অপ্রাকৃতিক যৌনসঙ্গম

অপ্রাকৃতিক যৌনসঙ্গম ( /ˈsɒdəmi/ ), যাকে ব্রিটিশ ইংরেজিতে বাগারি (buggery) ও বলা হয়, সাধারণত মানুষে মানুষে পায়ুসঙ্গম (তবে মাঝে মাঝে মুখমৈথুন ) বা মানুষ ও অন্য প্রাণীর মধ্যে যেকোন যৌন কার্যকলাপ (পশুকামিতা) বোঝায়। এর অর্থ হতে পারে কোনো অ- প্রজননশীল যৌন কার্যকলাপ। [১] [২] [৩] [৪] মূলত, সডোমি শব্দটি, যা আদি পুস্তকে সডোম ও গোমোরার গল্প থেকে উদ্ভূত হয়েছে, [৫] [৬] সাধারণত সমকামী পায়ূ যৌনতার মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল। [৭] [৮] অনেক দেশে পায়ুকামিতা আইন এহেন আচরণকে অপরাধ হিসাবে ধরা হয়। [৮] পশ্চিমা বিশ্বে, এই আইনগুলির অনেকগুলি বাতিল করা হয়েছে বা নিয়মিতভাবে প্রয়োগ করা হয় না। [৯] একজন ব্যক্তি যিনি অপ্রাকৃত যৌনসঙ্গমে লিপ্ত তাকে কখনও কখনও সোডোমাইট হিসাবে উল্লেখ করা হয়।

অপ্রাতিক যৌন সঙ্গম।

এটি এমন যৌনমিলন বোঝায় যার মাধ্যমে প্রজনন সম্ভব নয়। প্রধানত পায়ূমৈথুনমুখমৈথুন অপ্রাকৃতিক যৌনসঙ্গম হিসেবে পরিগণিত। ১৮৬০ সালে ভারতে ব্রিটিশ শাসনামলে যে দণ্ড বিধি প্রণয়ন ও বলবৎ করা হয় তার ৩৭৭ ধারায় অপ্রাকৃতিক যৌনসঙ্গমকে শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে। এ হেন যৌনকর্মকে বাইবেল এ অপ্রাকৃতিক বা প্রকৃতি-বিরূদ্ধ হিসেবে গণ্য করা হয়েছে। ১৯৪৭ এ ভারত স্বাধীন হলে এই আইন বলবৎ ও কার্যকর থাকে। অদ্যাবধি এই আইন কার্যকর রয়েছে।

সমকামীরা এই আইন রদ করার জন্য দাবী করে চলেছে। সমকামী পুরুষ একে অপরের মলদ্বারে লিঙ্গ প্রবিষ্ট করে জৈবিক কামনা চরিতার্থ করে। এই আইনের অর্থাৎ ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৭৭ ধারার ভাষ্য অনুযায়ী সমকাম এক প্রকার অপ্রাকৃতিক যৌনসঙ্গম এবং এ কারণে এটি শাস্তিযোগ্য অপরাধ। আইনটিতে বস্তুতঃ পুরুষে-পুরুষে পায়ূমৈথুনকে নিষিদ্ধ এবং দণ্ডযোগ্য অপরাধ গণ্য করা হয়েছিল। অপরাধটি ছিল জামিন অযোগ্য। আদালতে প্রমাণিত হলে সমকামের সর্বোচ্চ সাজা ছিল যাবজ্জীবন কারাদণ্ড। অপরাধ হয়েছে কিনা তার নিয়ামক কেবল লিঙ্গ প্রবিষ্টকরণ। এর মাধ্যমে বীর্যস্খলন আবশ্যিক শর্ত নয়।

স্বীয় স্ত্রীর সঙ্গে পায়ূমৈথুন অপ্রাকৃতিক বিধায় এই আইনের আওতায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে গণ্য। এখানে পারস্পরিক সম্মতি কোনো নির্ণায়ক নয় কেননা এই অপরাধ রাষ্ট্রের বিরূদ্ধে সংঘটিত। পায়ূমৈথুন ছাড়াও বিপরীত লিঙ্গ বা অভিন্ন লিঙ্গের সঙ্গীর বা সঙ্গিনীর মুখে বা মুখগহ্বরে মৈথুন অপ্রাকৃতিক বিধায় ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৭৭ ধারাযর ভাষ্য অনুযায়ী শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. Sauer, Michelle M. (২০১৫)। "The Unexpected Actuality: "Deviance" and Transgression"Gender in Medieval CultureBloomsbury Academic। পৃষ্ঠা 74–78। আইএসবিএন 978-1-4411-2160-8ডিওআই:10.5040/9781474210683.ch-003 
  2. Shirelle Phelps (২০০১)। World of Criminal Justice: N–ZGale Group। পৃষ্ঠা 686। আইএসবিএন 0787650730। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ১৩, ২০১৪ 
  3. John Scheb; John Scheb, II (২০১৩)। Criminal Law and ProcedureCengage Learning। পৃষ্ঠা 185। আইএসবিএন 978-1285546131। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ১৩, ২০১৪ 
  4. David Newton (২০০৯)। Gay and Lesbian Rights: A Reference Handbook, Second EditionABC-CLIO। পৃষ্ঠা 85। আইএসবিএন 978-1598843071। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ১৩, ২০১৪ 
  5. Bullough, Vern L.; Bullough, Bonnie (২০১৯)। ""Unnatural Sex""Sin, Sickness and Sanity: A History of Sexual Attitudes। Routledge Library Editions: History of Sexuality (1st সংস্করণ)। Routledge। পৃষ্ঠা 24–40। আইএসবিএন 978-0-429-05663-5ডিওআই:10.4324/9780429056659 
  6. J. D. Douglas; Merrill C. Tenney (২০১১)। Zondervan Illustrated Bible DictionaryZondervan। পৃষ্ঠা 1584 pages। আইএসবিএন 978-0310492351। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৩ 
  7. Nicholas C. Edsall (২০০৬)। Toward Stonewall: Homosexuality and Society in the Modern Western WorldUniversity of Virginia Press। পৃষ্ঠা 3–4। আইএসবিএন 0813925436। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৩ 
  8. Colin Sumner (২০০৮)। The Blackwell Companion to CriminologyJohn Wiley & Sons। পৃষ্ঠা 310–320। আইএসবিএন 978-0470998953। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৩ 
  9. Sullivan, Andrew (মার্চ ২৪, ২০০৩)। The New Republic https://web.archive.org/web/20100702015221/http://www.tnr.com/article/unnatural-law। জুলাই ২, ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ২৭, ২০০৯  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য) (Or Sullivan, Andrew (২০০৩-০৩-২৪)। The New Republic  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য))