আপেল মাহমুদ

বাংলাদেশী গায়ক

আপেল মাহমুদ হলেন একজন বাংলাদেশী গায়ক। তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময়ে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র হতে প্রচারিত "মোরা একটি ফুলকে বাঁচাবো বলে যুদ্ধ করি" গানের গায়ক হিসেবে সবচেয়ে বেশি পরিচিত। এ ছাড়াও "তীর হারা এই ঢেউয়ের সাগর" তার একটি উল্লেখযোগ্য গান। দেশাত্ববোধক গান ছাড়াও তিনি রবীন্দ্রসঙ্গীত, লালনগীতি, গণসঙ্গীত ও আধুনিক ধারার গান গেয়েছেন। সঙ্গীতে অবদানের জন্য তিনি ২০০৫ সালে বাংলাদেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক পুরস্কার একুশে পদকে ভূষিত হন।

আপেল মাহমুদ
জন্ম (1947-12-22) ২২ ডিসেম্বর ১৯৪৭ (বয়স ৭৬)
কুমিল্লা জেলা, মেঘনা উপজেলা সোনার চর মুন্সী বাড়িতে
পেশাগায়ক,গীতিকার ও সুরকার
পুরস্কারএকুশে পদক (২০০৫)
বাবিসাস পুরস্কার (২০১৬)
সঙ্গীত কর্মজীবন
ধরনদেশাত্ববোধক, রবীন্দ্রসঙ্গীত, লালনগীতি, গণসঙ্গীত, আধুনিক ধারা
বাদ্যযন্ত্রভোকাল
লেবেলজি-সিরিজ

প্রারম্ভিক জীবন

সম্পাদনা

মাহমুদ বাংলাদেশের কুমিল্লা জেলার মেঘনা উপজেলা সোনার চর মুন্সী বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৭১ সালের ২৫ শে মার্চ রাতে গণহত্যা শুরু হওয়ার পরপরই বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন এবং জুন মাস পর্যন্ত ৩ নম্বর সেক্টরে তিনি যুদ্ধ করেছেন। এরপর তিনি স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রে শিল্পী হিসেবে যোগ দেন।[১]

কর্মজীবন

সম্পাদনা

স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র হতে তিনি গোবিন্দ হালদারের লেখা "মোরা একটি ফুলকে বাঁচাবো বলে যুদ্ধ করি" গানে কণ্ঠ দেন। এছাড়া তিনি তার নিজের লেখা "তীর হারা এই ঢেউয়ের সাগর" গানে কণ্ঠ দেন। ২০১৪ সালের নভেম্বর মাসে তার গাওয়া গান নিয়ে জি-সিরিজ থেকে প্রকাশিত হয় আলতাফ মাহমুদ দ্য লিজেন্ড অ্যালবাম।[২][৩]

সম্মাননা

সম্পাদনা

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. "বিবিসির সাথে গানগল্প : আপেল মাহমুদ"বিবিসি বাংলা। ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জানুয়ারি ২০১৯ 
  2. "আপেল মাহমুদ দ্য লিজেন্ড"দৈনিক প্রথম আলো। ২০ নভেম্বর ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জানুয়ারি ২০১৯ 
  3. "আপেল মাহমুদের অ্যালবাম 'দ্য লিজেন্ড আপেল মাহমুদ'"বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম। ১৯ নভেম্বর ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জানুয়ারি ২০১৯ 
  4. বাবু, মাজহার (১৩ মে ২০১৬)। "আজীবন সম্মাননা পাচ্ছেন আপেল মাহমুদ, বারী সিদ্দিকী ও টেলি সামাদ"এনটিভি অনলাইন। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জানুয়ারি ২০১৯