অমরেন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায়

অমরেন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায় (১ জুলাই, ১৮৮০ – ৪ সেপ্টেম্বর ১৯৫৭) একজন ভারতীয় স্বাধীনতা আন্দোলনের সক্রিয় কর্মী ছিলেন। যুগান্তর আন্দোলনের তহবিল আদায়ের জন্য ভারপ্রাপ্ত অবস্থায়, তার কার্যক্রম মূলত, বিহার, ওড়িশা এবং অধুনা উত্তরপ্রদেশ ও উত্তরাখণ্ড ব্যাপী বিপ্লবী কেন্দ্রগুলিতে ছিল।

অমরেন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায়
AMARENDRA CHATTERJEE.JPG
অমরেন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায়
জন্ম(১৮৮০-০৭-০১)১ জুলাই ১৮৮০
মৃত্যু৪ সেপ্টেম্বর ১৯৫৭(1957-09-04) (বয়স ৭৭)
জাতীয়তাভারতীয়
পেশাবিপ্লবী
পিতা-মাতাউপেন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায়

প্রাথমিক জীবনসম্পাদনা

কলকাতার নিকটবর্তী হুগলি জেলার উত্তরপাড়ায় ১ জুলাই ১৮৭৯ সালে জন্মগ্রহণ করেন। অমরেন্দ্রের পিতা ছিলেন ছিলেন উপেন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায়। উত্তরপাড়ায় প্রাথমিক শিক্ষা এবং ভাগলপুরের মাধ্যমিক পর্যায়ে শিক্ষালাভের পর, অমরেন্দ্র কলকাতার সুপরিচিত ডাফ কলেজে (বর্তমানে স্কটিশ চার্চ কলেজ ) যোগদান করেন, যেখানে তার সহপাঠীদের মধ্যে ছিলেন পরবর্তী জীবনের বিপ্লবী সহকর্মী উপেন্দ্রনাথ ব্যানার্জি এবং ঋষিকেশ কঞ্জিলাল। স্নাতক খবার পর, তিনি এবং তার বন্ধুরা সুরেন্দ্রনাথ ব্যানার্জির সঙ্গে পুরো ভারতবর্ষে তার বক্তৃতা সফরে গিয়েছিলেন এবং সুরেন্দ্রনাথ ব্যানার্জির দ্বারা প্রভাবিত হয়ে পরবর্তীকালে সমাজসেবার কেন্দ্রগুলি খুলেছিলেন। দেশভাগ বিরোধী আন্দোলনের সময়, ব্রিটিশ পণ্য বর্জনের বিষয়টি চিহ্নিত করে অমরেন্দ্র জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক আন্দোলনের নেতৃত্ব দেন।

প্রথম পদক্ষেপসম্পাদনা

রাজা পিয়ারিমোহন ও তার পুত্র রাজেন্দ্রনাথ মুখার্জী ('মিসরি বাবু') দ্বারা অর্থায়নে, তিনি উত্তরপাড়া শিল্প-সমিতি প্রতিষ্ঠা করেন, একটি কাঠের জিনিস তৈরির কারখানা করেছিলেন, ছয়টি হস্তচালিত তাঁত কিনে স্বদেশী কাপড় বিক্রি শুরু করেছিলেন। খুব শীঘ্রই তিনি নদিয়ার পোড়াগাছা ইউনিটটির তত্ত্বাবধান করেন, যতীন্দ্রনাথ মুখার্জী ( বাঘা যতীন বা যতীন মুখার্জী ) কে সহায়তা প্রদান করেন। তারা ছাত্র ভান্ডার ("স্টুডেন্টস এম্পোরিয়াম") গঠনে সহযোগিতা করেছিলেন, যা পরবর্তীতে শ্রমজীবী সমবায় ("শ্রমিকদের সমবায়") রূপান্তরিত হয়েছিল।

১৯০৩ সাল থেকে যখন যতীন মুখোপাধ্যায় সরাসরি অরবিন্দ ঘোষের আদেশে কাজ করছিলেন,[১] তখন অমরেন্দ্র ১৯০৭ সালে শ্রী অরবিন্দের সাক্ষাত পান এবং এই কথাগুলো দিয়ে: "নিজেকে ঈশ্বর ও কাছে সমর্পণ কর এবং ডিভাইন মাদারের নামে ভারতবর্ষের সেবা করে যাও। এটাই তোমাকে আমার দীক্ষা " দীক্ষা পেয়েছিলেন। শ্রী অরবিন্দ তাকে আরো বলেন "আমরা যদি দেশের স্বাধীনতা অর্জন করতে চাই, তবে আমাদের এর জন্য সবকিছুই উত্সর্গ করতে হবে, এবং এমনকি আমাদের জীবন ত্যাগ করতে প্রস্তুত হওয়া উচিত। যদি আমরা দেশকে মুক্ত করতে চাই, তাহলে আমাদের মৃত্যুভয় জিততে হবে।" [২] চরমপন্থীদের আন্দোলনের তহবিল সংগ্রহের জন্য শ্রী অরবিন্দ দ্বারা উত্সাহিত, হয়ে তিনি যতীন মুখার্জির কাছাকাছি আসেন। বাণিজ্যিক কার্যক্রমের পিছনে, তাদের কেন্দ্রগুলি আঞ্চলিক কেন্দ্রগুলির স্বাধীনতা সংগ্রামীদের আশ্রয়স্থল হিসাবে, পাশাপাশি যতীন ও অন্যান্য যুগান্তর নেতাদের বৈঠকের জন্য ব্যবহৃত হত।

পরবর্তী জীবনসম্পাদনা

বাংলার ফিরে আসার পর, অমরেন্দ্র চেরি প্রেসের পরিচালনা গ্রহণ করে, আত্মশক্তি মুদ্রণ ও প্রকাশ করেন, স্বরাজ্য পার্টির কাঠামোর মধ্যে দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাশকে তার যুগান্তরের সাথীদের পূর্ণ সহানুভূতি প্রদান করেন। স্বল্প মেয়াদী কারাগার বাসের পর তিনি ১৯২৩ সালে মুক্তি পান এবং সুরেশ মজুমদার (বাঘা যতীনের অনুসারী) দ্বারা কর্মী সংঘ ("শ্রমিকদের সম্প্রদায়") এর সভাপতি হিসেবে নিযুক্ত হন। ১৯২০ দশকের প্রথম দিকে, বলা হয় যে সুরেশ, অমরেন্দ্রর কাছ থেকে অর্থায়নে প্রচুর সাহায্য পেয়েছিলেন এবং আনন্দবাজার গোষ্ঠীর কাগজপত্র প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। ১৯২৯ সালে পরিষদে তিনি নির্বাচিত হন,১৯৩০ সালে ডান্ডি মার্চে যোগদান করেন এবং এক বছর কারাগারে অতিবাহিত করেন। মদনমোহন মালভিয়ার কংগ্রেস জাতীয় দলের (১৯৩৭-১৯৪৫) প্রতিনিধিত্বকারী কেন্দ্রীয় আইন পরিষদের সদস্য হিসাবে তিনি তার বিপ্লবী সহযোগী এমএন রায় (নরেন ভট্টাচার্য) এর কর্মসূচি পছন্দ করেন এবং ১৯৪৫ সালে রেডিকাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টিতে যোগ দেন। তিনি ১৯৫৭ সালে উত্তরপাড়ায় মারা যান। [৩]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. সন্ত্রাস, পশ্চিমবঙ্গ বাংলা,[abbrev. সন্ত্রাসবাদ] দ্বারা এ. কে. সামন্ত (সম্পাদক), ভলিউম. ৫, পাতা-৬৩
  2. কে. আর. শ্রীনিবাস আয়েঙ্গার, শ্রী অরবিন্দ, একটি জীবনী এবং একটি ইতিহাস, ভলিউম ১ পাতা-৪৯৩
  3. জাতীয় জীবনী অভিধান, ভলিউম ১, পাতা- ২৬৮