন্থে " আমি যতটুকু উপাদান সংগ্রহ করতে পারতাম, তার সবটুকুই লিখে দিতাম এই দীর্ঘ চিঠিগুলিতে।"[৫]

সাহিত্যকর্মসম্পাদনা

১৮৪৭ সালে স্কটল্যান্ডে ফিরে ব্যালেনটাইন দেখেন তার বাবার মৃত্যু ঘটেছে। তার প্রথম বই হাডসন’স বে: অর, লাইফ ইন দ্য ওয়াল্ডস অফ নর্থ আমেরিকা প্রকাশিত হয় পরের বছর। এই সময় কিছুকালের জন্য তিনি কাজ করেন প্রকাশক সংস্থা মেসার্স কনস্টেবলের হয়ে। ১৮৫৬ সালে লেখালিখিতে মনোনিবেশ করার জন্য তিনি ব্যবসা গুটিয়ে ফেলেন। এরপরই কিশোরদের উপযোগী অ্যাডভেঞ্চারধর্মী গল্প রচনা শুরু করেন ব্যালেনটাইন। এই গল্পগুলিই তাকে পাঠক মহলে জনপ্রিয় করে তোলে।[১]

গ্রন্থতালিকাসম্পাদনা

  • দ্য হাডসন’স বে কোম্পানি (১৮৪৮)
  • দি ইয়াং ফার ট্রেডার্স (১৮৫৬)
  • মিস্টার ফক্স। আ চিল্ড্রেন’স নার্সারি রাইম (১৮৫৬)
  • আনগাভা (১৮৫৭[৬])
  • দ্য কোরাল আইল্যান্ড (১৮৫৮)
  • মার্টিন র‍্যাটলার (১৮৫৮)
  • হ্যান্ডবুক টু দ্য নিউ গোল্ডফিল্ডস (১৮৫৮)
  • দ্য ডগ ক্রুসো অ্যান্ড হিজ মাস্টার (১৮৬০)
  • দ্য ওয়ার্ল্ড অফ আইস (১৮৬০)
  • দ্য গোরিলা হান্টার্স (১৮৬১)
  • দ্য গোল্ডেন ড্রিম (১৮৬১)
  • দ্য রেড এরিক (১৮৬১)
  • অলওয়েজ ইন দ্য ওয়াইল্ডারনেস (১৮৬৩)
  • ফাইটিং দ্য হোয়েলস (১৮৬৩)
  • দ্য ওয়াইল্ড ম্যান অফ দ্য ওয়েস্ট (১৮৬৩)
  • ম্যান অন দি ওশেন (১৮৬৩)
  • ফাস্ট ইন দি আইস (১৮৬৩)
  • গ্যাসকোয়িন (১৮৬৪)
  • দ্য লাইফবোট (১৮৬৪)
  • চেজিং দ্য সান (১৮৬৪)
  • ফ্রিকস অন দ্য ফেলস (১৮৬৪)
  • দ্য লাইটহাউস (১৮৬৫)
  • ফাইটিং দ্য ফ্লেমস (১৮৬৭)
  • সিলভার লেক (১৮৬৭)
  • ডিপ ডাউন (১৮৬৮)
  • শিফটিং উইন্ডস (১৮৬৮)
  • হান্টিং দ্য লায়নস (১৮৬৯)
  • ওভার দ্য রকি মাউন্টেইন্স (১৮৬৯)
  • সেভড বাই দ্য লাইফবোট (১৮৬৯)
  • আরলিং দ্য বোল্ড (১৮৬৯)
  • দ্য ব্যাটেল অ্যান্ড দ্য ব্রিজ (১৮৬৯)
  • আপ ইন দ্য ক্লাউডস (১৮৬৯)
  • দ্য ক্যানিবল আইল্যান্ডস (১৮৬৯)
  • লস্ট ইন দ্য ফরেস্ট (১৮৬৯)
  • ডিগিং ফর গোল্ড (১৮৬৯)
  • সাঙ্ক অ্যাট সি (১৮৬৯)
  • দ্য ফ্লোটিং লাইট অফ দ্য গুডউইন স্যান্ডস (১৮৭০)
  • দ্য আয়রন হর্স (১৮৭৯)
  • দ্য নর্সমেন ইন দ্য ওয়েস্ট (১৮৭২)
  • দ্য পায়োনিয়ারস (১৮৭২)
  • ব্ল্যাক আইভরি (১৯৭৩)
  • লাইফ ইন দ্য রেড ব্রিগেড (১৮৭৩)
  • ফোর্ট ডিসোলেশন (১৮৭৩)
  • দি ওশেন অ্যান্ড ইটস ওয়ান্ডারস (১৮৭৪)
  • দ্য পাইরেট সিটি: অ্যান অ্যালগারাইন টেল (১৮৭৪)
  • দ্য বাটারফ্লাই’জ বল অ্যান্ড দ্য গ্রাসহোপার’স ফিস্ট (১৮৭৪)
  • দ্য স্টোরি অফ দ্য রক (১৮৭৫)
  • রিভারস অফ আইস (১৮৭৫)
  • আন্ডার দ্য ওয়েভস (১৮৭৬)
  • দ্য সেটলার অ্যান্ড দ্য স্যাভেজ (১৮৭৭)
  • ইন দ্য ট্র্যাক অফ দ্য ট্রুপস (১৮৭৮)
  • জারউইন অ্যান্ড কাফি (১৮৭৮)
  • ফিলোজফার জ্যাক (১৮৭৯)
  • সিক্স মান্থস অ্যাট দ্য কেপ (১৮৭৯)
  • পোস্ট হেস্ট (১৮৮০)
  • দ্য লোনলি আইল্যান্ড (১৮৮০)
  • দ্য রেড ম্যান’স রিভেঞ্জ (১৮৮০)
  • মাই ডগি অ্যান্ড আই (১৮৮১)
  • লাইফ অফ আ শিপ (১৮৮২)
  • দ্য কিটেন পিলগ্রিমস (১৮৮২)
  • দ্য জায়েন্ট অফ দ্য নর্থ (১৮৮২)
  • দ্য ম্যাডম্যান অ্যান্ড দ্য পাইরেট (১৮৮৩)
  • ব্যাটেলস উইথ দ্য সি (১৮৮৩)
  • দ্য ব্যাটারি অ্যান্ড দ্য বয়লার (১৮৮৩)
  • দ্য থরোগুড ফ্যামিলি (১৮৮৩)
  • দি ইয়ং ট্রলার (১৮৮৪)
  • ডাস্টি ডায়মন্ডস, কাট অ্যান্ড পোলিশড (১৮৮৪)
  • টোয়াইস বট (১৮৮৫)
  • দি আইল্যান্ড কুইন (১৮৮৫)
  • দ্য রোভার অফ দি আন্দিজ (১৮৮৫)
  • দ্য প্রেইরি চিফ (১৮৮৬)
  • দ্য লাইভলি পুল (১৮৮৬)
  • রেড রুনি (১৮৮৬)
  • দ্য বিগ ওটার (১৮৮৭)
  • দ্য ফিউজিটিভস অর দ্য টাইরান্ট কুইন অফ মাদাগাস্কার (১৮৮৭)
  • ব্লু লাইটস (১৮৮৮)
  • দ্য মিডি অ্যান্ড দ্য মুরস (১৮৮৮)
  • দি ইগল ক্লিফ (১৮৮৯)
  • দ্য ক্রিউ অফ দ্য ওয়াটার ওয়াগটেইল (১৮৮৯)
  • ব্লোন টু বিটস (১৮৮৯)
  • দ্য গ্যারেট অ্যান্ড দ্য গার্ডেন (১৮৯০)
  • জেফ বেনসন (১৮৯০)
  • চার্লি টু দ্য রেসকিউ (১৮৯০)
  • দ্য কক্সসোয়াইন’স ব্রাইড (১৮৯১)
  • দ্য বাফেলো রানারস (১৮৯১)
  • দ্য হট সোয়াম্প (১৮৯২)
  • হন্টেড অ্যান্ড হ্যারিড (১৮৯২)
  • দ্য ওয়ালরাস হান্টারস (১৮৯৩)
  • অ্যান অথর’স অ্যাডভেঞ্চার (১৮৯৩)
  • রেকেড বাট নট রুইনড (১৮৯৫)

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

[৭][৮][৪][৩][১]}}

  1. "Obituary" , The Times (34184), ১০ ফেব্রুয়ারি ১৮৯৪, পৃষ্ঠা 5, সংগ্রহের তারিখ ১৭ ডিসেম্বর ২০১৩ 
  2. Lees (1832), p. 48
  3. Rennie, Neil (২০০৪), "Ballantyne, Robert Michael (1825–1894)", Oxford Dictionary of National Biography (online সংস্করণ), Oxford University Press, ডিওআই:10.1093/ref:odnb/1232, সংগ্রহের তারিখ ১৭ ডিসেম্বর ২০১৩  (সাবস্ক্রিপশন বা যুক্তরাজ্যের গণগ্রন্থাগারের সদস্যপদ প্রয়োজন)
  4. McKinstry, Sam; Fletcher, Marie (২০০২), "The Personal Account Books of Sir Walter Scott", The Accounting Historians Journal, 29 (2): 59–89, জেস্টোর 40698269, ডিওআই:10.2308/0148-4184.29.2.59 
  5. Ballantyne (2004), p. 4
  6. Ungava was dated 1858 but released in 1857: টেমপ্লেট:Cite DCB
  7. "Ballantyne, R. M. (1825–1894)", English Heritage, সংগ্রহের তারিখ ১ জুলাই ২০১২ 
  8. Forman, Ross G. (১৯৯৯), "When Britons Brave Brazil: British Imperialism and the Adventure Tale in Latin America, 1850–1918", Victorian Studies, 42 (3): 454–487, জেস্টোর 3828976, ডিওআই:10.2979/VIC.1999.42.3.455 

গ্রন্থপঞ্জি

  • Ballantyne, R. M. (২০০৪) [1893], Personal Reminiscences in Book Making, Kessinger Publishing, আইএসবিএন 978-1-4191-4102-7 
  • Lees, Edward S. (১৮৩২), The Post Office Annual Directory for 1832–1833, Ballanyne 

আরও পড়ুনসম্পাদনা

  • Quayle, Eric (১৯৬৭)। Ballantyne the brave: a Victorian writer and his family। Hart-Davis। 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা

টেমপ্লেট:Wikisource-author

টেমপ্লেট:ভিক্টোরিয়ান শিশু সাহিত্য