আর্গিউমেন্টাম এড পপুলাম

ল্যাটিন ভাষা হতে উদ্ভুত আর্গিউমেন্টাম এড পপুলাম একপ্রকার কুযুক্তি বা হেত্বাভাষযুক্তিবিচারিক তত্ত্ব অনুসারে এই কুযুক্তি দিয়ে বুঝানো হয় বেশিরভাগ মানুষ বিশ্বাস করে এরকম যেকোনো প্রকার প্রতিজ্ঞা বা বিবৃতি অবশ্যই সত্য। একে সংক্ষেপে এভাবেও বলা যায়, "যা বেশিরভাগ মানুষ বিশ্বাস করে তাই সঠিক"।

এই কুযুক্তি ইংরেজি ভাষায় বিভিন্ন নামে পরিচিত[১](ইংরেজি:appeal to the masses, appeal to belief, appeal to the majority, appeal to democracy, appeal to popularity, argument by consensus, consensus fallacy, authority of the many, bandwagon fallacy, vox populi)।[২] এই কুযুক্তি বিচার বিবেকের মাধ্যমে নির্ধারিত হয় না, বরং এই কুযুক্তি সংখ্যার প্রাচুর্যতাকে বিবেচনাধীন রেখে সিদ্ধান্ত নেয়। চীনা ভাষায় একটি প্রবাদ আছে। প্রবাদটি হলো "তিনজনেতে বাঘ বলিলে, বাঘ জন্মায় সে স্থানে"। এই প্রবাদের সাথে এই হেত্বাভাষের অর্থগত সাদৃশ্য আছে।

উদাহরণসম্পাদনা

কোনো মানুষকে প্রভাবিত করতে গিয়ে এই হেত্বাভাষের ব্যবহারের প্রবণতা অনেক বেশি দেখা যায়। বলা হয়, এটা বিশ্বাস করতেই হবে বা এটাই যৌক্তিক কারণ সংখ্যাধিক্য মানুষ এটাই মনে করে। এরকম কিছু উদাহরণ হলো

  • সংখ্যাধিক্য মানুষ মনে করে, ভূমিকম্পের কারণ হলো অনৈতিক কাজ, তার মানে ভুমিকম্প একারণেই হয়।
  • "বেদের মেয়ে জ্যোৎস্না" একটি ব্যাবসাসফল চলচ্চিত্র, অর্থাৎ এই চলচ্চিত্রটি মানসম্পন্ন চলচ্চিত্র।
  • সবাই এটা করছে, তারমানে এটা সঠিক।
  • আদালতে বিচারকগণ গণতান্ত্রিকভাবে সিদ্ধান্ত নেন, অর্থাৎ তারা সঠিক সিদ্ধান্ত নেন।
  • বেশিরভাগ লোক ওয়ারেন্টি বেশি এরকম জিনিসপত্র ক্রয় করে, তার মানে, যেসব দ্রব্যের ওয়ারেন্টি বেশি সেগুলো ক্রয় করাই বুদ্ধিমানের কাজ।
  • লক্ষাধিক মানুষ আমার দৃষ্টিভঙ্গীর সাথে একমত, অর্থাৎ আমিই সঠিক।
  • দেশটার বেশিরভাগ মানুষ এই প্রধানমন্ত্রীকে ভোট দিয়েছে, তার মানে এই প্রধানমন্ত্রী ভালো প্রধানমন্ত্রী।
  • আমার পরিবার বা সম্প্রদায় এটাকে সত্য মানে, অতএব যারা যারা এর সাথে দ্বিমত পোষন করছে তারা সবাই নিশ্চিতভাবে ভুল।
  • কেও এই বিষয়ে এখন পর্যন্ত অভিযোগ করে নি, তার মানে, এই বিষয়ে অভিযোগ কেও করতে পারবেও না (অর্থাৎ জিনিসটা ভালো)

ব্যাখ্যাসম্পাদনা

ধরা যাক কোনো একটা বিষয়ের উপর ভোট গণনা করা হচ্ছে। অপশন বা সুযোগ হচ্ছে ক এবং খ এর মধ্যে যে কোনো একটা বাছাইয়ের। ৭৫ শতাংশ মানুষ এক্ষেত্রে বাছাই করে নিল "ক" অপশনটি। এক্ষেত্রে গণতন্ত্র হিসাব করে খ অপশনকে বাতিল করে দেওয়া হবে। আপাত দৃষ্টিতে এটা সর্বশ্রেষ্ঠ মনে হলেও এটা সঠিক নয়। এক্ষেত্রে যে ২৫ শতাংশ খ সুযোগটিকে বাছাই করেছে, তাদের বক্তব্য শুনা প্রয়োজন, বিবেচনা করা প্রয়োজন, কেন তারা ক সুযোগটিকে বেছে নিলো না। কিন্তু সমাজ বা রাষ্ট্রপরিচালনায় এরকম সংখ্যালঘুদের মতামত বেশিরভাগ সময়েই উপেক্ষিত হয়। ফলশ্রুতিতে ঐতিহাসিকভাবে রাষ্ট্র এবং সভ্যতাকে অনেকসময় সে ভুলের প্রতিদান দিতে হয়।

প্রমাণসম্পাদনা

  • কেও দাবী করতে পারে ধুমপান স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। এই দাবী হিসাবে সে বলতে পারে কোটি কোটি মানুষ এই ধুমপান করে। কিন্তু তা সত্ত্বেও এই কোটি মানুষের মতামত অগ্রহণযোগ্য এবং সত্যটা হলো ধুমপান স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর
  • প্রাচীন সমাজে অসংখ্য মানুষ বিশ্বাস করত কিছু মানুষ জাদুচর্চা করে, সেই অপবাদে কিছু মানুষকে অপজাদুর চর্চার অপবাদ দিয়ে পুড়িয়ে মারা হয়েছিল। যদি সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের মতামত উপেক্ষা করে, যাদের বিরুদ্ধে অপবাদ দেওয়া হয়েছিল, তাদের বক্তব্য শুনা হত, তবে এরকম অনৈতিক আচরণ তাদের সাথে করা হত না।
  • গ্যালিলীও গ্যালিলী বৈজ্ঞানিক উপাত্তসহকারে সৌরকেন্দ্রিক বিশ্বকে প্রমাণে সক্ষম হলেও তাকে নির্যাতিত হতে হয়েছিল। সেসময়ের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ পৃথিবীকেন্দ্রিক ধারণাকে বিশ্বাস করত বলেই, তারা গ্যালিলীওর বক্তব্যকে প্রত্যাখান করেছে। অথচ আজ এটা প্রতিষ্ঠিত গ্যালীলিওই সঠিক ছিলেন। এখানে সংখ্যাগরিষ্ঠের মতামত নয়, বরং সংখ্যালঘুর মতামতই জয়লাভ করেছে।

তথ্যসুত্রসম্পাদনা

বহিঃস্থ সংযোগসম্পাদনা