অখিল ভারতীয় আয়ুর্বিজ্ঞান সংস্থান, পাটনা

অখিল ভারতীয় আয়ুর্বিজ্ঞান সংস্থান পাটনা (এইমস পাটনা), পূর্বে জয়া প্রকাশ নারায়ণ অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্সেস (জেপিএনএআইআইএমএস) পরিচিত,[২] একটি চিকিৎসা মহাবিদ্যালয়চিকিৎসা গবেষণা সরকারি প্রতিষ্ঠান, যা ভারতের বিহার রাজ্যের পাটনা শহরের ফুলওয়ারি শরীফে অবস্থিত। এটি ভারতের একটি জাতীয় গুরুত্বের প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠানটি পাটনা হাইকোর্টের পর্যায়ক্রমিক পর্যবেক্ষণের পর ২০১২ সালের ২৫শে সেপ্টেম্বর কার্যক্রম শুরু করেছিল।[৩] এটি স্বায়ত্তশাসিতভাবে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রকের অধীনে কাজ করে। তৎকালীন উপরাষ্ট্রপতি ভৈরন সিং শেখাওয়াত ২০০৪ সালের ৩ই জানুয়ারি ভিত্তি স্থাপন করেছিলেন।[২] প্রতিষ্ঠানটি ২০১৮ সালে সম্পূর্ণরূপে কার্যকরী হয়ে উঠেছিল।

অখিল ভারতীয় আয়ুর্বিজ্ঞান সংস্থান, পাটনা
দাপ্তরিক লোগো
ধরনসরকারি প্রতিষ্ঠান
স্থাপিতজানুয়ারি, ২০০০৪
সভাপতিএন.কে. অরোরা[১]
ডিনঅধ্যাপক (ডা.) উমেশ কুমার ভাদানি
পরিচালকঅধ্যাপক (ডা.) সৌরভ ভার্শনি
স্নাতক১২৫ জন/বছর (এমবিবিএস)
৭৫ জন/বছর (বিএসি নার্সিং)
স্নাতকোত্তর৭৩ জন (২০২১)
অবস্থান, ,
২৫°৩৬′৫৪″ উত্তর ৮৫°০৭′৪৮″ পূর্ব / ২৫.৬১৫° উত্তর ৮৫.১৩° পূর্ব / 25.615; 85.13
ওয়েবসাইটaiimspatna.edu.in
মানচিত্র

হাসপাতাল

সম্পাদনা

এইমস পাটনা হাসপাতালে বহির্বিভাগীয় রোগী ব্লক, অভ্যন্তরীণ রোগী বিভাগের ব্লক, ট্রমা ও ইমার্জেন্সি ব্লক এবং অত্যাধুনিক পরিকাঠামো সহ একটি পৃথক আয়ুশ ও পিএমআর ভবন রয়েছে। ২০২০ সালের হিসাবে, এইমস পাটনার ৮২০ টি শয্যা, ২৮ টি কার্যকরী মডুলার অপারেটিং থিয়েটার, ১২ টি কার্যকরী সুপার স্পেশালিটি এবং ১৮ টি কার্যকরী স্পেশালিটি রয়েছে।[৪] হাসপাতালে একটি ৩০,০০০-কিলো লিটার ধারন ক্ষমতার অক্সিজেন ট্যাঙ্ক স্থাপন করা রয়েছে।[৫]

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. "Notification of president nomination" (পিডিএফ)PMSSY। ৩১ অক্টোবর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০২২ 
  2. "HC forms panel for early completion of JPNAIIMS"The Times of India। ১২ এপ্রিল ২০১২। ৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০২২ 
  3. Study, health cradles plod on slo-mo track- Bottlenecks in IIT, CUB & JPNAIIMS projects prevent relief to students and patients ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৬ অক্টোবর ২০১৪ তারিখে
  4. Ministry of Health and Family Welfare। Annual Report (পিডিএফ) (2019-2020 সংস্করণ)। পৃষ্ঠা 2। 
  5. "Bihar: Covid-19 2nd wave drives AIIMS Patna's oxygen requirement by 4 times"। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০২২ 

বহিঃসংযোগ

সম্পাদনা