অতুলচন্দ্র গুপ্ত

বাঙালি সাহিত্যিক

অতুলচন্দ্র গুপ্ত (১২ই মার্চ, ১৮৮৪- ১২ই ফেব্রুয়ারি, ১৯৬১) বাঙালি সাহিত্যিক এবং বিশিষ্ট আইনজীবী ছিলেন। তিনি টাঙ্গাইল জেলার বিল্লাইক গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন এবং কলকাতায় মৃত্যুবরণ করেন। তিনি ভারতীয় কংগ্রেস দলের একজন সক্রিয় সদস্য ছিলেন। গদ্যলেখক হিসেবে তিনি খ্যাতি অর্জন করেন।[১]

অতুলচন্দ্র গুপ্ত
জন্ম১২ই মার্চ, ১৮৮৪
মৃত্যু১২ই ফেব্রুয়ারি, ১৯৬১
পেশাআইনজীবী
পরিচিতির কারণবাঙালি সাহিত্যিক
পুরস্কার'অনাথনাথ দেব' পুরস্কার

জন্মসম্পাদনা

১৮৮৪ খ্রিষ্টাব্দের ১২ মার্চ টাঙ্গাইল জেলার বিল্লাইক গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। পিতার নাম উমেশচন্দ্র গুপ্ত। তিনি ছিলেন আইনজীবী। আইন ব্যবসার কারণে উমেশচন্দ্র সপরিবারে রংপুরে বসবাস শুরু করেন। এই কারণে অতুলচন্দ্রের প্রাথমিক শিক্ষা সম্পন্ন হয় রংপুরে।

শিক্ষা ও কর্ম জীবনসম্পাদনা

১৯০১ খ্রিষ্টাব্দে অতুলচন্দ্র রংপুর জেলা স্কুল থেকে প্রবেশিকা পাস করেন। এরপর  কলকাতার প্রেসিডেন্সি কলেজ ভর্তি হন। এই কলেজ থেকে ১৯০৪ খ্রিষ্টাব্দে ইংরেজি ও দর্শনশাস্ত্রে অনার্সসহ বি.এ পাশ করেন।

১৯০৫ খ্রিষ্টাব্দে তিনি 'কার্লাইল সার্কুলার-বিরোধী আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেন। ১৯০৬ খ্রিষ্টাব্দে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দর্শনশাস্ত্রে এম.এ পাশ করেন। এবং ১৯০৭ খ্রিষ্টাব্দে বি.এল ডিগ্রি লাভ করেন।

এরপর কিছুদিন তিনি রংপুর জাতীয় বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেন। পরে রংপুরেই তিনি আইন ব্যবসা শুরু করেন১৯১৪ খ্রিষ্টাব্দে তিনি কলকাতা হাইকোর্টে আইন ব্যবসা শুরু করে।১৯১৮ খ্রিষ্টব্দে তিনি কলকাতা বিশববিদ্যালয়ের আইন বিভাগে রোমান ল' ও জুরিসপ্রূডেন্সের অধ্যাপক হিসেবে যোগদান করেন।  এই বৎসরে তিনি 'Trading with the Enemy' নামক একটি গবেষণামূলক প্রবন্ধ রচনা করে, তিনি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের 'অনাথনাথ দেব পুরস্কার' লাভ করেন। ১৯২৮ খ্রিষ্টাব্দে অধ্যাপনা ত্যাগ করে তিনি পুনরায় আইন ব্যবসায় ফিরে যান এবং ভারতবর্ষের অন্যতম শ্রেষ্ঠ আইনজীবিরৃপে স্বীকৃতি লাভ করেন।

রচিত গ্রন্থসম্পাদনা

  • কাব্যজিজ্ঞাসা
  • শিক্ষা ও সভ্যতা
  • নদী পথে(আষাঢ়,১৩৪৪)
  • জমির মালিক
  • সমাজ ও বিবাহ
  • ইতিহাসের মুক্তি

সম্মাননাসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা