প্রধান মেনু খুলুন

অনুরূপা দেবী

বাঙালি ঔপন্যাসিক

অনুরূপা দেবী (৯ সেপ্টেম্বর ১৮৮২- ১৯ এপ্রিল ১৯৫৮) একজন বাঙালি ঔপন্যাসিক।

অনুরূপা দেবী
জন্ম৯ সেপ্টেম্বর ১৮৮২
মৃত্যু১৯ এপ্রিল ১৯৫৮
জাতিসত্তাবাঙালি
যে জন্য পরিচিতবাঙালি ঔপন্যাসিক
পুরস্কারকুন্তলীন পুরস্কার, জগৎ্তারিণী স্বর্ণপদক,ভুবনমোহিনী দাসী স্বর্ণপদক

পরিচ্ছেদসমূহ

জন্ম ও পরিবারসম্পাদনা

অনুরূপা দেবীর পিতার নাম মুকুন্দদেব মুখোপাধ্যায় এবং পিতামহ ছিলেন বিশিষ্ট লেখক ভূদেব মুখোপাধ্যায়। তাঁর দিদি ইন্দিরা দেবী ছিলেন একজন ঔপন্যাসিক, ছোটগল্পকার এবং কবি। তিনি তাঁর আইন ব্যবসায়ী স্বামী শিখরনাথ বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাথে মজঃফরপুরে বসবাস করতেন।[১]

সাহিত্যচর্চাসম্পাদনা

অনুরূপা দেবী তাঁর পিতামহ ভূদেব মুখোপাধ্যায় ও দিদি ইন্দিরা দেবীর অণুপ্রেরণায় সাহিত্য চর্চা আরম্ভ করেন। তাঁর প্রথম কবিতা ঋজুপাঠ অবলম্বনে রচিত। রাণী দেবী ছদ্মনামে তাঁর রচিত প্রথম গল্প কুন্তলীন পুরস্কার প্রতিযোগিতায় প্রকাশিত হয়। ১৩১১ বঙ্গাব্দে তাঁর রচিত প্রথম উপন্যাস টিলকুঠি নবনূর পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। ১৩১৯ বঙ্গাব্দে তাঁর উপন্যাস পোষ্যপুত্র ভারতী পত্রিকায় প্রকাশিত হলে তিনি বিখ্যাত হন।[১]

সমাজ সংস্কারকসম্পাদনা

অনুরূপা দেবী একজন সমাজ সংস্কারক ছিলেন। তিনি কাশী এবং কলকাতায় কয়েকটি বালিকা বিদ্যালয়ের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। তিনি একাধিক নারীকল্যাণ আশ্রমের প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। ১৯৩০ খ্রিস্টাব্দে তিনি মহিলা সমবায় প্রতিষ্ঠান স্থাপন করেন। নারীর অধিকার আন্দোলনের তিনি একজন পুরোধা ছিলেন।[১]

রচনাসম্পাদনা

তাঁর রচিত উপন্যাস মন্ত্রশক্তি, মা, মহানিশা, পথের সাথী, বাগদত্তা নাটকে রূপান্তরিত হয়েছিল। তিনি ৩৩টি গ্রন্থ রচনা করেছিলেন। জীবনের স্মৃতিলেখা তাঁর অসমাপ্ত রচনা।[১]

উপন্যাসসম্পাদনা

  • পোষ্যপুত্র (১৯১১)
  • বাগদত্তা (১৯১৪)
  • জ্যোতিঃহারা (১৯১৫)
  • মন্ত্রশক্তি (১৯১৫)
  • মহানিশা (১৯১৯)
  • মা (১৯২০)
  • উত্তরায়ণ
  • পথহারা

[২]

অন্যান্যসম্পাদনা

  • সাহিত্যে নারী,
  • স্রষ্ট্রী ও সৃষ্টি,
  • বিচারপতি,
  • জীবনের স্মৃতিলেখা

সম্মাননাসম্পাদনা

মৃত্যুসম্পাদনা

তিনি ১৯ এপ্রিল, ১৯৫৮ সালে মারা যান।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. সংসদ বাঙালি চরিতাভিধান - প্রথম খণ্ড - সাহিত্য সংসদ আইএসবিএন ৮১-৮৫৬২৬-৬৫-০
  2. সেলিনা হোসেন ও নুরুল ইসলাম সম্পাদিত; বাংলা একাডেমী চরিতাভিধান; ফেব্রুয়ারি, ১৯৯৭; পৃষ্ঠা- ৮।